এক অংকের সুদে ঋণ পাচ্ছেন না ক্ষুদ্র-মাঝারি উদ্যোক্তারা

35

নতুন অর্থবছর থেকে এক অংকের সুদে ঋণ পাওয়ার কথা থাকলেও এখনও তা পাচ্ছেন না ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোক্তারা। এ অবস্থায় নতুন উদ্যোগ কিংবা ব্যবসা সম্প্রসারণে হিমসিম খেতে হচ্ছে ক্ষুদ্র ও মাঝারি ব্যবসায়ীদের। নিজেদের সীমাবদ্ধতার কারণেই নতুন উদ্যোক্তাদের অনেক ক্ষেত্রে ঋণ পেতে জটিলতা হয় বলে জানান ব্যাংক কর্মকর্তারা। সহজ শর্তে এবং খুব দ্রুত এসএমই উদ্যোক্তাদের ঋণ দিতে ব্যাংকগুলোকেই উদ্যোগ নিতে হবে বলে মনে করে এসএমই ফাউন্ডেশন।

ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প উদ্যোক্তাদের ব্যবসা বিকাশের অন্যতম বাধা হিসেবে ধরা হয় বিনিয়োগকে। তাই পুঁজির যোগান দিতে তাদের একমাত্র ভরসা ব্যাংক ঋণ। সেখানেও ঋণ পেতে তাদের পোহাতে হয় বিভিন্ন ঝক্কি ঝামেলা। সাথে ঋণ পরিশোধের উচ্চ সুদ হার তো আছেই। যদিও চলতি বছরের জুলাই থেকে দেশের সব বাণিজ্যিক ব্যাংকের সুদ হার ৯ শতাংশে নিয়ে আসার ঘোষণা দেয় ব্যাংক মালিকদের সংগঠন। এক মাস পেরিয়ে গেলেও অনেক ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প উদ্যোক্তাই এক অংকের সুদে ঋণ পাননি কোন ব্যাংক থেকেই।

এস এমই ফাউন্ডেশনের পরিচালক বলেন, ‘ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের কোন ধরনের প্রতিবন্ধকতা ছাড়ায় লোণ দেয়ার ব্যবস্থা করতে হবে। এবং এক অংকে তারা যেনো লোণ পায় সেটা আমাদের দেখতে হবে। আমার নিজের অভিজ্ঞতা থেকে বলতে পারি ব্যাংক থেকে আমি কোন সহযোগিতা পায়নি। আমি মনে করি যদি একটা এস এম ই ব্যাংক করা যায় তাহলে খুব ভালো হবে।’

দ্রুত ও সহজে ঋণ না পাওয়ার জন্য ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের নিজেদেরও কিছু সীমাবদ্ধতা আছে বলে জানান এই ব্যাংক কর্মকর্তা। তবে এসএমই উদ্যোক্তাদের ঋণ দেয়ার ক্ষেত্রে ব্যাংকগুলোর আরও বেশি সহযোগিতা করা দরকার বলে মত তার।

বেসিক ব্যাংকের জেনারেল ম্যানেজার বলেন, তারা ট্রেড লাইসেন্স ঠিকমত দিতে পারে না। ছবি ন্যাশনাল আইডি নামের ভুল থাকে। বা অন্য কোথাও ঋণের কথা গোপন করে। আবার আসলে তার বিষয়টি উপস্থাপনই করতে পারে না।

ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের উন্নয়নে কাজ করা এসএমই ফাউন্ডেশন বলছে প্রকৃতপক্ষে ব্যাংকগুলোতে এসএমই ঋণের যে চিত্র দেখা যায় বাস্তবতা তা থেকে ভিন্ন। কম সুদে কিংবা সহজ শর্তে ঋণ পাওয়ার ক্ষেত্রে এখনও উদ্যোক্তাবান্ধব নয় দেশের বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলো।

দেশরিভিউ/এস এস