অতিরিক্ত টাকা আদায়ের অভিযোগে দুদক চেয়ারম্যান বরাবরে অভিযোগ

217

।।সাজিদুল ইসলাম শোভন, নড়াইল।।
নড়াইলের যোগানিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে পরীক্ষার ফর্ম পূরন ও প্রসংসা পত্রের জন্য অতিরিক্ত টাকা আদায় করার অভিযোগ উঠেছে। এ নিয়ে দুদক চেয়ারম্যান বরাবরে লিখিত অভিযোগ করা হয়েছে।

জানা গেছে এস এস সি পরীক্ষার ফর্ম পূরনে বোর্ড নির্ধারিত ফি এর তোয়াক্কা না করে আদায় করা হয়েছে দ্বিগুনের বেশি অর্থ। এমনকি বিদ্যালয় থেকে প্রসংসা পত্র নিতে শিক্ষার্থীদের গুনতে হচ্ছে টাকা।

বিদ্যালয়ের কার্যনির্বাহী কমিটির সভাপতি মাহবুব আলম, প্রধান শিক্ষক সিরাজুল ইসলাম এবং সহকারী প্রধান শিক্ষক আলমগীর হোসেন এর যোগ সাজসে অতিরিক্ত এ অর্থ আদায়ের অভিযোগ এনেছে বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী এবং অভিভাবকেরা।

স্থানীয়ভাবে কোন প্রতিকার না পেয়ে দূর্নীতি দমন কশিন (দুদক) এর চেয়ারম্যান বরাবর লিখিত অভিযোগ করেছে ভুক্তভূগীরা। শিক্ষা বোর্ড সূত্রে জানা যায়, বোর্ড কতৃক এস এস সি পরীক্ষার জন্য নিধারিত ফি ধরা হয়েছে ১৬০০ টাকা থেকে ১৮০০ টাকা। কিন্তু ঐ বিদ্যালয় শিক্ষা বোর্ডের আদেশের তোয়াক্কা না করে ৬৩ জন শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে নিয়েছে ৪২০০ টাকা করে। এমনকি প্রসংসা পত্র যেটি ফ্রিতে দেবার কথা সেটির জন্য আদায় করা হচ্ছে ২০০ টাকা করে। টাকা দিতে ব্যার্থ হলে বিদ্যালয় থেকে প্রসংসা পত্র দেওয়া হচ্ছে না।

অভিযোগে জানা যায়, এ বছর বিদ্যালয় থেকে এস এস সি পরীক্ষায় অংশগ্রহন করেছে ১২৩ জন ষিক্ষার্থী। তার মধ্যে ৬৩ জন শিক্ষার্থী এক থেকে চার বিষয়ে অকৃতকার্য় হয়। কিন্তু উচ্চ টাকার বিনিময়ে ঐ সকল অকৃতকার্য শিক্ষার্থীদের সকল বিষয়ে পাস দেখিয়ে পরীক্ষায় অংশগ্রহন করতে দেওয়া হয়। ঐ বিদ্যালয়ের একাধিক শিক্ষার্থী অভিযোগ করে বলে, বিদ্যালয় থেকে প্রসংসা পত্র আনার জন্য তাদেরকে ২০০ টাকা করে দিতে হচ্ছে। শিক্ষকরা তাদের বলছে বোর্ডেও আদেশে এ টাকা নেওয়া হচ্ছে এবং টাকা দিতে না পারলে প্রসংসা পত্র দিচ্ছেনা শিক্ষকরা।

বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য মোঃ আমীর আলী বলেন, বর্তমানে বিদ্যালয়ের কার্যনির্বাহী কমিটির সভাপতি এবং সদস্যরা স্থানিয় প্রভাবশালি হওয়ায় তাদের খেয়াল খুশিমত শিক্ষার্থীদেও উপর চাপ দিয়ে অতিরিক্ত টাকা আদায় করছে। এ বিষয়ে বার বার শিক্ষা কর্মকর্তাদের কাছে অভিযোগ করা হলেও তারা কোন প্রতিকার পাচ্ছেন না বলে তিনি অভিযোগ করেন।

শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে এ অতিরিক্ত টাকা নেবার সত্যতা স্বীকার করেছে বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক আলমগীর হোসেন এবং কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য আব্বাস আলী খান। তারা বলেন, শিক্ষাথীদের কাছ থেকে বিগত চার বছর আগে থেকে অতিরিক্ত এ টাকা নেওয়া হচ্ছে বিদ্যালয়ের উন্নয়নের জন্য। এ টাকা নেবার ব্যাপারে কমিটির চেয়ারম্যান থেকে শুরু করে সকল শিক্ষকদের সম্পুক্ত থাকার কথা জানার তারা।

কালিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো: নাজমুল হুদা জানান, যোগানিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক এবং কমিটির লোকের বিরুদ্ধে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত অর্থ আদায়ের অভিযোগ তিনি পেয়েছেন। এ বিষয়ে তদন্ত চলছে, তদন্তে প্রমানিত হলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

SHARE