এতিমখানা দূর্নীতির ২ কোটি টাকা ব্যাংকে বর্তমানে ৬ কোটি টাকার বেশি হয়েছে

128

।।দেশরিভিউ।।
বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে অনতিবিলম্বে মুক্তি দিতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন ১ হাজার ১৭ জন সাংবাদিক। এক বিবৃতিতে তারা বলেন, আসন্ন ঈদুল ফিতরের আগেই তার বন্দিত্ব অবসানের বিষয়টি নিশ্চিত করা হোক।

বিবৃতিতে সাংবাদিকরা দাবি করেন, জিয়া অরফানেজ ট্রাস্টের নামে করা মামলাটি মিথ্যা ও উদ্দেশ্যমূলক। তাছাড়া যে ২ কোটি টাকা নিয়ে মামলা, তার একটি টাকাও নষ্ট হয়নি। ইতোমধ্যে সেই টাকা ব্যাংকে তিন গুণ বেড়ে ৬ কোটির বেশি হয়েছে।

রবিবার (২৬ মে) ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ের (একাংশ) সভাপতি কাদের গণি চৌধুরীর সই করা বিবৃতিতে খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবি জানানো হয়। বিবৃতিতে সই করা সাংবাদিক বাছির জামাল এর সত্যতা নিশ্চিত করেন।
বিবৃতিতে  সাংবাদিকরা বলেন, ‘আমরা খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা নিয়ে ভীষণ উদ্বিগ্ন। তার স্বাস্থ্যের এমন অবনতি হয়েছে যে তিনি স্বাভাবিকভাবে খাওয়া-দাওয়া পর্যন্ত করতে পারছেন না।’ বিবৃতিতে বলা হয়, ‘অসুস্থ অবস্থায় এক বছরের বেশি সময় আগে তাকে জেলে নেওয়া হয়। এরপর চিকিৎসায় অবহেলার কারণে তার অসুখের মাত্রা বেড়ে যায়। একপর্যায়ে খালেদা জিয়া নিজেই আদালতে তার শারীরিক অবস্থার অবনতির কথা জানাতে বাধ্য হন।’

বিবৃতিতে সই করেছেন রিয়াজ উদ্দিন আহমেদ, আমানুল্লাহ, আলমগীর মহিউদ্দিন, আবুল আসাদ, অধ্যাপক আবদুল গফুর, শওকত মাহমুদ, রুহুল আমিন গাজী, ড. রেজোয়ান সিদ্দিকী, কবি আল মুজাহিদী, মোবায়েদুর রহমান, ফজলুর রহমান মুন্সী, মোস্তফা কামাল মজুমদার, সালাহউদ্দিন মোহাম্মদ বাবর, কামাল উদ্দিন সবুজ, এম এ আজিজ, এম আবদুল্লাহ, কবি আবদুল হাই শিকদার, এরশাদ মজুমদার, সৈয়দ আবদাল আহমেদ, আবদুস শহিদ, গোলাম তাহাবুর, ছড়াকার আবু সালেহ, মাশুক চৌধুরী, খায়রুল আনোয়ার মুকুল, বাকের হোসাইন, শহিদুল ইসলাম, সৈয়দ মেজবাহ, কবি হাসান হাফিজ, কবি মাহমুদ শফিক, এ ইউ এম ফখরুদ্দিন, শেহাব উদ্দিন আহমেদ নাফা, চিন্ময় মুৎসুদ্দী, জিয়াউল হক, রীটা রহমান, মাহমুদা চৌধুরী, মমতাজ বিলকিস বানু, রোজী ফেরদৌস, মুন্সী আবদুল মান্নান, কাজী রওনাক হোসেন, নূরুল হুদা, জাহাঙ্গীর আলম প্রধান, ইলিয়াস হোসেন, শফিউল আলম দোলন, সাখাওয়াত হোসেন বাদশা, বদিউল আলম, নূরুল হাসান খান, বখতিয়ার রানা, গোলাম মোস্তফা, আবদুল আউয়াল ঠাকুর, জাহিদ চৌধুরী, কবি জাহাঙ্গীর ফিরোজ, শাহ আহমদ রেজা, ড. আবদুল হাই সিদ্দিক প্রমুখ।

SHARE