অর্থের বিরোধে আওয়ামী লীগ নেতাকে মিথ্যা ধর্ষণ মামলায় ফাঁসালেন চার বিএনপি নেতা!

133
সংবাদ সম্মেলনে তমিজ উদ্দিন নয়নের স্ত্রী ও দুই সম্তান।

সোনাগাজি প্রতিনিধি, দেশরিভিউ:

সোনাগাজীতে আর্থিক লেনদেনের বিরোধের জেরে ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ নেতা তমিজ উদ্দিন নয়নকে মিথ্যা ধর্ষণ মামলায়ফাঁসিয়ে দিয়েছে স্থানীয় চার বিএনপি নেতা। এমন অভিযোগ তুলেছে ধর্ষণ মামলাতে গ্রেফতার হওয়া তমিজ উদ্দিন নয়নেরপরিবার সহ স্থানীয়রা। স্থানীয় চার বিএনপি নেতা বখতিয়ার চৌধুরী, আলা উদ্দিন, নুর আলম এমরান চৌধুরী মিথ্যামামলায় তমিজ উদ্দিন নয়নকে ফাঁসানোর চক্রান্তে কাজ করেছেন এমন অভিযোগ এনে উক্ত ঘটনার সুষ্ঠ তদন্ত বিচার দাবীকরেছেন এলাকাবাসী।

আর্থিক লেনদেনের বিরোধে আওয়ামী লীগ নেতা তমিজ উদ্দিন নয়নকে ধর্ষন মামলায় ফাঁসানোর বিষয়টি স্বীকার করেছেনস্থানীয় বিএনপি নেতা সাবেক ইউপি সদস্য আলি আহম্মদও। বিষয়ে তিনি দেশরিভিউকে বলেন, এলাকার অনেকে জানেসালিশ মিমাংসার নামে আওয়ামী লীগ নেতা নয়নের কাছে টাকা চাওয়া হয়েছে। তবে কারা টাকা চেয়েছে তাদের নাম বলতেতিনি অপারগতা প্রকাশ করেন।

এদিকে মিথ্যা ধর্ষণ মামলায় তমিজ উদ্দিন নয়ণকে ফাঁসানোর ঘটনায় চার বিএনপি নেতার শাস্তি দাবী করে সংবাদ সম্মেলনেদাবী করেছে নয়নের পরিবারের সদস্যরা। রবিবার সন্ধ্যায় তমিজ উদ্দিন নয়নের পরিবার তাদের নিজ বাড়ীতে আয়োজিতসংবাদ সম্মেলনে দাবী করেন।

সংবাদ সম্মেলনে নয়নের মাদ্রাসায় পড়ুয়া ছেলে হাফেজ ওসমান গনি বলেন, কিশোরীর পিতা মোশারফ তাদের দোকানে কাজকরতেন। গত তিন মাস পূর্বে সে তার পিতার কাছ থেকে ত্রিশ হাজার টাকা ঋন নেন। দুই মাস পর তার পিতা টাকা ফেরত চাইলেমোশারফ টাকা ফেরত দিতে অস্বীকার করলে তাদের  মধ্যে তর্ক বিতর্ক হয়। পরে সে স্থানীয় বিএনপি নেতা বখতিয়ার চৌধুরী, আলা উদ্দিন, নুর আলম এমরান চৌধুরীর কাছে গিয়ে তমিজ উদ্দিন নয়নকে ম্যানেজ করার জন্য অনুরোধ করেন। তমিজউদ্দিন নয়নের সন্তান হাফেজ ওসমান গনি সংবাদ সম্মেলনে বলেন, পরদিন চার বিএনপি নেতা তার পিতার কাছে গিয়ে টাকাপাওয়ার ঘটনার বিষয়ে জানতে চাইলে তাদের মধ্যে উত্তপ্ত বাক্য বিনিময় হয়। এর কয়েকদিন পর

গত ২৫ সেপ্টেম্বর কিশোরীর পিতা, এমরান চৌধুরী, বখতিয়ার, নুর আলম,আলা উদ্দিন তার পিতার কাছে গিয়ে ধর্ষনের কথাবলে টাকা দাবী করেন। এসময় তাকে মামলায় ফাঁসিয়ে দেওয়ার হুমকি দিলে মানসম্মানের ভয়ে তার পিতা তাদেরকে বিশ হাজারটাকা প্রদান করেন। পরে ঘটনাটি আপোষের কথা বলে তারা আরও সত্তর হাজার টাকা দাবী করলে টাকা দিতে অস্বীকার করায়মিথ্যা ধর্ষণ মামলায় ফাঁসিয়ে দেয়।

সংবাদ সম্মেলনে হাফেজ ওসমান গনি আরো বলেন,তার দাদা মরহুম সৈয়দ আহমদ বীর মুক্তিযোদ্ধা। তাদের পরিবারের সুনামক্ষুন্ন করতে তার পিতাকে মিথ্যা ধর্ষণ মামলায় আসামী করা হয়েছে।তার পিতা তমিজ উদ্দিন নয়ন নির্দোষ। মেয়েটির ডাক্তারীপরীক্ষা করালে তার পিতা যে ধর্ষণ করেনি সেটা প্রমানিত হবে।

এদিকে অনুসন্ধানে নেমে স্থানীয় বাসিন্দাদের কাছে ঘটনার বিষয়ে জানতে চাইলে তারাও অভিন্ন সুরে কথা বলেন। স্থানীয়পলাশ, একরাম,কাজল, ভোলন সহ অনেকে বলেন, চাহিদা মতো টাকা না পেয়ে তমিজ উদ্দিন নয়নকে অন্যায়ভাবে ফাঁসানোহয়েছে। তারা প্রশ্ন রেখে বলেন, এত বড় ঘটনা ঘটলো অথচ এলাকার কেউ জানবেনা এটা কি বিশ্বাসযোগ্য হতে পারে।

অভিযোগের বিষয়ে জানতে অভিযুক্ত আলাউদ্দিন এমরান চৌধুরীর সাথে যোগাযোগ করা হলে তারা তাদের বিরুদ্ধে আনীতঅভিযোগ অস্বীকার করেন। অন্যদের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তাদের পাওয়া যায়নি।

প্রসঙ্গত, গত বৃহস্পতিবার রাতে উপজেলার মতিগঞ্জ ইউনিয়নের চুনি মাঝি বাড়ির স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা  তমিজ উদ্দিননয়নকে সপ্তম শ্রেনীতে পড়ুয়া কিশোরী ভাতিজিকে ধর্ষনের অভিযোগে পুলিশ গ্রেফতার করে। কিশোরীর মা বাদি হয়ে দায়েরকৃতমামলায় দাবী করেন তার মেয়েকে গত অক্টোবর সকালে স্কুলে যাওয়ার পথে তমিজ উদ্দিন নয়ন ধর্ষণ করে এবং ঘটনাটিকাউকে না জানাতে হুমকি ধামকি প্রদান করে। মামলা দায়েরের পর পুলিশ নয়নকে আদালতের আদেশে সাত দিনের রিমান্ডেজিজ্ঞাসাবাদ করছে।

 

 

SHARE