এশিয়ার বাইরে ৯ বছর পর টাইগারদের সিরিজ জয়

152

ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ১৮ রানে হারিয়ে ৯ বছর পর এশিয়ার বাইরের মাটিতে সিরিজ জিতলো বাংলাদেশ। তৃতীয় ওয়ানডেতে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হারিয়ে  ২-১ ব্যবধানে সিরিজটা নিজেদের করে নিলো টাইগাররা।

তামিম ইকবালের সেঞ্চুরি ও মাহমুদুল্লাহর হাফ সেঞ্চুরিতে ৩০১ রানের বড় স্কোর গড়ে বাংলাদেশ। জবাবে ক্রিস গেইল, রভম্যান পাওয়েল ও শাই হোপের হাফ সেঞ্চুরিতেও জিততে পারেনি ক্যারিবিয়রা। ৬ উইকেটে থামে ২৮৩ রানে। ব্যাট হাতে ৩৬ রান করার পর বল হাতে দুই উইকেট নিয়েছেন মাশরাফী। ম্যাচ ও সিরিজ সেরা তামিম ইকবাল।

ঠিক যেনো নিদাহাস ট্রফি ফাইনালের সমীকরণ। ১২ বলে প্রয়োজন ৩৪ রান। বোলিংয়ে সেই রুবেল হোসেন। তবে ব্যাটিংয়ে এদিন আর দীনেশ কার্তিক নেই। ছিলেন রভম্যান পাওয়েল ও অ্যাশলে নার্স। সেদিনের দু:সহ স্মৃতি আর ফিরিয়ে আনেননি রুবেল। মাত্র ৬ রান দেন এ ডেথওভার স্পেশালিস্ট।
শেষ ওভারে যখন ২৮ রান প্রয়োজন তখন বাকি কাজটা সাড়েন মোস্তাফিজুর রহমান। এ বা হাতি পেসারের বোলিং ভ্যারিয়েশনে অসাধ্য সাধন করতে পারেনি ক্যারিবিয়রা। আর দীর্ঘ ৯ বছর পর বিদেশের মাঠে সিরিজ জয়ের অমৃত স্বাদ পেলো টিম বাংলাদেশ। যার নেতৃত্বে একজন মাশরাফী।
টস জিতে ব্যাট করতে নেমে ব্যর্থতার ধারাবাহিকতা ধরে রাখেন এনামুল হক।  এদিনও মাত্র ১০ রান করে জেসন হোল্ডারের শিকার তিনি। আবারো তামিম-সাকিব জুটি, আবারো ভালো কিছুর প্রত্যাশা। দুজনে গড়েন ৮১ রানের জুটি।
তবে সেট হয়েও উইকেট বিলিয়ে দেবার সেই পুরনো অভ্যাস এখনো দৃঢ়ভাবে ধরে রেখেছে বাংলাদেশ। ৩৭ রান করে অ্যাশলে নার্সের বলে ফেরেন সাকিব। একই বোলারের বলে স্লগ করতে গিয়ে কাটা পরেন মুশফিকুর রহিম।
শেষ দশ বছরের মধ্যে প্রথমবার ষষ্ঠ নম্বরে নেমে চমকে দেন মাশরাফী। তার ঝড়ো ব্যাটে রান রেট বাড়তে থাকে বাংলাদেশের। এর মাঝেই সিরিজে দ্বিতীয় আর ক্যারিয়ারের ১১তম সেঞ্চুরি তুলে নেন তামিম। ৭ চার আর ২ ছয়ে ১০৩ রান করে বিশুর শিকার এ বা হাতি ব্যাটসম্যান। ২৫ বলে ৩৬ রান করে থামেন মাশরাফী। সাব্বিরও এদিন ব্যর্থ। তবে ৬৭ রানে অপরাজিত থেকে দলকে বড় সংগ্রহ এনে দেন মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ।
৩০২ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে ক্যারিবিয়দের একটি উড়ন্ত সূচনার প্রয়োজন ছিলো। যেখানে বাধা হয়ে দাড়ান মাশরাফী বিন মোর্ত্তজা। সিরিজে তৃতীয়বারের মতো এভিন লুইসকে ফিরিয়ে ব্রেক থ্রু আনেন ক্যাপ্টেন ফ্যান্টাস্টিক।
এদিন নিজের আসল রূপে ফেরেন ক্রিস গেইল। চার ছক্কার ফুলঝুরিতে ব্যাকফুটে ঠেলে দেন বাংলাদেশী বোলারদের। ৬৬ বলে ৭৩ রান করা গেইলকে ফিরিয়ে টাইগার শিবিরে স্বস্তি ফিরিয়ে আনেন রুবেল হোসেন।
আগের ম্যাচের সেঞ্চুরিয়ান শিমরন হেটমায়ারও চেষ্টা করেছিলেন বড় ইনিংস খেলার। তার আগেই মেহেদি মিরাজের শিকার এ ইনফর্ম ব্যাটসম্যান। মিরাজের পরের ওভারেই রান আউট কাইরান পাওয়েল।
এ অফ স্পিনারের এক স্পেলে দুইবার জীবন পান শাই হোপ। একবার রুবেল হোসেন আর আরেকবার সাব্বির রহমান সহজ ক্যাচ ছাড়ের এ ক্যারিবিয় ব্যাটসম্যানের। সেই সুযোগে হাফ সেঞ্চুরি তুলে নেন শাই হোপ। ক্রমেই ভয়ংকর হয়ে ওঠা এ ক্যারিবিয় ব্যাটসম্যানকে সাকিব আল হাসানের তালুবন্দী করেন মাশরাফী।
৭৪ রানে অপরাজিত থেকে শেষ চেষ্টাটুকু করেছিলেন রভম্যান পাওয়েল। তবে তা যথেষ্ট ছিলো না।

দেশরিভিউ/এস এস