কথিত বৈঠকের খবর নাকচ করেছে দু’পক্ষই

101

শুক্রবার রাতে রাজধানীর একটি অভিজাত হোটেলে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের সঙ্গে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের বৈঠকের যে খবর ছড়িয়েছে তা নাকচ করেছে দু’পক্ষই।

বৈঠকের সত্যতা সম্পর্কে জানতে চাওয়া হলে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন: বিএনপির সঙ্গে বৈঠকে বসার খবর ভিত্তিহীন। কিছুদিনের মধ্যে নির্বাচন কমিশন জাতীয় নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করবে। এ অবস্থায় সংলাপের এখন আর সুযোগ নেই, এমনকি কোনো সম্ভাবনাও নেই।

গত শুক্রবার রাতে রাজধানীর একটি অভিজাত হোটেলে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি নেতারা একত্রিত হয়েছিলেন বলে সংবাদ চাউর হয়। ওই সংবাদের সূত্র থেকে জানানো হয়: বৈঠকে আওয়ামী লীগের সিনিয়র নেতাদের সঙ্গে দলটির সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের উপস্থিত ছিলেন। বিএনপির কয়েকজন সিনিয়র নেতাও ওই বৈঠকে উপস্থিত হন। কিন্তু, বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুলের আসার কথা থাকলেও তিনি অসুস্থতার অজুহাতে উপস্থিত হননি।

এ বিষয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন: নির্বাচনের আগে এমন অনেক কথা ছড়ায়। আমি এতটুকু বলবো, বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের সঙ্গে ইতিপূর্বে আমার অনানুষ্ঠানিক সাক্ষাত হয়েছে। সেখানে আমিই এগিয়ে গিয়ে তাকে জিজ্ঞাসা করেছি, ‘ফখরুল সাহেব কেমন আছেন।’ এ পর্যন্তই। তবে এগুলো বেশ আগের ঘটনা। সাম্প্রতিক সময়ে তার সঙ্গে আমার সাক্ষাত হয়নি।

আর মির্জা ফখরুলের সঙ্গে সাক্ষাতের সম্ভাবনাও কম বলে মনে করেন আওয়ামী লীগের এ নেতা। তিনি বলেন: তাদের দলের ভেতরেই অনেক সমস্যা। বিএনপির পার্টি অফিসেই এক নেতা আরেক নেতাকে সরকারের দালাল বলে। আবার যদি তিনি আমার সঙ্গে বৈঠকে বসেন, তাহলে লন্ডনের বিরাগভাজন হবেন কিনা কে বলতে পারে?

নির্বাচনকে সামনে রেখে এমন গুজব ছড়ালেও সংলাপের সম্ভাবনা দেখছেন না আওয়ামী লীগের এ নেতা। সেক্ষেত্রে ফোনালাপের মধ্যদিয়ে দু’দলের দূরত্ব অনেকাংশে কমিয়ে আনা সম্ভব হবে বলে মনে করছেন তিনি।

আওয়ামী লীগের পাশাপাশি বিএনপিও নাকচ করেছে এ বৈঠকের খবর। আলোচনায় আসা ওই খবরে বলা হয়: মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর না এলেও ওই বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন বিএনপির কয়েকজন সিনিয়র নেতা।

সত্যতা জানতে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তা সম্ভব হয়নি। তবে এ বিষয়ে দলটির কয়েকজন সিনিয়র নেতার সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়। নাম প্রকাশ না করা শর্তে তারা বলেন: এমন কোন বৈঠকের খবর তাদের জানা নেই। এমনকি কথিত ওই বৈঠকে দলের কোন নেতার উপস্থিতির সম্ভবনাও তারা উড়িয়ে দেন। এই খবরকে স্রেফ গুজব বলেই মনে করছেন তারা।

তবে সরকারের স্বদিচ্ছা থাকলে সংলাপে বসার ব্যাপারে বিএনপির আপত্তি নেই বলে জানিয়েছেন বিএনপির জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন ও দলের যুুগ্ম-মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল।

তারা বলছেন: বিএনপি মহাসচিব বারবার সংলাপের কথা বললেও সরকারের পক্ষ থেকে কোন সাড়া পাওয়া যায়নি। তাহলে এখন কী করার আছে? সংলাপের ডাক বিএনপি মহাসচিব দেবেন না। এটা সরকারের পক্ষ থেকে আসতে হবে।

সম্প্রতি সরকারের বাইরে থাকা কিছু রাজনৈতিক দলের সঙ্গে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদকের বৈঠকের উদাহরণ তুলে ধরে তারা বলেন: এখন ওবায়দুল কাদের সাহেব নিজেদের বিপদ বুঝতে পেরে দৌঁড় শুরু করেছেন। তিনি কারও কারও বাড়ি পর্যন্ত গেছেন। আমাদের মহাসচিবের বাড়িতে তিনি যদি যান, নিশ্চয়ই মহাসচিব তাকে বের করে দেবেন না। তবে সেক্ষেত্রে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগকে আলোচনার স্বদিচ্ছা নিয়ে এগিয়ে আসতে হবে।

দেশরিভিউ/এস এস