অবাধ্য সন্তানের লাশ গ্রহন করবেনা বাবা। মেরে ফেলার কারন জানতে চাইলেন আসিফ নজরুল।

6313

॥দেশরিভিউ।। আজগর আলী।।

অবাধ্য ছেলের লাশ দাফনের জন্য গ্রহন করবেন না বলে গনমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন বিমান জিম্মি চেষ্টায় নিহত যুবকের বাবা। অন্যদিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিএনপিপন্থী শিক্ষক আসিফ নজরুল নিজের ফেসবুকে কমান্ডো অভিযান নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন। এ সংক্রান্তে নিজের ফেসবুকে আসিফ নজরুল লিখেছেন “ছিনতাকারীকে ধরার পর তাকে মেরে ফেলা হলো কেন?”

পরিচয় জানার পর বিমান জিম্মিচেষ্টায় জড়িত  পলাশ মাহমুদের বাড়িতে আজ উপস্থিত সাংবাদিকদের তার বাবা পিয়ার জাহান সর্দার বলেন, তিনি ছেলের লাশ আনবেন না। এমনকি দাফনও করবেন না। সোমবার দুপুরে নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁও উপজেলার পিরিজপুরের দুধঘাটা গ্রামের নিজ বাড়িতে সাংবাদিকদের কাছে পিয়ার জাহান বলেন, অবাধ্য ছেলের লাশ আনব না। দাফনও করব না। ও সারা জীবন আমাদের জ্বালিয়েছে। মরে গিয়েও আমাদের সবার কাছে ছোট করে গেল।’

অন্যদিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিএনপিপন্থী শিক্ষক আসিফ নজরুল কমান্ডো অভিযান নিয়ে প্রশ্ন তুলে নিজের ফেসবুকে লিখেছেন “ছিনতাকারীকে ধরার পর তাকে মেরে ফেলা হলো কেন? কিভাবে সে ঢুকেছিল অস্রহাতে বিমানে-এটা এখন জানবে কেমন করে পুলিশ?”

যদিও অভিযানের বর্ণনা দিয়ে গতকাল মেজর জেনারেল মতিউর বলেছিলেন, “শুরুতে আমরা ছিনতাইকারীকে নিবৃত্ত করার চেষ্টা করি। পরে সে আক্রমণাত্মক থাকায় স্বাভাবিক নিয়মে অভিযান চালানো হয়। এতে সে শুরুতে আহত হয়। পরে নিহত হয়েছে বলে জানতে পেরেছি। বিমানের মধ্যে তার সাথে আমাদের অ্যাকশন হয়েছে, পরে সে বাইরে নিহত হয়েছে।”

উল্লেখ্য, গতকাল কমান্ডো অভিযানে বিমান ছিনতাইয়ের চেষ্টায় পলাশ মাহমুদ  নিহত হন। সে সময়ে টিকিটে তার নাম মো. মাজিদুল বলে প্রাথমিকভাবে জানানো হয়েছিল। পরে জানানো হয় নিহতের নাম মাহাদী। আর সোমবার র‍্যাব জানায়, কথিত মাহাদী তাদের তালিকাভুক্ত অপরাধী পলাশ আহমেদ।

SHARE