এক বছরের জন্য নিষিদ্ধ স্মিথ-ওয়ার্নার

4

ঐতিহাসিক। মনে রাখার মতো। ক্রিকেটারদের জন্য ভুলবার নয় কখনো। বল ট্যাম্পারিংকাণ্ডে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া উদাহরণ দেওয়ার মতো শাস্তি ঘোষণা করেছে। তাদের নিয়মিত অধিনায়ক স্টিভেন স্মিথ এবং সহ অধিনায়ক ডেভিড ওয়ার্নারকে এক বছরের জন্য নিষিদ্ধ করা হয়েছে। বুধবার এসেছে এই ঘোষণা। যার হাতে সেদিন বল ট্যাম্পারিং হয়েছে কেপ টাউনে সেই ক্যামেরন ব্যানক্রফটকে ৯ মাসের জন্য নিষিদ্ধ করা হয়েছে। গত শনিবার নিউল্যান্ডসে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে তৃতীয় টেস্টের তৃতীয় দিনে বল ট্যাম্পারিংয়ের ঝড় তোলা ঘটনা ঘটে। ক্যামেরায় যা ধরা পড়ে। পরে স্মিথ ও ব্যানক্রফট স্বীকার করেন। স্মিথ বলেছিলেন, ওটা আগেই পরিকল্পনা করা ছিল।

ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া থেকে আনুষ্ঠানিক ঘোষণা এবং এর বিস্তারিত এখনো জানানো বাকি। তবে বুধবারই স্মিথ, ওয়ার্নার আর ব্যানক্রফট উড়ে যাচ্ছেন দেশে। জোহানেসবার্গ থেকে তাদের বিদায় করে দেওয়া হচ্ছে। চতুর্থ ও শেষ টেস্ট শুরু শুক্রবার। সেই ম্যাচে তো খেলার প্রশ্নই আসে না। এর আগে কেপ টাউন টেস্টে বল ট্যাম্পারিং কেলেঙ্কারি আলোর মুখ দেখার পরদিন মানে টেস্টের চতুর্থ দিনে স্মিথ ও ওয়ার্নারকে যথাক্রমে অধিনায়ক ও সহ অধিনায়ক পদ ছাড়তে হয়েছিল। টিম পেইন ম্যাচের বাকি অংশের অধিনায়ক ছিলেন। ম্যাচ জিতেছিল স্বাগতিক অস্ট্রেলিয়া। চার ম্যাচের সিরিজের তিনটি শেষে প্রোটিয়ারা ২-১ এ এগিয়ে।

দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে তৃতীয় টেস্টের তৃতীয় দিন বল ট্যাম্পারিং করে নিজেরাই তা স্বীকার করে নেন স্মিথ, ব্যানক্রফটরা। আইসিসি থেকে স্মিথকে এক টেস্টের জন্য নিষিদ্ধ ও ম্যাচ ফির ১০০% জরিমানা করা হয়। ব্যানক্রফটকে করা হয় ম্যাচ ফির ৭৫ শতাংশ জরিমানা, সঙ্গে দেওয়া হয় তিনটি ডিমেরিট পয়েন্ট। তবে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার পক্ষ থেকে আরো বড় শাস্তি অপেক্ষা করছিল। সেই শাস্তিটা জানা গেল। তবে তিনজন খেলোয়াড়ই তাদের এই শস্তির বিরুদ্ধে আপিল করতে পারবেন বলে সূত্রের খবর।

দেশরিভিউ/শিমুল

SHARE