করোনাকালে জীবন ও জীবিকার দ্বন্দ্ব; মুক্তির উপায় কি ?

230

এডভোকেট মিঠুন বিশ্বাস

কোভিট ১৯ বা নোভেল করোনা  নামের এক অদৃশ্য  প্রাণঘাতী ভাইরাসের কারণে পুরো বিশ্ব আজ কার্যত স্থবির। উত্তর থেকে দক্ষিণ, পূর্ব থেকে পশ্চিম- বিশ্বের সব প্রান্তে পৌঁছে গেছে এই অদৃশ্য শত্রুর ভয়াল থাবা । এ পর্যন্ত প্রায় ৫০ লক্ষ মানুষের দেহে ছড়িয়েছে ভাইরাসটি। আক্রান্তদের মধ্যে তিন লাখের বেশি মানুষ প্রাণ হারিয়েছেন। অবশ্য সুস্থ হয়েছেন প্রায় ২০ লক্ষ। চীনের উহান প্রদেশ থেকে বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া ভাইরাসটির কোন ভ্যাক্সিন এখনো পর্যন্ত আবিস্কার করতে পারেননি বিজ্ঞানীরা। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা করোনাকে মহামারী হিসেবে ঘোষণা দিয়ে এর সংক্রমণ ঠেকাতে সব দেশকে সামাজিক দূরত্ব বা সোশ্যাল  ডিস্টেন্সিং নিশ্চিত করতে বলেছে। অনেক দেশের সরকার সংস্থাটির পরামর্শ মেনে করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে লকডাউন, জরুরী অবস্থা জারি করে নিজেদের দেশের সমস্ত কিছু বন্ধ করে দেয়। কিন্তু এরপরও করোনার সংক্রমণ থামানো যায়নি। ইতালী, ফ্রান্স,ব্রিটেন,স্পেন রাশিয়া, আমেরিকায় এখনো মানুষ করোনায় আক্রান্ত হচ্ছে- পুরোপুরি থামছেনা মৃত্যুর মিছিল।
বাংলাদেশে প্রথম এক ব্যক্তির শরীরে কোভিট-১৯ বা করোনা ভাইরাসের উপস্থিতি সনাক্ত হয় গত ৮ই মার্চ। আক্রান্ত ব্যক্তি ছিলেন ইতালী ফেরত। উল্লেখ্য, চীনের উহানে এই ভাইরাসের উৎপত্তি হলেও প্রায় পুরো বিশ্বে ছড়িয়েছে ইতালী ফেরত ব্যক্তিদের মাধ্যমে। প্রথম করোনা রোগী সনাক্তের পর থেকে বাংলাদেশেও দ্রুত বাড়তে থাকে আক্রান্তের সংখ্যা। এখনো পর্যন্ত প্রায় ২৭ হাজার মানুষের শরীরে সনাক্ত হয়েছে ভাইরাসটি। আক্রান্তদের মধ্যে প্রায় চারশো জনের মত মানুষ প্রাণ হারিয়েছেন। সুস্থ হয়ে বাসায় ফিরতে পেরেছেন প্রায় পাঁচ হাজারের বেশি আক্রান্ত রোগী। সরকার দেশব্যাপী করোনা ভাইরাস রোগ মোকাবেলায় এবং এর ব্যাপক বিস্তার রোধে সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসেবে গত ২৬ শে মার্চ থেকে কয়েক দফায় সাধারণ ছুটি ঘোষণা দিয়ে জনগণকে ঘরে থাকার নির্দেশনা দেয়। অবশ্য কাঁচা বাজার , খাবার, ওষুধের দোকান, হাসপাতাল এবং গ্যাস, ইন্টারনেট, টেলিফোন সেবার মত অতি জরুরী পরিসেবারগুলো সাধারণ ছুটির আওতার বাইরে রাখা হয়েছে প্রথম থেকে। এখনো পর্যন্ত এই সাধারণ ছুটি বা অঘোষিত লকডাউন আইনত অব্যাহত আছে। করোনার মৃত্যু ভয়ে ভীত হয়ে বেশিরভাগ মানুষ সরকারের এই ঘোষণা মেনে হোম কোয়ারেন্টিন পালন করছেন।

