এশিয়ার উদীয়মান নৌ শক্তি ‘বাংলাদেশ নৌবাহিনী’

535


।।দেশরিভিউ।।
বাংলাদেশ নেভীর এ পর্যন্ত সবচেয়ে বড় সারপ্রাইজ ছিল দুটি মিং ক্লাসের সাবমেরিন ক্রয়।যদিওবা বাংলাদেশ নেভীর চাহিদানুযায়ী প্রয়োজনীয় আপগ্রেড করে দিয়েছে চীন ।যার ফলে সাব দুটি হান্টিং মিশনও পরিচালনা করতে সক্ষম।

বাংলাদেশ নেভীর সাবমেরিন ক্রয় নিয়ে আমাদের শত্রুপ্রতিম দেশ মায়ানমার সরাসরি কিছু বলেনি। তবে মায়ানমার নিজেদের সাবমেরিন ক্রয়ের ব্যাপারে আগের চেয়ে বেশী তোড়জোড় শুরু করেছে।তারা ভারত হতে “সাইনা” টর্পেডো যুক্ত করেছে।যেটির রেঞ্জ মাত্র ৫-৭ কিলোমিটার। যেখানে বাংলাদেশ নৌবাহিনী ইটি-৪০ টর্পেডো ব্যবহার করে।যেগুলোর রেঞ্জ ৩০ কিলোমিটার।

অপরদিকে আমাদের বন্ধুপ্রতিম দেশ ভারত প্রকাশ্যেই তাদের আপত্তির কথা জানান দেয়।বিভিন্ন টিভি চ্যানেল আর নিউজপেপারের সুবাধে আপনারা হয়ত দেখেছেন। তবে এক্ষেত্রে বাংলাদেশ সরকার কারো ধার ধারেনি।বাংলাদেশ নেভী ঠিকই বহরে এ দুটি সাবমেরিন যুক্ত করে।

বাংলাদেশ নেভী আপাতত মোট ৮ টি সাবমেরিন বহরে রাখার চিন্তা ভাবনা করছে যার কার্যক্রম চলমান।আমি মনে করি আমাদের সমুদ্রসীমানার নিরাপত্তার জন্য এই ৮টি সাবমেরিনই যথেষ্ট।যে কোন আক্রমণকারী দেশ সমুদ্রপথে হামলা করার আগে অন্তত ৮০০ বার ভাববে।এই সাবমেরিনগুলোর জন্য বৃহৎ আকারের একটি সাবমেরিন বেইজ বানানোরর পরিকল্পনাও চলমান রয়েছে।নেভী ২০৩০ সাল নাগাদ ১২ টি ফ্রিগেট সার্ভিসে রাখবে।এছাড়া ১৬-২০ টি কর্ভেট রাখারও পরিকল্পনা রয়েছে।

হ্যামিলটন ক্লাস ফ্রিগেটগুলো আপাতত বাংলাদেশ নেভীর সবচেয়ে বড় জাহাজ।তাছাড়া আমাদের নেভীতে ছোট বড় মিলিয়ে প্রায় ১১০টির মত জাহাজ রয়েছে।যার মধ্যে ৪টি গাইডেড মিসাইল ফ্রিগেট এবং দুটি পেট্রল ফ্রিগেট,৬টি গাইডেড মিসাইল কর্ভেট, ৩৮টি (অফশোর পেট্রোল ভ্যাসেল,কোস্টাল পেট্রোল বোট), ২টি মাইনসুইপার, ৩০টি (অক্সিলিয়ারী শীপ, এলসিটি), এবং ৩২টি ছোট আকারের রেসপন্স বোট রয়েছে।তাছাড়া শীঘ্রই চাইনীজ TYPE-053H3 গাইডেড মিসাইল ফ্রিগেট ও অন্তর্ভুক্ত হতে চলেছে।

তাছাড়া বাংলাদেশ নেভী AUGESTA WESTLAND-109 চপার এবং DORNIER 228 বিমান পরিচালনার মাধ্যমে নিজস্ব এয়ার উইংও সফলভাবে পরিচালনা করছে। একইসাথে এন্টি সাবমেরিন অপারেশনের দুইটি AW-159 সাবমেরিন কিলার কিনেছে।যার ডেলিভারি এখনও পায়নি। #Defence Research Forum-DefRes

SHARE