“অনন্য হাসিনা” ও এই সময় প্রগতিশীলদের করনীয়

151

মোঃ মোয়াজ্জেম হোসেন কাওসার

১৯৪৭ সালের ধর্ম ভিত্তিক ভারত বিভাজন পরবর্তী অগোছালো কঠিন সময় ও পরিবেশে, হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি এই বাংলা রাখাল রাজা, ব্যতিক্রম রাজনৈতিক ছন্দের কবি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঔরসজাত ও বঙ্গমাতার জঠর ছুঁয়ে তাদের প্রথম সন্তান পৃথিবীর আলোতে আসে। টুঙ্গিপাড়ায় সবুজ কোমলে শৈশব-কৈশোরে প্রকৃতির ছন্দে তরুলতার মত বেড়ে উঠে বঙ্গবন্ধুর প্রাণপ্রিয় কন্যা। তারপর ঢাকার আজিমপুর হয়ে ধানমণ্ডি বত্রিশ।

পরিবারের বড় সন্তান হিসেবে দায়িত্ব বোধের ও ক্রমঃবিবর্তিত সময়ের উত্তাল রাজনৈতিক সংগ্রামের উত্তাপে বেড়ে উঠেছে সে তরুণী, ছাত্র রাজনীতির অনন্য সম্মান এর মালা ছাত্রসংসদের ভিপি নির্বাচিত হন ইডেন কলেজের। জীবনের পরিক্রমায় সে নারী বিয়ের পিঁড়িতে বসেন যখন, বাবা তার তখন জেলবন্দি। সুবিশাল সেই বটবৃক্ষ মুজিব কারাগারে সাক্ষাতে দোয়া করেন তার প্রাণপ্রিয় হাসুর জন্য। এর কিছুদিন পর শুরু হলো এ বাংলার মানুষের মুক্তি সংগ্রামের যুদ্ধ, যুদ্ধ সংগ্রামের মত মাতৃত্ব ধারণের যুদ্ধে লিপ্ত হাসিনার কোল জুড়ে আসে জয়।

জয়ী হলো বীর বাঙালিরা। হাসিনা শিশু লালন করছেন, আর বাবা তার শিশু রাষ্ট্র বাংলাদেশকে। অল্প সময়ের ব্যবধানে আবার জাতির ভাগ্য তিলোক কলঙ্কিত করে এলো ৭৫।

স্বামী ও ছোট বোন রেহানা সহ প্রবাসে থাকা অবস্থায় পুরো পরিবারের সবাইকে হারালেন। শোকাহত দিশেহারা জাতির লক্ষ জনতার প্রকৃত মুক্তির ভার নিলেন প্রবাসে নির্বাসিত থেকেই। নিজের শোক গাঁথা প্রত্যয়ের পাথর দিয়ে চেপে রেখে দায়িত্ব নিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের নির্বাচিত সভাপতি হয়ে।

বাংলাদেশের ব্যতিক্রম ব্যাকরণের রাজনীতির মাটিতে মৃত্যুঝুঁকিকে তোয়াক্কা না করেই হাজার হাজার নেতা কর্মীর আলিঙ্গনে দেশে ফিরেন শেখ হাসিনা। ধীরে ধীরে ভঙ্গুর অবস্থার দলকে সংগঠিত করে তোলেন মানুষের অধিকার মুক্তি আন্দোলনের জন্য। নেতৃত্বদান করেন নব্বইয়ের স্বৈরতন্ত্রের থেকে গণতন্ত্রের মুক্তির সেই গণ-আন্দোলনের, মুক্ত করেন গণতন্ত্রকে।

এরপর ১৯৯৬ সাল। জনগণ রাষ্ট্রের দায়িত্ব দেন জননেত্রী শেখ হাসিনার হাতে, রাষ্ট্রকাঠামোর মরিচা ঘষে-মেজে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলার রূপ কল্পনা সাজাতে সাজাতে শান্তি কন্যা শেখ হাসিনা আবারো মুখোমুখি হলেন ছন্দপতনের।

২০০১ ও তৎপরবর্তী সময়ে দলের হাজার নেতাকর্মীরা নিপীড়িত দিশেহারা অবস্থা, তখন আবার আঘাত হানলো কুট কুশীলব।অনেক অনেক বারের মতো আল্লাহ হত্যা চেষ্টা বৃথা করে দিয়ে বাঁচিয়ে রাখলেন তাকে তবে গ্রেনেড হামলায় নিহত হলো অনেক প্রাণ। অকুতোভয় দেশরত্ন শেখ হাসিনা উদ্যম না হারিয়ে ছিয়ানব্বইয়ের অবরোধ আন্দোলন-সংগ্রামের মত আবার দলের সকল নেতাকর্মীদের সংগঠিত করে অপশাসকদের হটানোর যুদ্ধ শুরু করলে, এল ওয়ান ইলেভেন নামক রাজনৈতিক দুপুর। শুরু হলো এবার বন্দিত্বের জীবন