সাধারণ ছুটি বা স্বাভাবিক অর্থনৈতিক কর্মকান্ড বন্ধ আজ বহুদিন। বেশ কিছু রপ্তানীমূখী তৈরি পোশাক কারখানার উৎপাদন চালু থাকলেও সাধারণ ছুটির কারণে দেশের অর্থনৈতিক কর্মকান্ড প্রায় পুরোপুরিভাবে বন্ধ। ফলে কর্মহীন হয়ে পড়েছে হাজার হাজার অতি দরিদ্র, নিন্মবিত্ত মানুষ। অঘোষিত লকডাউনের প্রথমদিকে সরকারী- বেসরকারী উদ্যোগে অনেককে কর্মহীন নিন্মবিত্ত পরিবারের পাশে খাদ্য ,অর্থ সহায়তা নিয়ে দাঁড়াতে দেখা গেছে। কর্মহীন নিন্মবিত্ত মানুষের জন্য এখনো সরকারী ত্রান কার্যক্রম অব্যাহত থাকলেও বেসরকারী উদ্যোগ সময়ের পরিক্রমায় স্বাভাবিকভাবে স্থিমিত হতে শুরু করেছে। এই পরিস্থিতিতে জীবিকার প্রয়োজনে বহু মানুষ বাধ্য হচ্ছেন ঘর ছেড়ে কাজের সন্ধানে বের হতে।একদিকে পেটে ক্ষুদা, ঘরে খাবার নেই অন্যদিকে অদৃশ্য করোনার ভয়। ক্ষুধার্ত অসহায় মানুষকে আসলেই করোনার ভীতি আর আটকে রাখতে পারছেনা ঘরে। ফলে কার্যত অঘোষিত লকডাউন ভেঙ্গে পড়ছে। সরকারও বহুক্ষেত্রে বাস্তবতা বিবেচনায় মানবিক কারণে জীবিকার প্রয়োজনে ঘর থেকে বের হওয়া অনাহারী মানুষ গুলোর ব্যাপারে শৈথিল্য দেখাতে বাধ্য হচ্ছে। ধীরে ধীরে স্বাভাবিক করার চেষ্টা করছে জীবিকার পথ।
কিন্তু এই ইস্যুতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তোলপাড় চলছে। কারণ অনেকেই সরকারের এমন শৈথিল্যে নাখোশ। তাঁদের দাবী করোনা মহামারীর এই মুহুর্তে মানুষকে রাস্তায় বের হতে দেয়া আত্মঘাতী সিদ্ধান্ত। তাঁদের এক কথা – “আগে জীবন তারপর জীবিকা “। আসলেই কি আগে জীবন তারপর জীবিকা ?

ধরুন, দীর্ঘদিন সম্পূর্নভাবে অর্থনৈতিক কর্মকান্ড বন্ধ থাকার পরেও আর্থিক সক্ষমতা থাকায় একজন ব্যক্তির কাছে আগামী আরো বেশ কিছুদিন বাসায় থেকেও সংসারের খরচ চালানোর মত যথেষ্ট পরিমাণ অর্থ জমা আছে। অথবা তিনি যে প্রতিষ্ঠানে চাকুরি করেন সেখান থেকে লকডাউন পরিস্থি্তিতে কাজ না করেও বাসায় বসে নিয়মিতভাবে বেতন পাচ্ছেন এবং ভবিষ্যতেও পাওয়ার ব্যাপারে পুরোপুরি নিশ্চিত। তিনি কি এই মুহুর্তে করোনায় আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি নিয়ে কাজে বের হতে চাইবেন ? নিশ্চিতভাবেই তিনি এই ঝুঁকি নেবেন না। কারণ মানুষ নিজের জীবনের চেয়ে বেশি অন্য কিছুকে ভালবাসেনা। সুতরাং যেহেতু ঘর থেকে বের না হয়েও খরচ চালানোর মত সামর্থ্য আছে তাই তাঁর কাছে এই মুহুর্তে অবশ্যই আগে জীবন তারপর জীবিকা।
