এবার বিবিসি বাংলার বানোয়াট শিরোনামের খবর ধরা পড়লো

17

দেশরিভিউ: গতকাল বিবিসি বাংলায় প্রকাশিত ‘ইকোনমিস্ট ইনটেলিজেন্সের গণতান্ত্রিক দেশের তালিকায় নেই বাংলাদেশ’ শিরোনামে প্রকাশিত খবরটি নিয়ে বিতর্ক দেখা দিয়েছে। যুক্তরাজ্য-ভিত্তিক গবেষণা প্রতিষ্ঠান ইকোনমিস্ট ইন্টেলিজেন্স ইউনিট (ইআইইউ) বুধবার যে প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে  তার ভিত্তিতে বিবিসি বাংলা গতকাল ১০ জানুয়ারি উক্ত শিরোনামে একটি খবর প্রকাশ করে। যা মূহুত্বের মধ্যে ভাইরাল হয়ে যায়। নিউজটি অনুসরন করে দেশের শীর্ষ স্থানীয় জাতীয় দৈনিক পত্রিকাসমূহ একই শিরোনামে খবর প্রকাশ করতে দেখা যায়।

বিবিসি বাংলায় প্রকাশিত খবরের ‘বিতর্কিত’ শিরোনাম

ইকোনমিস্ট ইন্টেলিজেন্স এবং বিবিসি বাংলার খবরটি পর্যালোচনা করে দেখা যায়, ইকোনমিস্ট ইন্টেলিজেন্স ১৬৭টি দেশকে চারটি ক্যাটেগরিকে ভাগ করে তালিকা প্রকাশ করে। ক্যাটাগরি সমূহ হলো, স্বৈরতন্ত্র, হাইব্রিড রেজিম, ত্রুটিপূর্ণ গণতন্ত্র এবং পূর্ণ গণতন্ত্র। যেখানে তারা ২০টি দেশ গণতন্ত্রের তালিকায়, ৫৫টি দেশ ত্রুটিপূর্ণ গণতান্ত্রিক দেশের তালিকায়, ৩৯টি দেশ হাইব্রিড রেজিমের তালিকায় এবং ৫৩টি দেশ স্বৈরতান্ত্রিক দেশের তালিকায় আছে বলে জানিয়েছে। যে ২০ টি দেশে গনতন্ত্র আছে বলে ইকোনমিস্ট ইন্টেলিজেন্স বলছে সে তালিকায় আমেরিকা, রাশিয়া, ভারত সহ ইউরোপের উন্নত দেশগুলোর স্থান হয়নি।

যে ২০ দেশে গনতন্ত্র রয়েছে সে তালিকা দেখুন

ইআইইউ-এর প্রতিবেদন অনুযায়ী, দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে ভারত ও শ্রীলঙ্কায় ‘ত্রুটিপূর্ণ গণতন্ত্র’ বিরাজ করছে জানানো হয়। বাংলাদেশ, ভুটান, নেপাল ও পাকিস্তানে ‘হাইব্রিড রেজিম’ গনতন্ত্র এবং আফগানিস্তানে ‘স্বৈরতন্ত্র” সরকার ব্যবস্থা আছে বলে প্রতিবেদনে জানানো হয়। প্রতিবেদনের এই বিষয়গুলো বিবিসি বাংলার খবরের ভেতরের অংশে প্রকাশিত হলেও মূল শিরোনাম নিয়ে মূলত প্রশ্ন উঠেছে। বিশ্লেষকরা দেশরিভিউকে এ বিষয়ে বলছেন- আমেরিকা, রাশিয়া, ইউরোপের উন্নত রাষ্ট্রসমূহ কিংবা প্রতিবেশী দেশ ভারতের নাম যখন কোন তালিকায় স্থান পাইনি তখন বাংলাদেশের নাম দিয়ে কোন খবরের শিরোনাম হওয়াটা অসম্পূর্ণ, বিকৃত মানসিকতার পরিচয়। বিবিসি বাংলার এইরূপ খবর প্রকাশ করাটা এক্ষেত্রে উদ্দেশ্যমূলকও বটে।

SHARE