আদালতে মুরাদের জবানবন্দি: সুদিপ্ত হত্যার নির্দেশদাতা দিদারুল আলম মাসুম

536
ছাত্রলীগ নেতা সুদিপ্ত বিশ্বাস হত্যার নির্দেশদাতা দিদারুল আলম মাসুম (লাল গোলাকার চিহ্ন)

।।দেশরিভিউ চট্টগ্রাম।।
চট্টগ্রামে মহানগর ছাত্রলীগের সহ-সম্পাদক সুদীপ্ত বিশ্বাসকে পিটিয়ে হত্যার ঘটনায় আটক যুবলীগ কর্মী মো. মুরাদ গতকাল বুধবার সন্ধ্যায় চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আবু সালেহ মোহাম্মদ নোমানের আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন।

আদালতে দেয়া জবানবন্দিতে এ হত্যা মামলার অন্যতম আসামী মুরাদ বলেন, লালখান বাজার ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক দিদারুল আলম মাসুমের নির্দেশে সেদিন নগরীর নালাপাড়ায় দলবল নিয়ে যান তারা। পরে সুদীপ্তকে বাসা থেকে ডেকে বের করে আনে মুরাদ নিজেই। পরে বাসার সামনে এনে পূর্বপরিকল্পিত ভাবে পিটিয়ে হত্যা করা হয় ছাত্রলীগ নেতা সুদিপ্ত বিশ্বাসকে।

আলোচিত এ হত্যা মামলায় আসামি মুরাদসহ চার আসামি এখন পর্যন্ত জবানবন্দি দিয়েছে। মামলাটির তদন্তকারী সংস্থা পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) দুই দিনের রিমান্ড শেষে বুধবার মুরাদকে আদালতে হাজির করে। এর আগে গত রবিবার নগরীর ওয়াসা মোড়ের সামনে থেকে মুরাদকে গ্রেপ্তার করে পিবিআই।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পিবিআই চট্টগ্রামের ইন্সপেক্টর সন্তোষ কুমার চাকমা গণমাধ্যমকে জানান, মুরাদের জবানবন্দিতে পাওয়া তথ্যগুলো যাচাই-বাছাই করা হচ্ছে। জড়িত পলাতক বাকি আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

প্রসংগত ২০১৭ সালের ৬ অক্টোবর ভোরে চট্টগ্রাম নগরের সদরঘাট থানাধীন নালাপাড়ার বাসায় হানা দিয়ে সুদীপ্তকে ঘুম থেকে তুলে টেনেহিঁচড়ে ঘরের বাইরে নিয়ে আসে সন্ত্রাসীরা। এরপর তাঁকে সন্ত্রাসীরা বেদম পেটায়। পরে চট্টগ্রাম মেডিকেল হাসপাতালে নেওয়া হলে সুদীপ্তকে মৃত ঘোষণা করা হয়। এ ঘটনায় সুদিপ্তের পিতা মেঘনাথ বিশ্বাস বাদী হয়ে অজ্ঞাতপরিচয় সাত-আটজনকে আসামি করে মামলা করেন। পরে আদালতের নির্দেশে গত বছরের ফেব্রুয়ারিতে মামলাটি তদন্তের জন্য পিবিআই-এর কাছে হস্তান্তর করা হয়।

ছাত্রলীগ নেতা সুদিপ্ত হত্যাকাণ্ডের পর থেকে চট্টগ্রাম নগর আওয়ামী লীগের বিবেধমান দুই গ্রুপের মধ্যেই উত্তেজনা সৃষ্টি হয়। প্রয়াত মেয়র এ বি এম মহিউদ্দিন চৌধুরীর অনুসারী হিসাবে পরিচিত ছাত্রলীগ নেতা সুদিপ্তের হত্যাকাণ্ডের জন্য শুরু থেকে সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিনের অনুসারী ও লালখান বাজার ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ নেতা দিদারুল আলম মাসুমকে দায়ী করে আসছিল সুদিপ্তের রাজনৈতিক পক্ষের লোকজন।

SHARE