কিন্তু অন্যদিকে গত প্রায় দুই মাস ধরে কর্মহীন অবস্থায় ঘরে বসে থাকায় একজন দিনমজুরের জমানো টাকা শেষ। তাঁর হাতে নিজের,সন্তানের, স্ত্রীর জন্য খাবার কেনার,ঘরভাড়া দেয়ার টাকা নেই। ত্রাণ সহায়তাও মিলছেনা আগের মত। তাঁর এই মুহূর্তে কি করা উচিত? লকডাউন মেনে করোনা থেকে বাঁচতে অনাহার, অপুষ্টির কারণে স্ত্রী সন্তানসহ ধুঁকে ধুঁকে মরার জন্য অপেক্ষা করবেন নাকি পেটের দায়ে কাজের সন্ধানে ঘর থেকে বের হবেন? তাঁর কাছে এই পরিস্থিতিতে জীবন আগে নাকি জীবিকা?  নিশ্চয় জীবিকা।
প্রকৃত পক্ষে জীবিকার নিশ্চয়তা ছাড়া জীবন অর্থহীন। জীবিকার মাধ্যমে অর্জিত অর্থ দিয়েই জীবন চলে- প্রাণ বাঁচে। সুতরাং যাঁরা প্রায় দুইমাস জীবিকার সব পথ বন্ধ থাকার পরেও ‘আগে জীবন পরে জীবিকা’ তত্ত্বে এখনো সবকিছু বন্ধ রাখার দাবিতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিপ্লব করছেন নিজেদের ব্যাংক একাউন্টে ভবিষ্যতে চলার মত পর্যাপ্ত টাকা না থাকলে – ঘরে খাবার না থাকলে কি তাঁরা একই কথা বলতেন ? অপ্রিয় সত্য হল করোনা, লকডাউন, কোয়ারেন্টাইন এসব উপভোগ করছেন বিশ্বের মাত্র ১৫ শতাংশ মানুষ। বাকী ৮৫ শতাংশ মানুষের কাছে এসব বিলাসিতা ছাড়া আর কিছুই নয়।
করোনা থেকে বাঁচতে লকডাউন অব্যাহত রাখা বা সবকিছু বন্ধ রেখে মানুষকে ঘর বন্দী করে রাখতে পারলেই যে করোনা ভাইরাসের বিস্তার বন্ধ হবে – এই রোগে কোন মানুষ প্রাণ হারাবেনা এমন কোন সম্ভাবনাও নেই। কারণ বিশ্বের কোন দেশে লকডাউন দিয়ে করোনা ভাইরাসকে ঠেকানো গেছে এমন কোন নজীর নেই। লকডাউন দিয়ে আমেরিকা, ফ্রান্স, ইতালী বা ব্রিটেন – কোথাও তো মৃত্যুর মিছিল থামানো যায়নি। চিকিংসা বিজ্ঞানীরা বা বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাও লকডাউনকে একমাত্র সমাধান বলেনি। বরং তাঁরা বলছেন ভ্যাক্সিন আবিস্কার না হওয়া পর্যন্ত এই ভাইরাস থেকে মুক্তি নেই। লকডাউন বা সামাজিক দূরত্ব সাময়িক সমাধান মাত্র।
ধরা যাক, আগামীকালই সফলভাবে করোনার ভ্যাক্সিন আবিষ্কার করতে সক্ষম হলেন বিজ্ঞানীরা। কিন্তু বিশ্বের মোট প্রায় সাতশ সত্তর কোটি মানুষের কাছে এই ভ্যাক্সিন পৌঁছতে কত বছর লাগবে? ততদিন কি একটি দেশের পক্ষে সবকিছু বন্ধ করে দিয়ে সব মানুষকে ঘরে বন্দী রেখে লকডাউন কার্যকর রাখা সম্ভব ? তাছাড়া করোনা কখন নিঃশেষ হবে কেউ তো জানেনা।

আসলে কোন দেশই সে পথে হাঁটছেনা। বরং সব দেশ করোনার ঝুঁকি মেনেই ধীরে ধীরে অর্থনৈতিক কর্মকান্ড স্বাভাবিক করার পদক্ষেপ নিচ্ছে। চেষ্টা করছে করোনার সংক্রমণ কমিয়ে- জীবন ও জীবিকা – দুইয়ের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে। পথ খুঁজছে বিরাট অর্থনৈতিক ক্ষতির ধাক্কা সামলানোর। এটি নিঃসন্দেহে কঠিন পথ। কিন্তু বিকল্প উপায় তো নেই। সামনে যে অপেক্ষা করছে  দুর্ভিক্ষ – বিশ্ব মহা অর্থনৈতিক মন্দা!
