আজ দ্বীপবন্ধু আলহাজ্ব মোস্তাফিজুর রহমানের ১৮ তম মৃত্যুবার্ষিকী

120

।।দেশরিভিউ, নিউজরুম।।

আজ মুকুট বিহীন সম্রাট দ্বীপের আপামর জনসাধারণের হৃদয়ে স্থান করে নেওয়া সাবেক সাংসদ দ্বীপ বন্ধু আলহাজ্ব মোস্তাফিজুর রহমানের ১৮ তম মৃত্যুবার্ষিকী।

মানুষের আসা-যাওয়া ও পৃথিবীতে বিচরণের সময়টায় কোন কোন মানুষের যাপিত জীবনের কর্মযজ্ঞ হয়ে যায় ইতিহাস। সেই জীবন ও তার কাজ স্থান করে নেয় ইতিহাসের পাতায়। এঁদের মধ্যে আবার কিছু মানুষ আছেন যাঁরা ক্ষণজন্মা, ত্যাগী ও ব্যতিক্রমধর্মী। তেমন একজন ব্যক্তিত্ব ছিলেন দায়িত্বশীল ও দেশপ্রেমিক , বিদ্যানুরাগী, সাংবাদিক, ব্যাংকার এবং সমাজসেবক সন্দ্বীপের প্রয়াত সাংসদ দ্বীপবন্ধু আলহাজ্ব মুস্তাফিজুর রহমান । রাজনৈতিক পরিমন্ডলে থেকেও মন ও মননে তিনি ছিলেন একজন শুদ্ধ ও আলোকিত মানুষ। ব্যক্তিগত এবং কর্মজীবনে তিনি যেমন নিজ গুণে আলোকচ্ছটার বিচ্ছূরণ করেছেন, তেমনি যোগ্য উত্তরাধিকার তৈরি করে সমাজ ও রাষ্ট্রের প্রভূত উপকার করে গেছেন । রাজনীতির পাশাপাশি সমাজ সংস্কারেও তার ভূমিকা ছিল অপরিসীম।

মুস্তাফিজুর রহমান একজন আলোকিত মানুষ ছিলেন। একজন সৎ ও সাহসী জনপ্রতিনিধি হিসেবে তিনি সবার কাছে শ্রদ্ধার মানুষ ছিলেন। সন্দ্বীপের মানুষ এখনো তাঁকে ধর্ম, বর্ণ নির্বিশেষে সকল মানুষ শ্রদ্ধা-ভালোবাসায় স্মরণ করে।

শিক্ষা ছাড়া কোন জনপদের উন্নয়ন হতে পারেনা। তিনি অনগ্রসর জনপদে অসংখ্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠা করে শিক্ষা ক্ষেত্রে কালোত্তীর্ণ অবদান রেখে গেছেন। তিনি নিজস্ব অর্থায়নে প্রতিষ্ঠিতা করেন মুস্তাফিজুর রহমান ডিগ্রী কলেজ, দ্বীপবন্ধু মুস্তাফিজুর রহমান উচ্চ বিদ্যালয় , লায়ন মুস্তাফিজুর রহমান প্রাথমিক বিদ্যালয়, দ্বীপবন্ধু প্রাথমিক বিদ্যালয়, পূর্ব মুছাপুর মুস্তাফিজুর রহমান প্রাথমিক বিদ্যালয়, দ্বীপবন্ধু মুস্তাফিজুর রহমান, উত্তর পশ্চিম কালাপানিয়া দ্বীপবন্ধু মুস্তাফিজুর রহমান প্রাথমিক বিদ্যালয়, আলহাজ্ব মুস্তাফিজুর রহমান প্রাথমিক বিদ্যালয় ও ৪ টি নীড বাংলাদেশ প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করেন। এছাড়া ৩৯ টি বেসরকারী রেজিষ্ট্রার্ড প্রাথমিক বিদ্যালয় দ্বি-তল ভবন নির্মাণ, ১১টি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দ্বি-তল ভবন নির্মাণ, ৭টি উচ্চ বিদ্যালয়ে নতুন ভবন নির্মাণ, ২টি কলেজে নতুন ভবন নির্মাণ, ৪টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সৌদি সাইক্লোন সেন্টার নির্মাণ, ৪টি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে জাপানী সাইক্লোন সেন্টার নির্মাণ, ২টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে জাপানী সাইক্লোণ সেন্টার নির্মাণ।

জীবদ্দশায় সমাজ কল্যানে ব্যাপক ভূমিকা রাখার জন্য তিনি বহু পুরষ্কারে ভূষিত হয়েছেন। এর মধ্যে কেন্দ্রীয় হোমিওপ্যথিক মেডিকেল এসোসিয়েশন জাতীয় ক্ষেত্রে বিশেষ অবদানের জন্য মুস্তাফিজুর রহমানকে ১৯৮৮ সালে শ্রেষ্ঠ ব্যক্তিত্ব হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে। জীবনে তিনি আরো এ ধরনের অসংখ্য পুরস্কার পেয়েছেন সেই তুলনায় সবচেয়ে বড় প্রাপ্তি জীবদ্দশায় এবং মৃত্যুর পরও সন্দ্বীপের মানুষের ভালোবাসায় সিক্ত হৃদয় দিয়ে লেখা ‘দ্বীপবন্ধু’ অভিধাটি।

প্রিয় এই মানুষটি গত ২০০১ সালের ২০ অক্টোবর সিঙ্গাপুরের মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে ইন্তেকাল করেন।

SHARE