উপাধ্যক্ষের ব্যক্তিগত ভাউচারে সরকারী কলেজে অর্থ আদায়ের অভিযোগ

495


।।সাজিদুল ইসলাম শোভন, নড়াইল-দেশরিভিউ।।

কালিয়া সরকারি শহীদ আবদুস সালাম ডিগ্রি কলেজের উপাধ্যক্ষ কামাল মাহমুদের বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাৎ ও বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগ পাওয়া গেছে। বিভিন্ন সময়ে কলেজের মালামাল, গাছ বিক্রি, অর্থ আত্মসাৎ, শিক্ষার্থীদের চাপ সৃষ্টি করে পরীক্ষার ফি অতিরিক্ত আদায়, শিক্ষাথীদের মারধর, পুলিশি হয়রানি সহ নান অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ এনেছে প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা। এমনকি কলেজটির নামে ছাপানো ভাউচারে উপাধ্যক্ষের ব্যক্তিগত স্বাক্ষরে চলছে অর্থ আদায়।

প্রতিকার না পেয়ে মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক বরাবরে লিখিত অভিযোগ করেছে প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা।

গত ২৬শে জুন ১০ জন শিক্ষার্থীর স্বাক্ষর সম্বলিত এ অভিযোগ পত্র মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক এর কার্যালয়ে দাখিল করা হয়েছে।
অভিযোগে জানা যায়, উপাধ্যক্ষের কামাল মাহামুদ প্রতিষ্ঠানের অনুমতি ছাড়াই নগদ অর্থ মালামাল ও গাছ বিক্রির টাকা কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়াই অবৈধভাবে আত্মসাৎ করেছে।

জানা গেছে এইস এস সি টেষ্ট পরীক্ষায় যারা এক বা একাধিক বিষয়ে অকৃতকার্য হয়েছে তাদের কাছ থেকে অতিরিক্ত নগদ টাকা গ্রহন করেছে। যারা এক বিষয়ে অকৃতকার্য হয়েছে তাদের কাছ থেকে ১ হাজার, দুই বিষয়ে ২ হাজার, তিন বিষয়ে ৩ হজার টাকা করে গ্রহন করেছে। এছাড়া তার বিরুদ্ধে ভর্তিতে এবং পরীক্ষার ফরম পুরনে অতিরিক্ত ৫০০ টাকা থেকে ৯০০ টাকা পর্যন্ত আদায় করেন, এছাড়া ইনকোর্স ফি ২০০, কেন্দ্র ব্যবস্থাপনা ৫০০, অফিস ব্যবস্থাপনা ৫০০, ইনকোর্স পরীক্ষা না দিলে ১৪০০ এবং ফেল করলে বিষয় প্রতি ২ হাজার টাকা পর্যন্ত আদায় করার অভিযোগ উঠেছে। এবং আদায়কৃত অর্থ কলেজ ফান্ডে জমা না দিয়ে ব্যক্তিগত ভাবে আত্মসাৎ করেন।

কলেজের অধ্যক্ষের অনুমতি ছাড়া ব্যক্তিগত ভাবে কলেজের নামে একটি ভাউচার বই তৈরি করেছেন যার মাধ্যমেই অবৈধ এই অর্থ আদায় করা হয়। এছাড়া কলেজ প্রশাসনের অনুমতি ছাড়া কলেজের বড় এবং মাঝারি সাইজের ১৩ টি মেহগনি ও রেইনট্রি গাছ বিক্রি করেন যার পুরো টাকা ই তিনি অবৈধভাবে আত্মসাৎ করেছেন।

অভিযুক্ত উপাধ্যক্ষ কামাল মাহামুদ গাছ কাটা এবং টাকা নেবার সত্যতা স্বীকার করলেও টাকা আত্মসাৎ এর বিষয়টি অস্বীকার করেছেন। তিনি বলেন, শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে আদায়কৃত টাকা প্রতিষ্ঠানের উন্নয়ন কাজে ব্যয় করা হয়।

শহীদ আবদুস সালাম ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ তপন কুমার দাশের কাছে জানতে চাইলে প্রথমে তিনি ঘটনা অস্বীকার করে বলেন, উপাধ্যক্ষের বিরুদ্ধে এ সকল অনিয়মের কোন অভিযোগ পাওয়া যায়নি। পরবর্তীতে তিনি জানান, উপাধ্যক্ষ কামাল গাছ বিক্রি এবং শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত অর্থ আদায় করে থাকলে তার অনুমতি ছাড়াই করেছেন। এ বিষয়ে তিনি প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করার আশ্বাস দিয়েছেন।

SHARE