আমাদের দেশে গত দুই মাসের লকডাউনে অর্থনীতির যে বিরাট ক্ষতি হয়েছে এর প্রভাব নিঃসন্দেহে ধনী গরীব সবার উপর পড়বে। মন্দার কারণে হাজার হাজার ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী পুঁজি হারিয়ে নিঃস্ব হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনার সাথে বৃহৎ শিল্প প্রতিষ্ঠানেও চাকরী হারানোর শঙ্কায় হাজার হাজার শ্রমিক। ইতিমধ্যে কয়েক হাজার প্রবাসী শ্রমিককে মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশ থেকে চাকরীচ্যুত করে দেশে পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে। আরো কয়েক লাখ প্রবাসী শ্রমিককে অচিরেই দেশে ফেরত পাঠানোর পরিকল্পনার কথা সরকারকে জানিয়ে দিয়েছে জনশক্তি আমদানীকারক দেশগুলো। অর্থনৈতিক কর্মকান্ডে স্থবিরতার ফলে বর্তমান পরিস্থিতেও দেশে অনেক প্রতিষ্ঠান কর্মীদের বেতন দিতে পারছেনা- মন্দার কারণে অনেক কর্মীকে আগাম ছাঁটাই করতে বাধ্য হচ্ছে।
এই অর্থনৈতিক সংকট বৈশ্বিক। খোদ আমেরিকাতে শুধুমাত্র করোনার মহামারীর কারণে সবকিছু বন্ধ থাকায় নতুন করে প্রায় তিন কোটি মানুষ চাকরি হারিয়ে বেকার হয়ে পড়েছে।
যাঁরা আগে জীবন পরে জীবিকার কথা বলে এখনো সবকিছু বন্ধ রাখার কথা বলছেন – লকডাউন কার্যকর করতে সরকারকে কঠোর হতে বলছেন তাঁরা আসলে অনুধাবন করতে পারছেন না ক্ষুধার কস্ট কেমন , কি এক কঠিন পরিস্থিতি আসছে সামনে! তাঁদের এই ব্যর্থতা বা নীরবতার কারণ অর্থনৈতিক নিরাপত্তা। আসলে তাঁদের খাবারের কস্ট নেই, ঘরভাড়ার চিন্তা নেই। কিন্তু সারাদেশের প্রায় ৭০ লক্ষ পরিবহণ শ্রমিক, হাজার হাজার দিনমজুর, দোকান কর্মচারী, কারখানা শ্রমিক,ভিক্ষুক,পথশিশুর তো মাসের পর মাস বসে বসে খাওয়ার মত টাকা নেই। এই পরিস্থিতিতে এঁদের ঘরে খাবার নেই, মাথা গোঁজার ঠাই নেই। অনাহারে,অপুষ্টিতে এঁরা তিলে তিলে মৃত্যুর দিকে ধাবিত হচ্ছে নীরবে। তাঁদের কথা তো  রাষ্ট্রকে ভাবতে হবে। এঁদের সংখ্যা তো কয়েক কোটি।
এত দীর্ঘ সময় দেশের অর্থনীতি স্থবির থাকায় জাতির সামনে এক ভয়াবহ কঠিন পরিস্থিতি অপেক্ষা করছে যা প্রকৃতপক্ষে কারোরই কাঙ্ক্ষিত নয়। তাই অর্থনৈতিক কর্মকান্ড চালু করতে হবে দ্রুত। মানুষের জীবিকার সব রুদ্ধ দ্বার খুলে দিতে হবে।স্বাভাবিক করতে হবে জনজীবন। সরকার ইতিমধ্যে করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে দেশের সম্ভাব্য আর্থিক ক্ষতি মোকাবেলায় প্রায় ৭৩ হাজার কোটি টাকার আর্থিক সহায়তা ঘোষণা দিয়েছে। অতি দরিদ্র মানুষের জন্য খাদ্য সহায়তা ছাড়াও দেশের কৃষি, শিল্প খাতের উৎপাদন সচল রাখার জন্যই এই বিশেষ প্যাকেজ। এগুলো যথার্থ অর্থে সরকারের সময়োপযোগী পদক্ষেপ। অন্য রাষ্ট্রগুলো তাই করছে। এখন সরকারের সামনে বড় চ্যালেঞ্জ হল এই অর্থের যথাযথ ব্যবহার নিশ্চিত করা।
