উচ্ছেদের আগে মানবিক দিক বিবেচনা করবে সরকার: ব্যারিস্টার নওফেল(ভিডিও)

1369

দেশরিভিউ রিপোর্ট: নগরীর পতেঙ্গায় বাস্তুহারা হওয়ার আতংকে থাকা লালদিয়ারচরবাসীকে সরকারের প্রতি বিশ্বাস রাখতে বলেছেন চট্টগ্রামের সাংসদ ও শিক্ষা উপমন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল। এসময় তিনি বলেন, সরকার যে কোন সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে অবশ্যয় মানবিক দিক চিন্তা করবে। এখানে আইনি জটিলতা রয়েছে। উচ্ছেদের তালিকা থেকে সরকারী অনেক গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা বাদ দেওয়া হয়েছে। সরকারী এসব স্থাপনা যেমন গুরুত্বপূর্ণ তেমনি আপনাদের জীবনও গুরুত্বপূর্ণ। তাই মানবিক দিক বিবেচনা করতে সরকার বাধ্য।

এসময় তিনি বলেন, আমি ইতিমধ্যে চট্টগ্রাম মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন, চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান আব্দুস সালাম এবং অত্র আসনের সাংসদ এম এ লতিফের সাথে আলাপ করেছি। তারা সবাই আমার সাথে একমত বলে জানিয়েছেন এবং আপনাদের স্বার্থের পরিপন্থী কোন সিদ্ধান্ত যাতে বাস্তবায়ন না হয় সে লক্ষ্যে আমার সাথে কাজ করবেন বলে প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। ব্যারিস্টার নওফেল বলেন, নিপীড়িত মানুষের সেবা করার জন্য জননেত্রী শেখ হাসিনাকে জনগন ভোট দিয়ে প্রধানমন্ত্রী বানিয়েছেন। আর তিনিও আজ বয়ষ্ক ভাতা, প্রতিবন্ধী ভাতা, মেয়েদের উপবৃত্তি দিয়ে সমাজে পিছিয়ে থাকা জনগনের সেবা করছেন।

উল্লেখ্য সম্প্রতি আদালতের নির্দেশনা মোতাবেক স্থানীয় প্রশাসন কর্নফুলী নদী ও তার আশপাশের এলাকায় ব্যাপক উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করে। অভিযানের ২য় দফায় পতেঙ্গার লালদিয়ারচর উচ্ছেদের ঘোষনাও আসে। কিন্তু স্থানীয় জনগনের বিক্ষোভ এবং আদালতে চলমান আইনি জটিলতার বিষয়টি সামনে চলে আসলে জেলা প্রশাসন ও লালদিয়ারচরবাসী মুখামুখি অবস্থানে চলে আসে। কয়েকদিন ধরে এ নিয়ে ব্যাপক বিক্ষোভ চলার পর আজ সোমবার দুপুরে স্থানীয় লালদিয়ারচরে উপস্থিত হয়ে ব্যারিস্টার নওফেল এসব কথা বলেন। 

জানা গেছে, স্বাধীনতার পরবর্তী সময়ে পতেঙ্গার বিশাল এলাকা রাষ্ট্রীয় গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা নির্মাণের জন্য অধিগ্রহন করে সরকার। ফলে গৃহহীন হয়ে পড়ে হাজার হাজার পরিবার। বিমানবন্দর, নৌ বাহিনী ও বিমানবাহিনীর ঘাটি সহ বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনার প্রয়োজনে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নির্দেশে লালদিয়ারচরে ক্ষতিগ্রস্ত সেই এলাকাবাসীকে থাকার নির্দেশ দেন তৎকালীন সরকার। পঁচাত্তরের ১৫ আগষ্ট জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নির্মম হত্যাকান্ডের পর দীর্ঘদিন এই চরবাসী উচ্ছেদ আতংকেও ভুগে। পরবর্তীতে আদালতে দীর্ঘ আইনি লড়াই চলার মধ্যেও বন্দর সম্প্রসারণ সহ দেশী বিদেশী টার্মিনাল নির্মাণের উদ্যোগ নিয়ে ব্যার্থ হয়েছিলো এরশাদ ও চারদলীয় জোট সরকার। বর্তমান সরকারের গত মেয়াদেও বিদেশী টার্মিনাল নির্মাণের উদ্যোগ গ্রহন করেছিলো বন্দর কর্তৃপক্ষ। কিন্তু নগর আওয়ামী লীগের প্রয়াত সভাপতি এ বি এম মহিউদ্দিন চৌধুরী সহ নগর আওয়ামী লীগের নেতাদের আপত্তির মুখে সে যাত্রায় রক্ষা পেয়েছিলো লালদিয়ারচরবাসীকে উচ্ছেদ করতে পারেনি প্রশাসন।

SHARE