আজ ৭ নভেম্বর ‘মুক্তিযোদ্ধা সৈনিক হত্যা দিবস’

133

।।দেশরিভিউ নিউজ।।
৭ নভেম্বর আজ। ইতিহাসের আরো একটি কালো দিন। আজ মুক্তিযোদ্ধা সৈনিক হত্যা দিবস। তথাকথিত সিপাহী বিপ্লবের নামে ১৯৭৫ সালের এদিনে শুরু হয় জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান মুক্তিযোদ্ধা সেনা সদস্যদের হত্যার ধারাবাহিক প্রক্রিয়া।

১৯৭৫ সালের পনের আগস্টের কালরাত্রিতে স্বাধীনতা বিরোধী শক্তি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যার পর জেলখানার অভ্যন্তরে ৩ নভেম্বর জাতীয় চার নেতাকে নির্মমভাবে হত্যা করে। এই হত্যাকাণ্ডের দায়ে তৎকালিন আর্মি চিফ জিয়াউর রহমানকে গৃহবন্দী করেন মুক্তিযোদ্ধা সেনা কর্মকর্তারা।

কিন্তু ঘাতক বাহিনী জিয়াউর রহমানকে মুক্ত করার নামে এর চারদিন পরই ১৯৭৫ সালের ৭ নভেম্বর থেকে শুরু করে দেশের বীর মুক্তিযোদ্ধা সেনা অফিসার-সদস্য হত্যাকান্ডের ধারাবাহিক পক্রিয়া।

তথাকথিত সিপাহী বিপ্লবের নামে এদিন প্রথমে হত্যা করা হয় তিন খ্যাতনামা বীর সেনা অফিসার মুক্তিযোদ্ধাকে। এরা হলেন- খালেদ মোশাররফ বীর উত্তম, কে এন হুদা বীরউত্তম এবংএ এটি এম হায়দার বীরবিক্রম। দশম বেঙ্গল রেজিমেন্টের সদর দপ্তরে অবস্থানকালে এদিন সকালে তাদের খুব কাছ থেকে গুলি করে হত্যা করা হয়।

সাংবাদিক অ্যান্থনি ম্যাসকারেনহ্যাস এ ব্যাপারে তার গ্রন্থে লিখেছেন ‘এদিন উচ্ছৃংখল সেনা জওয়ানরা একজন মহিলা ডাক্তারসহ ১৩ জন সেনা কর্মকর্তাকে হত্যা করে। এমনকি একজন সেনা কর্মকর্তার স্ত্রীকেও এ সময় হত্যা করা হয়।’

বঙ্গবন্ধুর খুনি ফারুকের ল্যান্সার বাহিনীর একটি দল আগের রাতে তথাকথিত সিপাহী বিপ্লবের নামে গৃহবন্দী জিয়াউর রহমানকে মুক্ত করে আনতে যায়। ৭ নভেম্বর সকালে মুক্তি পেয়েই জিয়াউর রহমান সদ্য নিযুক্ত রাষ্ট্রপতি বিচারপতি আবু সাদাত মোহামস্মদ সায়েমের অনুমতি ব্যতিরেকে বেতারে ভাষণ দিতে চলে যান। ’৭১-এর ২৭ মার্চের মতোই সংক্ষিপ্ত ঘোষণা দিয়ে নিজেকে প্রধান সামরিক আইন প্রশাসক হিসেবে দাবি করেন। পরে অবশ্য পদবী বদলিয়ে উপ-প্রধান সামরিক আইন প্রশাসক হয়েছিলেন জিয়াউর রহমান।

মুক্তিযোদ্ধা বীর সৈনিকদের হত্যাকে আড়াল করতে দিবসটিকে তথাকথিত সিপাহী বিপ্লব নামকরন করা হয়। এরপর জিয়াউর রহমান সংবিধানকে ক্ষতবিক্ষত করে পরবর্তী সময়ে গণভোট (হ্যাঁ-ভোট ও না-ভোট), প্রেসিডেন্ট নির্বাচন, স্থানীয় পরিষদ নির্বাচন এবং পার্লামেন্ট নির্বাচন দিয়ে নিজেকে প্রেসিডেন্ট হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করলেও তার আমলে ২০টির বেশী সেনা অভ্যুত্থথান হয়েছিল বলে বিভিন্ন তথ্যে পাওয়া যায়। জিয়াউর রহমানের নির্দেশে এসব অভুত্থানের দায়ে দেশের হাজার হাজার মুক্তিযোদ্ধা সেনা সদস্যকে হত্যা করার তথ্য বিভিন্ন সময়ের রেকর্ডে সংরক্ষিত রয়েছে।

SHARE