অর্থনৈতিক কর্মকান্ড পুনরায় চালু করতে গিয়ে, জীবনযাত্রাকে স্বাভাবিক করতে হয়ে করোনা ভাইরাসকে তুচ্ছ ভাবার বিন্দুমাত্র সুযোগ নেই। এটি অবশ্যই একটি প্রাণঘাতী ছোঁয়াচে রোগ। এই ভাইরাসে আক্রান্তদের ৮০-৮৫ শতাংশ ঘরে এবং ১৫-১৮ শতাংশ হাসপাতালে সাধারণ চিকিৎসায় পুরোপুরি সুস্থ হলেও বৈশ্বিক হিসেবে গড়ে ২ শতাংশ মানুষ মারা যাচ্ছে। সংখ্যার হিসেবে মৃত্যু হার মাত্র দুই শতাংশ হলেও মোট আক্রান্তের হিসেবে মৃত্যুর সংখ্যা যথেষ্ট উদ্বেগের –শঙ্কার। তবে ম্যালেরিয়া, নিমোনিয়া, হৃদরোগ, কিডনির জটিলতা, কিংবা ক্যান্সার – কোন জটিল রোগেরই মৃত্যুহার একেবারে শূন্য নয়। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তথ্য অনুযায়ী শুধুমাত্র ইনফ্লুয়েঞ্জা জনিত রোগেই প্রতি বছর সারাবিশ্বে প্রায় ৬ লাখ ৫০ হাজার মানুষ মারা যায়।। অর্থাৎ প্রতি মাসে ৫৪ হাজারের বেশি মানুষ শুধুমাত্র সাধারণ জ্বর সর্দি কাশিতে মারা যাচ্ছে। শুধুমাত্র ইনফ্লুয়েঞ্জা নয় ,পানিবাহিত রোগ পানিবাহিত রোগ ডায়রিয়ায় ২০১৭ সালে প্রায় ১৬ লক্ষ মানুষ মারা গেছে। টিকা থাকা সত্ত্বেও ২০১৮ সালেও ১৫ লক্ষ মানুষ যক্ষায় মারা গেছে।
এইসব খবর অবশ্য কোন মিডিয়ায় সেভাবে আসেনা- তোলপাড় হয়না ফেসবুক, লকডাউন হয়না কোন অঞ্চল – যেমনটা হচ্ছে করোনায়। যদিও ডায়রিয়া, যক্ষা, ইনফ্লুয়েঞ্জাও করোনার মতো ছোঁয়াচে রোগ।

যেহেতু কোভিট ১৯ বা করোনা মারাত্মক ছোঁয়াচে রোগ তাই বাস্তবতা বিবেচনায় সবকিছু খুলে দিলে স্বাভাবিকভাবেই সংক্রমণের হার বাড়বে।  বিশ্বের অন্যতম ঘন বসতির দেশ হিসেবে আমাদের শঙ্কাটাও এক্ষেত্রে অন্যদের চেয়ে বেশি। তাই অর্থনৈতিক কর্মকান্ড চালু করার সাথে সাথে আক্রান্তদের পর্যাপ্ত চিকিংসার ব্যবস্থা নিশ্চিত করা অত্যন্ত জরুরী। চিকিংসা সেবা প্রাপ্তির অধিকার একজন মানুষের প্রাথমিক মৌলিক অধিকার। তাই যেকোন মূল্যে প্রতিটা মানুষের এই অধিকারটি নিশ্চিত করা রাস্ট্রের নৈতিক দায়িত্ব। কিন্তু আমাদের দেশের চিকিংসা সেবা খাত প্রায় পুরোটাই বেসরকারী উদ্যোক্তাদের দখলে। এটি অবশ্য রাষ্ট্রের অর্থনৈতিক চরিত্রের ফল- দেশটা তো সমাজতান্ত্রিক নয় বরং পুঁজিবাদী। করোনার এই সংকটে বেসরকারী হাসপাতালগুলোর