আগামীদিনের ডাকসু রাজনৈতিক নয়,হবে শিক্ষার্থীদের অধিকার আদায়ের প্ল্যাটফর্ম-সাদ্দাম হোসেন

90

ডাকসু নির্বাচন নিয়ে আদালতের নির্দেশনার পর সরগরম হয়ে উঠেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। নির্বাচন অনুষ্ঠিত করতে নড়েচড়ে বসেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনও।সব ছাত্রসংগঠনের অংশগ্রহণে একটি অংশগ্রহণ মূলক নির্বাচন চায় ক্ষমতাসীন দলের ছাত্রসংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগ। বৃহস্পতিবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে ক্রীয়াশীল সকল ছাত্রসংগঠনকে সাথে নিয়ে ডাকসুর গঠনতন্ত্র কমিটির সাথে দ্বিতীয় দফায় আলোচনায় বসেছিলো ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি সঞ্জিত চন্দ্র দাস এবং সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন ডাকসু গঠনতন্ত্র কমিটির নিকট ডাকসু নিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের চিন্তাভাবনার কথা তুলে ধরেছেন।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন বলেন আগামীদিনের ডাকসু রাজনৈতিক অর্জনের প্ল্যাটফর্ম হবে না,আগামীদিনের ডাকসু হবে সাধারণ শিক্ষার্থীদের অধিকার আদায়ের প্ল্যাটফর্ম।

বৈঠকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক বলেন ডাকসুর রাজনৈতিক ঐতিহ্য নিয়ে ছাত্রলীগ গর্ব অনুভব করে।একুশ শতকের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় ডাকসুকে নতুন দিনের একাডেমিক ঐতিহ্য বিনির্মাণে দায়বদ্ধ থাকার আহবান জানান তারা।

নিয়মিত ডাকসু নির্বাচন অনুষ্ঠিত করাটাকেই সবচেয়ে বড় বিজয় উল্লেখ করে তারা বলেন নির্বাচনে জয়ী হওয়াটা আমাদের কাছে মুখ্য বিষয় নয়।শিক্ষার্থীদের ভোটাধিকার নিশ্চিত হবে ডাকসু নির্বাচনের মাধ্যমে।
এসময় গঠনতন্ত্র কমিটির কাছে ডাকসুতে “মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক ও তথ্য প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক” এই দুইটি পদ যুক্ত করার দাবি জানায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ।বিশ্ববিদ্যালয়ে মেয়েদের আনুপাতিক হারে ডাকসুর কাঠামোর মধ্যে সম্পৃক্ত করার আইনগত বাধ্যবাধকতা তৈরির পাশাপাশি ডাকসুতে মৌলবাদী ও স্বাধীনতাবিরোধী ছাত্রসংগঠনগুলোকে নিষিদ্ধ করার দাবি জানিয়েছে ছাত্রলীগ।

শিক্ষার্থীদের আবাসন সংকট,বিশ্ববিদ্যালয়ের আমলাতান্ত্রিকতা বাদ দিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়কে অটোমেশন এর আওতায় আনা, লাইব্রেরি অত্যাধুনিকিকরণ, যৌক্তিক মূল্যে মানসম্মত খাবার নিশ্চিতকরণ সহ বেশ কয়েকটি শিক্ষার্থীবান্ধব ইস্যু ডাকসু গঠনতন্ত্র কমিটির কাছে তুলে ধরেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারন সম্পাদক।

SHARE