পুলিশের দুর্ধর্ষ সোয়াত দলের সদস্য এসআই লিয়াকত

257

।।দেশরিভিউ সংবাদ।।

অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহাকে গুলি করে হত্যার ঘটনায় কারাগারে থাকা প্রধান আসামি এসআই মোহাম্মদ লিয়াকত আলী ১০ বছর আগে পুলিশ বাহিনীতে যোগ দিয়েছিলেন। পরে তিনি সোয়াত টিমে অন্তর্ভূক্তি হয়ে দেশ বিদেশে বিশেষ প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত হন।

যুক্তরাষ্ট্রের সোয়াতের আদলে বাংলাদেশেও জঙ্গি ও সন্ত্রাস দমনের জন্য গঠিত হওয়া পুলিশের স্পেশাল উইপন্স অ্যান্ড ট্যাকটিক্স টিম- সোয়াত টিমটি মূলত আমেরিকার অর্থায়নে সেদেশে গিয়ে ট্রেনিংয়ে অংশ নেয়। তারা আমেরিকার সোয়াদের সব ইক্যুইপমেন্টে বিশেষ প্রশিক্ষনপ্রাপ্ত। সোয়াতের প্রতিটি সদস্য যুক্তরাষ্ট্র ও জর্ডানে অস্ত্র চালানোর প্রশিক্ষণ নিয়েছেন। সোয়াতের সদস্যরা ‘এআর-১০ স্নাইপার’ ও ‘এম-৪ কারবাইন’সহ দুরবিন লাগানো স্নাইপার রাইফেল দিয়ে এক কিলোমিটার দূরের লক্ষ্যবস্তুকে নির্ভুলভাবে আঘাত করতে পারেন। যে কারণে চোখের পলকে পরপর চারটি গুলি ছোড়েন লিয়াতক। সব গুলিই সিনহার শরীরে লাগে। মামলার এজাহারে চারটি গুলির কথা বলা হয়। তবে সুরতহাল প্রতিবেদনে সিনহার শরীরে ছয়টি জখমের কথা উল্লেখ করা হয়।

জানা গেছে, এসআই লিয়াকত সর্বশেষ কাউন্টার টেররিজম ইউনিটের সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। গত ১৮ জানুয়ারি বাহারছড়া পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ হিসেবে তিনি যোগদান করেন। সাড়ে ছয় মাস ধরে তিনি এই ক্যাম্পের ইনচার্জ হিসেবে দায়িত্বরত ছিলেন। যতদিন দায়িত্বে ছিলেন ততদিন বাহারছড়ায় ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করেছিলেন। এলাকার নিরীহ মানুষদের জিম্মি করে চাঁদা আদায় আর ক্রসফায়ারের জন্য সবসময় এলাকাবাসীর কাছে আতংক ছিলেন এসআই লিয়াকত।

এদিকে লিয়াকতের গুলি করার দক্ষতা নিয়ে জানতে চাইলে পুলিশ কর্মকর্তারা বলছেন, সোয়াতে নিয়োগ দেয়া হয় কঠোর শারীরিক পরিশ্রমের উপর বিশেষ নজর দিয়ে। পাশাপাশি শারীরিক উচ্চতা, সুস্থতা, মানসিক দৃঢ়তা ও খাটতে পারা- এসকল সক্ষমতা বিবেচনায় এখানে নিয়োগ দেয়া হয়। আর সোয়াট সদস্যদের প্রশিক্ষন আমেরিকার সোয়াটের আদলে হওয়ায় তাদের অস্ত্র চালনায় প্রচুর দক্ষতা থাকে।

উল্লেখ্য টেকনাফের শামলাপুর চৌকিতে তল্লাশির সময় বাহারছড়া পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ ও পুলিশ পরিদর্শক লিয়াকত আলী সিনহাকে লক্ষ্য করে চারটি গুলি ছোড়েন। সব গুলিই সিনহার শরীরে লাগে। এতে তিনি মাটিতে লুটিয়ে পড়েন এবং পড়ে মৃত্যুবরণ করেন।

SHARE