এলো কোথা হতে! গেলো বা কই!!

209
চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ইঞ্জিনিয়ারিং অনুষদে ফাইনাল পরীক্ষার উত্তরপত্র পুড়িয়ে ফেলার ঘটনা বহুল আলোচিত বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ মহলে উদ্বিগ্নতা ও আলোড়নের জন্ম দেয় এই ঘটনা। নির্দিষ্ট সময় পেরিয়ে গেলেও কূল-কিনারার খোঁজ মেলাতে পারছে না তদন্ত কমিটি। ডিজিটাল ক্লোজ সার্কিটের সকল চোখ ফাঁকি দিয়ে অত্যন্ত সূচারূরুপে দূর্বৃত্তরা কাজ সেরে কেটে পড়ে। তাই সবার মনে একই ভাবনা, “এলো কোথা হতে! গেলো বা কই!!”
গত ১৫ই মে গভীর রাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের ইঞ্জিনিয়ারিং অনুষদের “কম্পিউটার সাইয়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং” বিভাগের তৃতীয়, পঞ্চমম ও সপ্তম সেমিস্টারের প্রায় ৭শ’ ৯ টি উত্তরপত্র পুড়িয়ে ফেলা হয়। যেখানে ১ শ’ ৭২ জন শিক্ষার্থীর ৯টি কোর্সের উত্তরপত্র লিপিবদ্ধ ছিল।
বিশ্ববিদ্যালয়ের নিরাপত্তা কর্মীদের ফাঁকি দিয়ে ডিজিটাল ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরার চোখ অন্ধ করে দিয়ে অদৃশ্য পথে অনুষদে প্রবেশ করে দুষ্কৃতিকারীরা। অত্যন্ত ধিরে কাজ সেরে একই পথে বেরিয়ে আসে তারা। সেই পথ এবং পথের যাতায়াতকারীদের সম্পর্কে এখনো তেমন কিছুই আবিষ্কার করতে পারেনি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।
দুষ্কৃতিকারীরা যাতায়াতের গোপন পথের সন্ধানে সরেজমীনে দেখা যায়, অনুষদের বামপাশে নিচতলা থেকে উপরতলা পর্যন্ত সিঁড়ির মতো ছোট ছোট ধাপ বিশিষ্ট একটি লোহার গ্রিল রয়েছে। যা বেয়ে খুব সহজেই ছাদে উঠা সম্ভব। দুষ্কৃতিকারীরা খুব সহজেই এই পথ বেয়ে উঠতে পারে।
এছাড়াও দুষ্কৃতিকারীরা দিনের বেলা ছাদে উঠে লুকিয়ে থাকতে পারে। রাতের বেলা সন্তর্পনে খুব সহজেই বেরিয়ে এসে এই ঘটনা ঘটাতে পারে।
এই বিষয়ে সহকারী প্রক্টর ও তদন্ত কমিটির সদস্য সচিব লিটন মিত্র বলেন, “তাদের যাতায়াতের পথ লোহার গ্রিলটি হতে পারে। কিংবা তারা পূর্ব থেকে ছাদে লুকিয়ে ও থাকতে পারে। উত্তরপত্র পুড়িয়ে দিয়ে গ্রিল বেয়ে নেমে চলে এলে কারো নজরে পড়ার কথা নয়।”
এদিকে উত্তরপত্র পুড়ে যাওয়া শিক্ষার্থীদের জন্যে উক্ত ৯টি কোর্সে ফের পরীক্ষার আয়োজন করবে বলে ঘোষণা দেয় কর্তৃপক্ষ।
আগামী ২৫জুলাই থেকেই এই কোর্সের পরীক্ষাগুলো অনুষ্ঠিত হবে বলে জানিয়েছেন বিভাগের সভাপতি ড. অছিওর রহমান।
তিনি বলেন,”শিক্ষার্থীদের এভাবে ফেলে রাখা যায়না। এতে সেশন জটের সৃষ্টি হতে পারে।”
উল্লেখ্য, দুষ্কৃতিকারীদের চিহ্নিত করার ক্ষেত্রে তদন্তের সময় আরো ১৪ দিন বাড়ানো হয়েছে। ক্যামেরার ভিডিওগুলো দেখতেই বেশী সময় ব্যয় হচ্ছে বলে সূত্র জানায়।
তবে বিশেষজ্ঞ মহলের ধারণা, দুষ্কৃতিকারীরা তাদের উদ্দেশ্য সফল করেছে। আপাতত কোন উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি দেখাতে পারেনি তদন্ত কমিটি।
দেশরিভিউ/শিমুল
SHARE