মালিকদের স্বার্থপর ভূমিকা মানুষকে আহত করেছে। সত্যিকার অর্থে তাঁদের প্রতি সাধারণ মানুষের আস্থা নেই। তাই এই পরিস্থিতিতে রাষ্ট্রকেই ভূমিকা নিতে হবে- মানুষের পাশে দাঁড়াতে হবে। এজন্য সরকারের স্বাস্থ্য বিভাগের প্রতি মানুষের আস্থা বাড়ানোর কার্যকর উদ্যোগ নিতে হবে। বৃহত্তর স্বার্থে দায়িত্ব থেকে কাউকে সরিয়ে দিতে হলে সেটিও করা উচিত। মোট কথা করোনা ভাইরাসে আক্রান্তদের জন্য নিশ্চিত করতে হবে সর্বোচ্চ চিকিৎসা সেবা। অবশ্য এখনো পর্যন্ত করোনা আক্রান্ত মানুষ যেটুকু সেবা পেয়েছেন বা পাচ্ছেন তার প্রায় সবটাই রাস্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানেই – বেসরকারী হাসপাতালে নয়। কারণ বেসরকারী হাসপাতালগুলো সেভাবে এগিয়ে আসেনি কোথাও। উল্টো অনেক ক্ষেত্রে বেসরকারী হাসপাতালে রোগীর চিকিৎসা বঞ্চিত হওয়ার ঘটনা ঘটেছে – এমনকি বিনা চিকিৎসায় প্রাণ হারানোর মত অমানবিক দৃষ্টান্তও আছে বেশকিছু। তাই এই ক্রান্তিলগ্নে সরকারী হাসপাতালের বাইরে আধুনিক সুযোগ সুবিধা সম্বলিত বেসরকারী হাসপাতালগুলোতেও করোনায় আক্রান্ত রোগীদের সেবা প্রাপ্তি নিশ্চিত করতে কঠোর ভূমিকা নিতে হবে সরকারকে। প্রয়োজনে বেসরকারী হাসপাতালগুলোকে সাময়িক ভাবে রাষ্ট্রীয়করণ করা হোক। মানুষের জীবনের প্রয়োজনে এই জাতীয় সংকটে সরকার কঠোর হলে গুটিকয়েক ব্যবসায়ী ছাড়া বেশিরভাগ মানুষ অবশ্যই সরকারের পাশে থাকবে। মূল কথা, এই সংকটে রাষ্ট্র বা সরকারকেই দাঁড়াতে হবে মানুষের পাশে- পুঁজিপতি বেসরকারী হাসপাতালের মালিকেরা অতীতে যেমন দাঁড়াননি ভবিষ্যতেও দাঁড়াবেন না । মানুষের বিপদে তাঁদের এই নীরবতা স্বাভাবিক। কারণ করোনার চিকিংসায় মুনাফা কম – বরং ঝুঁকি বেশি। পুঁজির ধর্মই তো মুনাফা। তাই জীবন তাঁদের কাছে গৌণ – মুনাফাই মূখ্য।
করোনার এই পরিস্থিতিতে সবকিছু খুলে দেয়া নিঃসন্দেহে সরকারের একটি ঝুঁকি পুর্ণ সিদ্ধান্ত হবে। কিন্তু এছাড়া আর উপায় কি? করোনায় মারা যেতে পারে এই ভয়ে হাজার হাজার মানুষকে নিশ্চিতভাবে অনাহারে অপুষ্টিতে ধুঁকে ধুঁকে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দেয়া তো সমাধান নয়। করোনায় সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত দেশ আমেরিকা, ইতালী ফ্রান্স, ব্রিটেন, ইরান, ব্রাজিল, পার্শ্ববর্তী ভারত পাকিস্তান প্রত্যেকেই সবকিছুতো খুলে দিচ্ছে । তাদের মত বড় অর্থনৈতিক শক্তি যদি এতদিনের লকডাউনের বোঝা বইতে না পারে আমাদের মত দেশের পক্ষে কিভাবে সেটি সম্ভব?
