অস্থির পেঁয়াজের বাজারে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের স্বস্তির অভিযান

221

।দেশরিভিউ-চট্টগ্রাম।

হঠাৎ অস্থির পেঁয়াজের বাজার নিয়ন্ত্রণে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন চতুর্থ দিনের মতো বৃহস্পতিবার অভিযান পরিচালনা করেছে।

বাংলাদেশের বৃহত্তম পাইকারি বাজার খাতুনগঞ্জ ও চাক্তাইয়ে এই অভিযান পরিচালনা করেন চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মোঃ তৌহিদুল ইসলাম ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট গালিব চৌধুরী।

খাতুনগঞ্জের বক্সিরহাট ও হামিদুল্ল্যাহ মার্কেটে পেঁয়াজের ৪০ টির মতো আড়তে অভিযান পরিচালনা করা হয়। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য বড় আড়তগুলো ছিলো মেসার্স এস.এন. ট্রেডার্স, মেসার্স বাচা মিয়া ট্রেডার্স,  মেসার্স বাগদাদী ট্রেডার্স, মেসার্স নিউ শাহ আমানত শাহ ট্রেডার্স,  মেসার্স হাজী অছি উদ্দিন সওদাগর, মেসার্স শাহাদাত এন্ড ব্রাদার্স, মেসার্স গ্রামীণ  বাণিজ্যালয়, মেসার্স আবদুল মাবুদ খাঁন সওদাগর।

এছাড়াও চাক্তাইয়ের বৃহৎ আড়তগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে মেসার্স আবুল বশর এন্ড সন্স,মেসার্স শাহ আমানত স্টোর, মেসার্স আবুল কাশেম এন্ড সন্স, মেসার্স বাবু এন্ড সন্স।

অভিযান চলাকালে খাতুনগঞ্জ ও চাক্তাইয়ের প্রতিটি পেঁয়াজের আড়তেই ব্যবসায়ীদের মূল্য তালিকা প্রদর্শন করতে দেখা গেছে। আড়তগুলোতে প্রদর্শিত মূল্য তালিকা এবং আড়তের বিগত ১ অক্টোবর থেকে আজ ৩ অক্টোবর পর্যন্ত বিক্রয় রশিদ বই সমূহ নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ তৌহিদুল ইসলাম পর্যবেক্ষণ করেন।

এতে দেখা যায়, মিয়ানমার থেকে যেসব পেয়াজ কেজি প্রতি ৪২ টাকা দরে আমদানি হচ্ছে সেই পেঁয়াজ মানগুণ ভেদে বিক্রি হচ্ছে কেজি প্রতি ৫০-৫৫-৫৮-৬০ টাকায়। মিয়ানমার থেকে আমদানিকৃত পেয়াজের মধ্যে যেগুলো নিম্নমানের সে পেয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৩৫ টাকা কেজি দরে। ভারত থেকে আমদানিকৃত পেয়াজ মানগুণ ভেদে কেজিপ্রতি  ৬০-৬৫ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। দেশিজাতের পেয়াজ ৭০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

অভিযানে জানা গেছে, আড়তগুলোতে পর্যাপ্ত পরিমাণে পেয়াজ মজুদ আছে। প্রায় প্রতিটি আড়তেই ধারণক্ষমতার সমান এমনকি অধিক পরিমাণ পেয়াজ মজুদ আছে। অভিযানের সময় খাতুনগঞ্জ ও চাক্তাইয়ের ব্যবসায়ী প্রতিনিধিগণ উপস্থিত ছিলেন। বাজারে পর্যাপ্ত পেয়াজ মজুদ থাকায় এবং জেলা প্রশাসনের অব্যাহত মনিটরিং এ কেজিপ্রতি পেয়াজের মূল্য গত ৩০শে সেপ্টেম্বর হঠাৎ করে বেড়ে উঠা মূল্যের তুলনায় ৩০-৩৫ টাকা করে কমেছে। চট্টগ্রামের পাইকারি বাজারগুলো জেলা প্রশাসন, চট্টগ্রামের বাজার মনিটরিং টিমের পাশাপাশি গোয়েন্দা নজরদারিতে আছে বলে ব্যবসায়ীদের সতর্ক করা হয়েছে। বাজার মনিটরিং এর অভিযান চলাকালীন সময়ের বাইরে অন্য সময়ে কোন কমিশন এজেন্ট বা আড়তদার যদি পেয়াজের পর্যাপ্ত থাকা সত্ত্বেও যদি স্বাভাবিক মূল্যের চাইতে চড়াদামে পেয়াজ বিক্রি করে তাহলে কঠোর আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জেলা প্রশাসন চট্টগ্রামের ভ্রাম্যমাণ আদালত ব্যবসায়ীদের সতর্ক করেন।

এ বিষয়ে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ তৌহিদুল ইসলাম বলেন, আড়তদাররা যেন মূল আমদানিকারকদের পেয়াজ আমদানির ইনভয়েস এর কাগজপত্র (কাস্টমস ক্লিয়ারেন্স এর ডকুমেন্ট) রাখেন এ ব্যাপারে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এর মাধ্যমে আমদানি মূল্য, পাইকারি মূল্য ও খুচরা বাজার মূল্যের যৌক্তিকতা যাচাই-বাছাই করা হবে।

জেলা প্রশাসনসূত্রে জানা গেছে, চট্টগ্রাম মহানগর ছাড়াও চট্টগ্রামের প্রতিটি উপজেলায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার এবং সহকারী কমিশনার (ভূমি) গণ বাজার মনিটরিং করছেন। সেখানের পাইকারি ও খুচরা বাজারে অতিরিক্ত দাম রাখার অপরাধে ইতোমধ্যে অসাধু ব্যবসায়ীদের কয়েক লক্ষ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

SHARE