ইংল্যান্ডকে হারিয়ে সেমিফাইনালে অষ্ট্রেলিয়া

247

।দেশরিভিউ-স্পোর্টস।

লর্ডসে দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীর লড়াইটা একেবারেই জমলো না। হেসেখেলেই ইংল্যান্ডকে হারিয়ে দিলো অস্ট্রেলিয়া। টস জিতে আগে ফিল্ডিংয়ে নেমে বোলাররা আশা দেখাচ্ছিলেন। কিন্তু ব্যাটিংয়ের ব্যর্থতা বড় হয়েই দেখা দিল। হারতে হলো ৬৪ রানে।

এ জয়ে ৭ ম্যাচে ১২ পয়েন্ট নিয়ে সেমিফাইনাল নিশ্চিত করেছে অস্ট্রেলিয়া। বাকি দুই ম্যাচে হেরে গেলেও সমস্যা হবে না। অপরদিকে সেমির স্বপ্ন ধূসর হল ইংল্যান্ডের।
আগে ব্যাট করতে নেমে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে লড়াইয়ের পুঁজি পেয়েছিল অস্ট্রেলিয়া। অ্যারন ফিঞ্চের সেঞ্চুরিতে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৭ উইকেট হারিয়ে ২৮৬ রান তুলেছে তারা। আবার ব্যাটিংয়ে শুরুর দিকে ধারা ধরে শেষ পর্যন্ত রাখতে পারেনি অজিরা। তাই টার্গেটা ইংলিশদের নাগালের মধ্যেই ছিল। কিন্তু একের পর এক ব্যাটসম্যান ব্যার্থতার কাতারে যোগ দেন। এক বেন স্টোকসের ৮৯ রানের ইনিংসটি তাই নভৃতেই কাঁদছে। অজি বোলারদের তোপে পুরো ওভার খেলতেও পারেনি স্বাগতিকরা। ৪৪.৪ ওভারেই ২২১ রানে অলআউট হয় তারা।

এর এগে ব্যাটে নেমে দারুণ শুরু এনে দেন দুই অজি ওপেনার অ্যারন ফিঞ্চ এবং ডেভিড ওয়ার্নার। ২৩তম ওভারে গিয়ে সফলতা পান মইন আলি। ৫৩ রানে ওয়ার্নারকে ফিরিয়ে ১২৩ রানে ওপেনিং জুটি ভাঙেন মইন।

অধিনায়কের সঙ্গে অর্ধশত রানের পার্টনারশিপ গড়ে বিদায় নেন উসমান খাজা। বেন স্টোকসের বলে বোল্ড হওয়ার আগে তিনি করেন ২৩ রান। তবে একপাশ আগলে বিশ্বকাপের চলতি আসরে নিজের দ্বিতীয় সেঞ্চুরি তুলে নেন তিনি। শতক হাঁকিয়েই জোফরে আর্চারের শিকার হন ফিঞ্চ।

এরপর ছন্দপতন হয় অস্ট্রেলিয়ার। ৩৫ ওভারে ২ উইকেটে যেখানে রান ছিল ১৮৩। সেখানে অস্ট্রেলিয়ার ইনিংস শেষ হল ২৮৬ রানে। শেষ দিকে এসে ব্যাটিং বিপর্যয় না আসলে হয়তো আরো ২০/৩০ রান বেশি হতে পারতো।

১২ রানে গ্লেন ম্যাক্সওয়েল বিদায়ের পর স্টিভ স্মিথের সঙ্গে ভুল বুঝাবুঝির কারণে রান আউট হয়ে ফেরেন মার্কাস স্টইনিশ। শেষদিকে ক্রিজে সেট হয়ে যাওয়া স্মিথকে খবই দরকার ছিল অস্ট্রেলিয়ার। কিন্তু ৩৮ রানে তাকে ফেরান ক্রিস ওকস। তবে স্লগ ওভারে ২৭ বলে ৩৮ রানের ইনিংসে খেলে দলকে লড়াইয়ের পুঁজি এনে দেন অ্যালেক্স কারি।

SHARE