সময়ের কষ্টিপাথরের ছোঁয়ায় দেশরত্ন আরও বিকশিত ছন্দে মুক্তি পেলেন, এ দেশের মানুষ ভুল করেনি রাষ্ট্রের দায়িত্ব আবার তুলে দিলেন বঙ্গবন্ধু কন্যার হাতে।বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়ে তোলার নিমিত্তে। ২০০৯ শুরু, দেশের ভিতরেই বিরোধীরা, বহিঃরাষ্ট্রের বাংলাদেশ নামক রাষ্ট্রের বিরোধীরা, আরো অনেক সীমাবদ্ধতা সব কিছুকে ভ্রুকুচি করে করে উন্নয়নের ভাগ্য চাকার গতি আনলেন দেশবাসীর কল্যাণে। তাই এগিয়ে যাচ্ছে দুর্বার গতিতে আজকের বাংলাদেশ। নিজেকে বিলিয়ে দিলেন লক্ষ কোটি মানুষের দুঃখ-কষ্ট গাথা ঘোছাতে। কোটি প্রাণে আনন্দ ছোঁয়া ও মুখে হাসি ফোটাতে তাই আজ রাষ্ট্র সীমা পেরিয়ে বিশ্ব দরবারেও অনন্য হাসিনা।

আজকের ঠিক এই সময়ে কোটি কোটি মানুষের আস্থা ও নির্ভরতার নাম শেখ হাসিনা। আমাদের এক প্রজন্ম বলে আপা, তিনি আমাদের নেত্রী। বাংলার ললাটের ভাগ্য তিলক মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বঙ্গকন্যা, শান্তি কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা।

এই অবস্থায় অনন্য হাসিনা” ও এই সময় প্রগতিশীলদের করণীয়, শীর্ষক আলোচনা আসলেই খুব বেশি প্রাসঙ্গিক। দেশের মানুষের সার্বিক কল্যাণ ও বিশ্ব দরবারে দেশ জাতির সম্মান অর্জন এ বিশাল প্রভাব যার সে তো বিরল, সে তো অনন্য।অনন্য তিনি মেধা-মনন মানবিকতা সাহসিকতা ও চারিত্রিক পরিচ্ছন্ন দৃঢ়তায়। আমরা তার সুস্থতা ও দীর্ঘায়ু কামনা করছি। সামনে নির্বাচন এ সময় প্রগতিশীলদের কি করণীয় এটা আজ লক্ষ কোটি টাকার প্রশ্ন নয়, এটা আজ এ জাতির ভবিষ্যৎ এর প্রশ্ন।

প্রকৃত প্রগতিশীলদের রাষ্ট্রবিরোধী এবং বাংলাদেশ নামক রাষ্ট্রের উন্নয়ন প্রক্রিয়া নস্যাৎ প্রকল্পে নিয়োজিত বিভিন্ন শ্রেণীর রাষ্ট্রের অভ্যন্তরে ও রাষ্ট্রের বাহিরের শক্তির মোকাবেলা করতে হবে যার যার অবস্থান থেকে, যার যার সামর্থ্য মত ,দেশের সর্বস্তরের জনগণকে এই সত্য পৌঁছে দিতে হবে এবং বুঝাতে হবে যে বাংলাদেশ নামক রাষ্ট্রের ভবিষ্যৎ এবং উন্নয়ন প্রক্রিয়া অব্যাহত রাখার জন্য জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কে নৌকায় ভোট দেওয়া অতীব জরুরী।সেই লক্ষ্যে রাষ্ট্রবিরোধী বিএনপি-জামাত জোট তথা স্বাধীনতাবিরোধী চক্রের সকল চক্রান্ত নস্যাৎ করে দিতে হবে। ডিজিটাল মিডিয়ায় সকল অপপ্রচারের জবাব দিতে হবে খুব সুন্দর ভাবে যুক্তি ও তথ্য দিয়ে, আর মাঠের সাংগঠনিক রাজনীতিতে সাংগঠনিক প্রক্রিয়ায় বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ তো রাজপথে আছে,থাকবে। সকলকে থাকতে হবে ঐক্যবদ্ধ এবং নির্বাচন ঘনিয়ে আসার পূর্বে প্রত্যেককে নির্বাচন প্রক্রিয়ায় সহযোগী হয়ে উঠতে হবে, প্রগতিমনাদের যারা অনেকে অভিমান এবং ও অতৃপ্তি বোধ নিয়ে আছেন তাদেরকে সহমর্মিতা দিয়ে কাছে টানতে হবে এবং নিজেদের ভুল ত্রুটিগুলো স্বীকার করে নিতে হবে। জনগণের কাছে যেতে হবে, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের নির্বাচন মেনিফেস্টো মানুষের সামনে তুলে ধরতে হবে। জননেত্রী শেখ হাসিনার উন্নত বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্নের কথা মানুষের কাছে তুলে ধরতে হবে, যেটা এক সময় অসম্ভব অবাস্তব মনে হলেও এখন পুরোটাই যৌক্তিক। সকল প্রকার বিভেদ আপাতত ভুলে নৌকার বিজয় ছিনিয়ে আনতে হবে, কারো কোন প্রকার অবহেলা বা ভুল এই সময় কাম্য নয়।

লেখকঃ সাবেক ছাত্রনেতা। 

SHARE