এলাকায় মুক্তিযুদ্ধ হয়নি বক্তব্যে তোপের মুখে সাংসদ মোস্তাফিজুর (অডিও)

413

।।চট্টগ্রাম প্রতিনিধি, দেশরিভিউ।।

চট্টগ্রামের বাঁশখালী উপজেলায় রাষ্ট্রীয় মর্যাদা ছাড়াই মুক্তিযোদ্ধা আলী আশরাফ (৮৫) এর দাফনের ঘটনায় ক্ষোভের আগুন ছড়িয়েছে এলাকায়। বাঁশখালীতে কোন মুক্তিযুদ্ধ হয়নি এমন মন্তব্য করে এ ক্ষোভের আগুন দ্বিগুন করেছেন বাঁশখালীর সাংসদ মোস্তাফিজুর রহমান চৌধুরী।

জানা গেছে, মুক্তিযোদ্ধা ও বঙ্গবন্ধু হত্যার প্রথম প্রতিবাদকারী মৌলভী ছৈয়দের বড় ভাই বাঁশখালী উপজেলা আওয়ামী লীগের শ্রম বিষয়ক সম্পাদক এবং উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের ডেপুটি কমান্ডার আলী আশরাফ রোববার (২৬ জুলাই) দুপুরে মারা যাওয়া গেলে সোমবার (২৭ জুলাই) সকাল ১১টায় দাফন হওয়ার কথা ছিল। উপজেলার শেখেরখীল ইউনিয়নের নিজ গ্রামে পারিবারিক কবরস্থানে এই মুক্তিযোদ্ধাকে সমাহিত করার সকল প্রক্রিয়া সম্পন্ন হলেও সেখানে উপস্থিত হতে পারেননি প্রশাসনের কোনো ব্যক্তি। ফলে ক্ষুব্ধ এলাকাবাসী স্থানীয় মুরব্বিদের পরামর্শে তার দাফন সম্পন্ন করে। এ ঘটনায় এলাকাজুড়ে উত্তেজনা দেখা দিলে গণমাধ্যম থেকে যোগাযোগ করা হলে স্থানীয় সাংসদ
মোস্তাফিজুর রহমান চৌধুরী বাঁশখালীতে কোন মুক্তিযুদ্ধ হয়নি। আলী আশরাফ মুক্তিযোদ্ধা কিনা তা তিনি জানেন না বলে মন্তব্য করেন।

গণমাধ্যমের সাথে ফোনআলাপের সে অডিও ক্লিপ থেকে স্থানীয় সাংসদ মোস্তাফিজুর রহমান চৌধুরীকে বলতে শুনা যায়, আমি করোনা আক্রান্ত। আইসোলেশনে আছি। এই বিষয়ে প্রশাসনের সাথে কথা বলতে বলেন তিনি।

সাংসদ মোস্তাফিজ বলেন, প্রশাসনের যেতে পাঁচ মিনিট দেরি হওয়ায় তার পরিবার দাফন করে ফেলে। তিনি মুক্তিযোদ্ধা মৌলভী ছৈয়দ এর ভাই। সে সুবাদে তাকেও মুক্তিযোদ্ধা বলা হয়।’ বাঁশখালীতে কোথায় মুক্তিযুদ্ধ হয়েছে তা আমার জানা নেই বলেও মন্তব্য করেন সাংসদ মোস্তাফিজ। তিনি তখন জলদি স্কুলের অষ্টম শ্রেণির ছাত্র ছিলেন দাবি করে সাংসদ বলেন, স্বাধীনতার এক দিন আগে কিছু রাজাকার এনে বাঁশখালীতে মারা হয়েছে। আর মৌলভি সৈয়দ চট্টগ্রামে মুক্তিযুদ্ধ করেছেন। ফারুক মুনির চৌধুরী ভারতে গেছেন। তারা মুক্তিযুদ্ধ করেছে। বাঁশখালীতে কোন মুক্তিযুদ্ধ হয়নি। আলী আশরাফ মুক্তিযোদ্ধা কিনা তা তিনি জানেন না বলে মন্তব্য করেন।

এ বিষয়ে মৃত মুক্তিযোদ্ধার ভাতিজা ফারুক আব্দুল্লাহ বলেন, প্রশাসনের পক্ষ থেকে আমাদের জানানো হয়েছে সময়মতো তারা আসবেন। ১১টার আগেই পুলিশ চলে আসলেও ইউএনওসহ উপজেলা প্রশাসনের কেউ না আসায় আমরা দাফন সম্পন্ন করি। লাশ দাফনের প্রায় আধা ঘন্টা পর উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) আতিকুল ইসলাম আসেন।’ তিনি বলেন, আমার চাচা
তার ভাই মুক্তিযোদ্ধা মৌলভী ছৈয়দ আহমদ পঁচাত্তরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যার সশস্ত্র প্রতিবাদ করতে গিয়ে আটক হয়েছিলেন। অথচ এমন মানুষটি দুইদিন যথাযথ চিকিৎসা না পেয়ে হাসপাতালে মারা গেছেন।’ তিনি অভিযোগ করে বলেন, বাঁশখালীর এমপি আমাদের কোন সহযোগিতা বা সমবেদনাও জানান নি। একজন মুক্তিযোদ্ধার মৃত্যুতে স্থানীয় সাংসদের এমন নির্লিপ্ততা আমাদের ব্যথিত করেছে।’ এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে।

এ ঘটনায় মঙ্গলবার স্থানীয়রা বাঁশখালীর সহকারী কমিশনার (ভূমি) আতিকুর রহমান সহ স্থানীয় সাংসদ মোস্তাফিজুর রহমান চৌধুরীর শাস্তি দাবী করে মানববন্ধন করেছেন।

SHARE