আজকের শিবির আগামী দিনের ধর্ষক সিরাজউদ্দৌলা

607

।।দেশরিভিউ।।
লেখক: মাওলানা ইয়াকুব আলী চিশতি

তারেক মনোয়ার নামটি অনেকের জানা। তাকে যারা ব্যক্তিগতভাবে চিনেন তারা তার স্বভাব সম্পর্কেও জানেন। তারেক যখন ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগে পড়তো তখন তার কক্ষে সহাবস্থানকারীরা লুঙ্গি পরিধান করেও ঘুমানোর সাহস পেত না। ঘুমের মধ্যে নিজের অজান্তে বলৎকার করে এমন বাহানা দেয়ার পর তৎকালীন ছাত্রদল নেতারা তার ব্যাগ তল্লাশি করে বিশেষ ধরণের পিচ্ছিল তেল ও তিব্বত পমেটের সন্ধান পায়। অতঃপর গণধোলাই দিয়ে তারেক মনোয়ারকে হল থেকে বাহির করে দেয়া হয়।

দেলোয়ার হোসেন সাঈদীর নারীদের সঙ্গে নষ্টামি করার বেশকিছু অডিও রেকর্ড রয়েছে। তার বিরুদ্ধেও শর্ষিনা মাদ্রাসার শিশুদের বলৎকার করার অভিযোগ ছিল। আবার তারেক মনোয়ারের চেহারার সঙ্গে সাঈদীর চেহারা মিল থাকা নিয়ে নোয়াখালীতে কিছু গুঞ্জন রয়েছে।

তারেকের বলৎকারের শিকারদের মধ্যে মোল্লা নাজিম অন্যতম। অথচ যৌবনে পদার্পণের পর নাজিমও শিশুদের বলৎকার করা শুরু করে।

জামায়াত নেতা কামাল উদ্দিন জাফরী কর্তৃক পিএসের স্ত্রী ভাগিয়ে নেয়ার ঘটনা অনেক পত্রিকায় এসেছে। ৭১ সালে গোলাম আযম, নিজামী, মুজাহিদরা কি করেছে সেই প্রসঙ্গে নাইবা গেলাম।

এখন প্রশ্ন হচ্ছে এই ধরণের লম্পট লুইচ্চা বদমাশরা যদি নিজেকে আলেম দাবি করে তাহলে জাতি কি পাবে?
খবরে দেখেছি গজবের ভয় দেখিয়েও মাদ্রাসার ছাত্র বলৎকার করা হয়েছে।

আজ আলেম সমাজ কোথায় গেছে এই প্রশ্ন করবো নাকি জেনাকারী লম্পটদের কেন আলেম হতে দেয়া হয়েছে এই প্রশ্ন করবো তা বুঝতে পারছি না।

অনুসন্ধানে জানা যায়, মওদুদী যখন ক্ষমতা দখলের উদ্দেশ্যে ইসলামকে সম্পূর্ণ বিকৃত করে নতুন মতবাদ জাহির করে, তখন পাপীদের আকৃষ্ট করার মিথ্যা বলা জায়েজ, মুতা বিবাহ বা কয়েক ঘণ্টার বিবাহ ও দাসী ভোগ জায়েজ এবং বেদাড়ি ছাত্ররা জান্নাতের গেলমান ইত্যাদি ইসলামিক বলে ঘোষণা করে। আপনারা খোঁজ নিলেই জানতে পারবেন জামায়াতের রিক্রুট হয় মূলত স্কুল তথা শিশু কিশোরদের মধ্য থেকে।
১৫ বছর পর্যন্ত বয়সীদের শিবিরের শাখাকে গেলমান শাখাও বলা হয়। নামাজ, দ্বীন কায়েম ইত্যাদি বাহানায় কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ের শিবির নেতাদের বলৎকারের শিকার হয়ে এই শিশু কিশোররা শিবির ক্যাডারে পরিণত হয়। অন্যদিকে দরিদ্র পরিবারের ছাত্রীদের অর্থের লোভ দেখিয়ে ছাত্রী সংস্থায় যুক্ত করা হয় যা পতিতাবৃত্তির জন্য সকলের কাছে পরিচিত এবং দাসির মর্যাদায় জামায়াত নেতাদের মনোরঞ্জন করাই ছাত্রী সংস্থার মূল কাজ।

যে সকল মাদ্রাসার শিক্ষকদের বিরুদ্ধে বলৎকারের অভিযোগ রয়েছে তাদের অতীত পর্যালোচনা করলে দেখা যাবে তারা সকলেই কোনো না কোনোভাবে জামায়াতের সঙ্গে জড়িত।

জামায়াত নেতা সিরাজউদ্দৌলা কর্তৃক ফেনীর মাদ্রাসা ছাত্রী নুসরাতকে কুপ্রস্তাব দেয়া এবং এর প্রেক্ষিতে আগুন দিয়ে জ্বালিয়ে দেয়ার ঘটনা ঘটেছে। ইসলামে আগুনে জ্বালিয়ে কাউকে হত্যা করার অনুমতি না থাকলেও আমরা দেখেছি জামায়াত শিবিরের ক্যাডাররা আন্দোলনের নামে অগণিত মানুষ পুড়িয়ে মেরেছে। এখন পত্রিকা খুললেই দেখা যায় ধর্ষণ ও বলৎকারের খবর। আর এই সকল কুকর্মের সঙ্গে যখন আলেম ওলামা ও মাদ্রাসার নাম যুক্ত হয় তখন নিজেকে মাদ্রাসার শিক্ষক হিসেবে পরিচয় দিতেও লজ্জাবোধ করি।

আল্লাহ তায়ালা পুরুষদের জন্য নেয়ামত স্বরূপ নারীদের তৈরি করেছেন। যৌবনে উপনীত হলে ইসলাম মুসলিমদের বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হওয়ার পরামর্শ দেয়। বিবাহের সামর্থ্য না থাকলে মন পাক পবিত্র রাখার পাশাপাশি রোজা রাখার পরামর্শও দেয়া হয়েছে। কিন্তু দুর্ভাগ্যজনক হলেও সত্যি যে মুসলিম নামধারী কিছু জালিম কওমে লুত (আ:) এর মতো শিশু কিশোরদের বলৎকারে মোকতেলা হয়।
অতএব মাদ্রাসার পবিত্রতা রক্ষার্থে জামায়াত শিবির নিষিদ্ধ করা একান্ত আবশ্যক।

SHARE