এক দিনে তিন ধর্মের অনুষ্ঠান, কঠোর সতর্ক অবস্থানে বাংলাদেশ

146


দেশরিভিউ সংবাদ।।
আজ বুধবার (২০ অক্টোবর) হিন্দু, মুসলিম ও বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের ধর্মীয় অনুষ্ঠান। তিন ধরণের অনুষ্ঠানের আমেজে ব্যস্ত বাংলাদেশের তিনটি ধর্মের প্রতিটি উপাসনালয়। তবে গত কয়েকদিন আগে দুর্গাপূজা চলাকালে ঘটে যাওয়া বেশ কয়েকটি উগ্রগোষ্ঠীর ঘটনায় মনোভয় নিয়ে উৎসব উদযাপন করছে সংখ্যালঘুরা। আর এ কারনে সারাদেশে আইন শৃঙ্খলা বাহিনী রয়েছে কঠোর সতর্ক অবস্থানে।

ইসলাম ধর্ম মতে, প্রায় এক হাজার ৪০০ বছর আগে এই দিনে আরবের মরু প্রান্তরে মা আমিনার কোল আলো করে জন্ম নিয়েছিলেন বিশ্বনবী হজরত মুহাম্মদ (সা.)। আবার এই দিনে তিনি পৃথিবী ছেড়ে চলে যান।

জানা গেছে, নগরে জশনে জুলুস পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবীকে প্রাণবন্ত করতে ব্যাপক প্রস্তুতি শেষ করেছে আঞ্জুমান। সাবির শাহ (ম.জি.আ.) এর আগমনে চট্টগ্রামের সুন্নিয়া জামিয়া মাদ্রাসা এলাকায় উৎসবের আমেজ বিরাজ করছে। ইতোমধ্যে মুরাদপুর সুন্নিয়া মাদ্রাসা প্রাঙ্গণে হুজুরের আনুগত্য লাভের জন্য ভক্তগণ উপস্থিত হয়েছেন। বাদ পড়েনি আগত মেহমানদের খাদিমদারি। রাতে ঘুমানোসহ ইবাদত করার জন্যও ব্যবস্থা করা হয়েছে। অস্থায়ীভাবে বসানো হয়েছে অজু করার জায়গা ও শৌচাগার।

বৌদ্ধধর্ম মতে, প্রবারণা শব্দটি দিয়ে ‘আশার তৃপ্তি’, ‘অভিলাষ পূরণ’, ‘ধ্যান বা শিক্ষা সমাপ্তি’ বোঝানো হয়। এটা আত্মশুদ্ধি বা আত্মসমালোচনাকেও বোঝায়। আজকের দিনে ভিক্ষুরা হৃদ্যতাপূর্ণ পরিবেশে চারিত্রিক শুদ্ধির জন্য একে অন্যকে করজোড়ে বলেন, ‘বন্ধু, যদি আমার কোনোরূপ দোষত্রুটি দেখো বা কারও থেকে শুনে থাকো এবং এ কারণে যদি আমার ওপর সন্দেহ হয়ে থাকে তাহলে আমাকে বলো, আমি তার প্রতিকার করব।’ বিনয় পিটকের পরিভাষায় একেই বলে ‘প্রবারণা’। বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীরা আকাশ প্রদীপ (ফানুস) উড়িয়ে এই দিনটি উদযাপন করে থাকে।

হিন্দু ধর্ম মতে, নিজের নিজের বিশ্বাস ও ঐতিহ্য মেনে দেশের বিভিন্ন প্রান্তের মানুষ কোজাগরী পূর্ণিমা উদযাপন করেন। এই বিশেষ দিনে রাতে পূজো করলে মা লক্ষ্মীর আশীর্বাদ পাওয়া যায় বলে বিশ্বাস। এই দিন রাতে পৃথিবীতে আসেন মা লক্ষ্মী। তিনি ‘কো জাগ্রতী’ শব্দের উচ্চারণ করেন। যার অর্থ, কে জেগে আছে। মা লক্ষ্মী দেখেন, রাতে কে জেগে আছেন পৃথিবীতে। কে তাঁর পূজো করছেন পূর্ণ ভক্তির সাথে। সেই অনুযায়ী তাঁর ঘরে বিরাজ করেন দেবী।

SHARE