উপমহাদেশের বংশীয় ধারার রাজনীতির ধারা পাল্টে ‘রাহুল গান্ধীর পদত্যাগ’

293


।।দেশরিভিউ, আন্তর্জাতিক ডেস্ক।।
পাক-ভারত উপমহাদেশে বংশীয় ধারার রাজনীতি এখনো অত্যন্ত প্রভাব রাখে। পাকিস্তানে জুলফিকার আলী ভুট্টো-বেনজির ভুট্টো, ভারতের জওয়াহেরলাল নেহরু, ইন্দিরা গান্ধী, রাজীব গান্ধী পরিবার কিংবা বাংলাদেশে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, জিয়াউর রহমান, শেখ হাসিনা, খালেদা জিয়ার পরিবারের মধ্যেই সাংগঠনিক রাজনীতির উত্তান পতন। বংশীয় ধারার এমন প্রভাব বলয়ের বাইরে অন্য কেউ দলের শীর্ষ পদে আসীন হওয়ার কথা চিন্তা করা প্রায় অসম্ভব। এমন হিসাব নিকাশের মধ্যে নিজেকে ব্যতিক্রম প্রমান করলে উপমহাদেশের প্রাচীনতম রাজনৈতিক সংগঠন ভারতীয় কংগ্রেসের সভাপতি রাহুল গান্ধী। দলের নেতাকর্মীদের অনুরোধ দূরে সরিয়ে দলের শীর্ষ পদ থেকে অব্যাহতি নিলেন।

নির্বাচনে ভরাডুবির পর থেকেই এমন আশংকা ছিলো। তা বুঝতে পেরে দলের নেতাকর্মীরা নানাভাবে অনুরোধ করেছেন। শেষ পর্যন্ত কংগ্রেস সভাপতির পদ থেকে পদত্যাগ করলেন রাহুল গান্ধী। টুইটারে পদত্যাগপত্রের ছবি দিয়ে বুধবার এক পোস্টে বিষয়টি নিশ্চিত করেন রাহুল। লোকসভা নির্বাচনের ফল প্রকাশের ৪৫ দিনের মাথায় পদত্যাগ করলেন তিনি। ওই নির্বাচনে বিপুল ব্যবধানে পরাজিত হয় কংগ্রেস।

এতদিন কংগ্রেস দলের সেবা করতে পেরে সম্মানিত বোধ করছেন বলে টুইটারে দেয়া খোলা চিঠিতে উল্লেখ করেছেন রাহুল। তিনি দেশ ও দলের কাছে কৃতজ্ঞ বলেও জানিয়েছেন। চিঠিতে আবার লোকসভা ভোটে পরাজয়ের দায় স্বীকার করেন তিনি। দলের স্বার্থের কথা ভেবেই কংগ্রেস সভাপতির পদ ছাড়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বলে জানান রাহুল। একইসঙ্গে যত দ্রুত সম্ভব কংগ্রেসকে নতুন সভাপতি নির্বাচনের কথা বললেন রাহুল। তবে এই প্রক্রিয়ায় থাকবেন না তিনি।

SHARE