মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস ইনিয়ে-বিনিয়ে লেখা: শিবির ক্যাডার জাহিদ

390

নিজের ফেসবুক আইডি এবং একাধিক ফেইক আইডি ও পেইজ থেকে মিথ্যাচার ও গুজব ছড়ানোর কারণে তথ্যপ্রযুক্তি আইনে গ্রেফতার করা হয় কক্সবাজারের কুতুবদিয়া উপজেলার শিবির ক্যাডার জাহিদুল ইসলাম হৃদয় কে। তাকে গ্রেপ্তার করতে গিয়ে রাতভর দরজার সামনে দাঁড়িয়ে থাকতে হয়েছিল পুলিশ কে।

সেই সময় বাসার ভিতর থেকে ফেসবুক লাইভে পুলিশের উপর ঝাঁপিয়ে পড়ার জন্য এলাকাবাসীকে অনুরোধ জানায় ওই শিবির ক্যাডার। আরেকটি ফেসবুক পোস্ট এর মাধ্যমে পুলিশ সদস্যরা তার বোনদের নির্যাতন করতে এসেছে এমন কথা ও প্রচার করে সেই ব্যক্তি।

তার ফেসবুক আইডিতে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস বানানো এবং ইনিয়ে বিনিয়ে লিখা হয়েছে বলে একাধিক পোস্ট পাওয়া গেছে। গত ১৫ এপ্রিল এর একটি পোস্টে দেখা যায় এই শিবির ক্যাডার লিখেছে, “একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস এর মত ইনিয়ে-বিনিয়ে ইতিহাস যেন লেখা না হয় সেদিকে খেয়াল রাখা উচিত।” তার ফেসবুক পোষ্ট টি লিঙ্ক সহ সংযুক্ত করা হলো।

১৫ এপ্রিল আরেকটি ফেসবুক পোস্টে সে লিখেছে, ডাক্তার মঈনদেরও উচিত সেবা করার সময় কে কোন রাজনীতি করে তাহা বিবেচনায় নেয়া। ধরুন,একাত্তরের চেতনাপন্থী যারা আছে তারা করোনার চেয়ে শক্তিশালী,অতএব কি দরকার?

এর আগেও অসংখ্য পোস্টে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা এবং মুক্তিযুদ্ধকে চরমভাবে আঘাত করে একাধিক পোস্ট পাওয়া গেছে তার আইডিতে।

তাকে গ্রেপ্তার করার সময় পুলিশকে একাধিকবার হুমকি দেয় এই শিবির ক্যাডার। তাকে গ্রেপ্তার করা হলে গোটা দেশে আগুন জ্বলবে। এমনকি তার গায়ে আঁচড় দেওয়া হলে উচ্চ আদালতে শত শত রীট করা হবে বলে হুমকি ধমকি দেয় সে।

আটক জাহেদুল ইসলাম হৃদয় কুতুবদিয়া দ্বীপের উত্তর লেমশীখালী গ্রামের মাদ্রাসা শিক্ষক মওলানা মঈনুল হক কুতুবীর পুত্র। দ্বীপের আল ফারুক মাদরাসা ছাত্র শিবিরের সভাপতি ছিলেন। পুরো পরিবারই জামায়াত-শিবিরের রাজনীতির সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িত। শেমশীখালী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আকতার হোসাইন জানান-‘এই ছেলেটিকে ধরতে গোটা থানা পুলিশের সারা রাত ধরে যা কষ্ট করতে হয়েছে তা আর বলার নয়। কিছুতেই তাকে পুলিশ ধরতে পারবে না-এ ধরনের একটি ভাব নিয়ে রাতভর পুলিশকে সে হুংকার দিয়েছে।’

SHARE