করোনাকে যুদ্ধ হিসেবে নিয়েছিল পুরো বিশ্ব। এখনো এই অদৃশ্য শত্রুকে হারানো যায়নি। কিন্তু মানব সভ্যতার ইতিহাসে করোনাই তো একমাত্র অদৃশ্য শত্রু নয়। এর আগেও বহুবার প্রকৃতির সঙ্গে লড়াই করতে হয়েছে মানুষকে। মাত্র একশ বছর আগেও স্প্যানিশ ফ্লু নামক এক অদৃশ্য প্রাণঘাতী ভাইরাসের হাতে প্রাণ দিতে হয়েছে পাঁচ কোটি মানুষকে। তৎকালীন মোট বিশ্ব জনসংখ্যার বিচারে মৃতের এই অংকটি বিশাল। কিন্তু মানবজাতি শেষ হয়ে যায়নি। বৈরি প্রকৃতির সঙ্গে লড়াই করে আবার ঘুরে দাঁড়িয়েছে- সভ্যতাকে এগিয়ে নিয়ে গেছে।
এই নশ্বর পৃথিবীতে জন্ম মৃত্যু একটি স্বাভাবিক প্রক্রিয়া। এই প্রক্রিয়ায় সাতশ সত্তর কোটি মানুষের এই পৃথিবীতে প্রতিদিন গড়ে দুই লাখের বেশি মানুষকে স্বাভাবিকভাবেই বিভিন্ন রোগ,দুর্ঘটনা ,বার্ধক্য প্রভৃতি কারণে পৃথিবীর মায়া ত্যাগ করে চলে যেতে হয়। মৃত্যুর এসব প্রচলিত আদি কারণের সাথে নতুন করে যুক্ত হল করোনা নামক ভাইরাসটি। যদিও শক্তি হারিয়ে ক্রমশ দুর্বল হচ্ছে করোনা। বিশ্বব্যাপী মৃত্যুর সংখ্যা কমছে- বাড়ছে সুস্থতার হার।
করোনা এযাত্রায় হইতো আমাকে,আপনাকে পরাজিত করবে – জীবন কেড়ে নেবে – কিন্তু পুরো মানবজাতিকে কী পরাজিত করতে পারবে? নিশ্চয় পারবেনা। মানবজাতির অতীত ইতিহাস সেটাই সাক্ষ্য দেয়।
তাই করোনার কাছে পরাজিত হওয়ার ভয়ে কাপুরুষের মত ঘরে বসে না থেকে নির্ধারিত স্বাস্থ্যবিধি মেনে আমাদের স্বাভাবিক জীবন যুদ্ধে নামার প্রস্তুতি নেয়া উচিত। আমরা কেউ তো অমর নই। মৃত্যুকে কি জয় করা যায়! মরতে তো আমাদের হবেই। কবি মাইকেল মধুসূদন দত্তের সে কথাগুলো তো মিথ্যে নয় –
“ জম্মিলে মরিতে হবে অমর কে কোথা কবে? চিরস্থির কবে নীর হায়রে জীবন নদে ?“

লেখকঃ আইনজীবী, জজ কোর্ট, চট্টগ্রাম।
ইমেইলঃ [email protected]
মোবাইলঃ 01819925106

SHARE