আমের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি ঘূর্ণিঝড় আম্ফানে; লোকসানের শংকা আম চাষীদের

97


।।দেশরিভিউ সংবাদ।।
ঘুর্ণিঝড় আম্ফানের প্রভাব সারা দেশে আমবাগানের ব্যাপক ক্ষতিসাধন রয়েছে। বুধবার দিবাগত রাতে আম্ফানের তান্ডবে দেশের বিভিন্ন স্থানে ঝড় ও দমকা হাওয়ায় প্রচুর আম বাগান নষ্ট হওয়ার খবর এসেছে। এর ফলে চলতি মৌসুমে আম চাষীদের গুনতে হবে বিরাট লোকসান।

দেশের বিভিন্নস্থান থেকে দেশরিভিউ প্রতিনিধিদের পাঠানোর খবরে এ তথ্য নিশ্চিত হওয়া গেছে।

নওগাঁ জেলা প্রতিনিধি সূত্রে, জেলার বদলগাছী উপজেলায় অবস্থিত আবহাওয়া অফিস সূত্রে জানা গেছে, রাতে যে ঝড়ো হাওয়ার সাথে বৃষ্টিপাত হয়েছে তা ঘুর্ণিঝড় আম্ফানেরই প্রভাব। এই ঘুর্ণিঝড়ের তোড়ে সাপাহার ও পোরশায় বাগানে বাগানে প্রচুর আম ঝরে পড়ায় ভোর হতে প্রতিটি বাগানে সাধারণ মানুষকে আম কুড়াতে দেখা গেছে।

সাপাহার উপজেলার আমচাষী তছলিম উদ্দীন, মুমিনুল হক, দেলোয়ার হোসেন, শহজাহান আলী সহ অনেক আমচাষী জানান, আজ থেকে প্রায় ১৫ দিন পূর্বে কালবৈশাখীর তা-বে আমাদের এলাকায় আমের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছিল। সে ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে না উঠতেই ঘুর্ণিঝড় আম্ফান আবারো এই এলাকায় আঘাত হানল। আম্ফানের এই আঘাতে প্রতিটি বাগানে প্রায় ৩০ শতাংশ আম মাটিতে পড়ে গেছে। বর্তমানে বাগানে এখন শতভাগের মাত্র ৪০ ভাগের মতো আম রয়েছে।

রাজশাহী অফিস সূত্রে জানা গেছে, আমবাগানগুলোতে বৃহস্পতিবার সকালে যেন ঝরে পড়া আমের স্তুপ পড়ে থাকতে দেখা যায়। এতে করে এবার আমচাষিদের ব্যাপক ক্ষতি করে গেলো ঝড়ে। এর বাইরে কলা, ভুট্টা, পেঁপে ও ধানসহ অন্যান্য ফসলেরও ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে বলে জানিয়েছেন রাজশাহী অঞ্চলের চাষিরা।

রাজশাহীর পুঠিয়া, দুর্গাপুর, বাঘা, চারঘাট, পবা, বাগমারা, গোদাগাড়ী, মোহনপুর ও তানোরেও ঝড়ের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে বৃহস্পতিবার সকালে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে। সবচেয়ে বেশি ক্ষতি হয়েছে বাঘা-চারঘাট, পুঠিয়া ও দৃর্গাপুরের আমচাষিদের। এই চারটি উপজেলাতেই আমচাষ সাধারণত বেশি হয়। ফল গবেষণার সাথে জড়িতরা বলছেন, এখনো ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ নিরূপণ করা না গেলেও শতকরা ২০ থেকে ২৫ ভাগ আম নষ্ট হয়েছে। করোনার কারণে আম বাজারজাতকরণ নিয়ে চিন্তায় ছিলেন বাগান মালিকরা। এবার মরার ওপর খাড়ার ঘা।এ অবস্থায় এ বছর আমের যে লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিল তা পূরণ হবে কিনা তা নিয়ে সংশয় জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

SHARE