এমপি-মন্ত্রীর বাড়ি হলেও ছাড় নয়: গণপূর্ত মন্ত্রী

324

||দেশরিভিউ, ঢাকা||

রাজধানী ঢাকার নিয়ম বহির্ভূত সব ভবন ভেঙে ফেলার ঘোষণা দিয়েছেন গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম। এ বিষয়ে তদন্ত শুরু হয়েছে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, মানুষের জীবনের চেয়ে ভবন মূল্যবান হতে পারে না। নতুন ঢাকায় যারা নিয়ম না মেনে বিল্ডিং নির্মাণ করেছেন, তাদের বিল্ডিংগুলো ভেঙে ফেলতে হবে।

শুক্রবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির ‘মিট দ্য রিপোর্টার্স’ অনুষ্ঠানে গণপূর্তমন্ত্রীর এমন বক্তব্য আসে।

 

এসময় মন্ত্রী বলেন, যেটাকে কোনোভাবে রাখা যাবে না যদি তারা (ভবন মালিক) ভাঙতে না চান সেসব বিল্ডিং আমরা সম্পূর্ণরূপে বেআইনি ও ব্যবহার অনুপযোগী বলে সিলগালা করে দেব। যেসব ভবনে আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে আলাদা পিলার বা আলাদা ভিত্তি দিয়ে টিকেয়ে রাখা সম্ভব, সেগুলোকে ছাড় দেওয়া হলেও ঝুঁকি সৃষ্টি করে এমন ভবন ছাড় পাবে না বলে হুঁশিয়ার করেন মন্ত্রী।

 

বনানীর এফ আর টাওয়ারে অগ্নিকাণ্ড নিয়ে তদন্ত প্রতিবেদনে ৬২ জন কর্মকর্তাকেও চিহ্নিত করা হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, “আমি শুধু বাড়িওয়ালাকে ধরব, আমার লোককে ধরব না, তাহলে তো জিরো টলারেন্স হলো না। জিরো টলারেন্সের প্রশ্নে এই ৬২ জনের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য গত সপ্তাহে রাজউককে নির্দেশ দিয়েছি।”

 

এফ আর টাওয়ারে অগ্নিকাণ্ডের পর এক হাজার ৮১৮টি বাড়িতে (বহুতল ভবন) অনিয়ম পেয়েছে বলে তথ্য দেন পূর্ত মন্ত্রী।

তিনি বলেন, “এসব বাড়ির অনেক মালিক অনেক প্রভাবশালী ব্যক্তি; ক্ষমতায়, রাজনীতিতে, অর্থে, তাদের সম্পর্কে রিপোর্ট করা হবে অনেকেই ভাবেননি। এসব বিল্ডিংয়ের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে যাচ্ছি, আপনারা আমাদের সাহায্য করেন” ।

“তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য রাজউককে নির্দেশ দিয়েছি, বলেছি একটা বাড়িও ড্রপ হবে না। যদি কোনো মন্ত্রী-এমপির বাড়িও হয়, আমার নিজের কোনো আত্মীয়-স্বজনও হয়, ড্রপ হবে না, আইনকে তার নিজস্ব গতিতে চলতে দিতে হবে।”

 

পূর্ত মন্ত্রণালয় এবং এর আওতাভুক্ত সংস্থার বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদে দীর্ঘদিন ধরে থাকা কর্মকর্তাদের বদলি করতে গিয়ে তদবির প্রসঙ্গে মন্ত্রী বলেন, “উপরে আল্লাহ, নিচে শেখ হাসিনা; মাঝখানে আমার কোনো তদবির নেই”।

 

রাজধানীতে দীর্ঘদিন ধরে গড়ে ওঠা বিভিন্ন স্থাপনা রাতারাতি উচ্ছেদ করা সম্ভব না বলেই মনে করেন পূর্তমন্ত্রী। তিনি বলেন, “রাতারাতি সব উচ্ছেদ করতে পারব না। কিন্তু আমি যদি টেন পারসেন্ট দুর্নীতিকেও স্টপ করতে পারি, আমি মনে করব আমি কিছু পারছি।”

প্রতিটি ভবনে অগ্নিনির্বাপন ব্যবস্থা মানসম্মত অবস্থায় আছে কি না, তা পর্যবেক্ষণ করতে ফায়ার সার্ভিসকে অনুরোধ করা হয়েছে বলে জানান মন্ত্রী।

 

এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, “বিজিএমইএ ভবন ভাঙার দায়িত্ব যারা পাবে, তাদের সঙ্গে একটি চুক্তি করা হবে। কি প্রক্রিয়ায় তারা ভবনটি ভাঙবেন… সেই প্রক্রিয়া যদি জীবনের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ হয় কোনোভাবেই সেই প্রক্রিয়ায় আমরা বিল্ডিং ভাঙতে দেব না।”

অনেক প্রভাবশালী ব্যক্তি আদালত থেকে আদেশ নেওয়ায় রাজউকের কাজ বাধাগ্রস্ত হয় জানিয়ে তিনি বলেন, ” আইনী সমস্যা সমাধান না হলে রাজউকের করার কিছু থাকে না”।

SHARE