করোনারোগীর অভাব: কোন হাসপাতালে কতজন চিকিৎসাধীন

394


।।দেশরিভিউ সংবাদ।।
জুন মাসে চট্টগ্রামের হাসপাতাল থেকে হাসপাতাল ঘুরে মানুষের মৃত্যুর দৃশ্য দেখে শিউরে উঠেছিল বাংলাদেশ।
আইসিইউ সিটের বন্দোবস্তের জন্য কিংবা একটা অক্সিজেন সাপোর্টের জন্য মানুষের আকুতি নাড়া দিয়েছিল পৃথিবীর নানা প্রান্তে থাকা বাংলাদেশিদের। অথচ জুলাই মাসে সেই চট্টগ্রামের হাসপাতালগুলোর অর্ধেক শয্যাই খালি। এমনকি রোগীর অভাবে পর্যাপ্ত আইসিইউ বেড খালি আছে হাসপাতালগুলোতে।

সর্বশেষ ১৩ জুলাই (সোমবার) দুপুর পর্যন্ত চট্টগ্রামের সরকারী তালিকাভুক্ত কোভিড ডেডিকেটেড ৮টি হাসপাতাল এবং কয়েকটি বেসরকারী উদ্যোগে গড়ে উঠা আইসোলেশন সেন্টার থেকে এমন তথ্য পাওয়া গেছে।

সোমবার দুপুরে পর্যন্ত প্রাপ্ত তথ্যে জানা গেছে, নগরীতে সরকারী তত্বাবধানে থাকা ৮টি হাসপাতালে কোভিড আক্রান্তদের জন্য সর্বমোট ৬৫৭টি শয্যা রয়েছে। সোমবার দুপুর পর্যন্ত ৩১১ জন রোগী এই হাসপাতাল সমূহে ভর্তি থাকলে রোগীর অভাবে খালি রয়েছে ৩৪৬টি শয্যা। পাশাপাশি ৩৯টি আইসিইউ বেডের মধ্যে মাত্র ১৯ জন কোভিড আক্রান্ত রোগী ভর্তি রয়েছে। বর্তমানে এই হাসপাতালসমূহে খালি রয়েছে আরো ২০টি আইসিইউ বেড। অন্যদিকে নগরীর বিভিন্ন স্থানে বেসরকারী পর্যায়ে গড়ে উঠা আইসোলেশন সেন্টার সমূহেও রোগীদের আনাগোনা কমে এসেছে। হালিশহরের প্রিন্স অব চিটাগং কমিউনিটি সেন্টারে নির্মিত আইসোলেশন সেন্টার এবং পতেঙ্গার সিএমপি-বিদ্যানন্দ আইসোলেশন সেন্টার ছাড়া নগরীর অন্যান্য আইসোলেশন সেন্টারসমূহ এখন অনেকটা রোগীশূন্য।

প্রাপ্ত তথ্য অনুসারে সোমবার দুপুর পর্যন্ত চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে (চমেকে) সর্বোচ্চ সংখ্যাক রোগী ভর্তি ছিল। চমেকে ১৬০ শয্যার মধ্যে রোগী ভর্তি আছে ১৪১ জন, খালি রয়েছে ১৯টি শয্যা। চমেক হাসপাতালের ৫টি আইসিইউর সবগুলোতেই রোগী ছিল।

নগরীর আন্দরকিল্লায় চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালের ১৫০ শয্যার মধ্যে রোগী ভর্তি ৯৭ জন, রোগীশূন্য ৫৩টি শয্যা। এখানে ৬টি আইসিইউ বেডের মধ্যে ৪ জন রোগী ভর্তি থাকলেও খালি ছিল আরো ২টি আইসিইউ শয্যা।

ফৌজদারহাটের বিআইটিআইটিতে ৩২ শয্যার মধ্যে রোগী ভর্তি ১৮ জন, খালি ১৪টি শয্যা।

নগরীর আগ্রাবাদে চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতালে ২৮টি শয্যা থাকলেও রোগী ভর্তি ছিল ২২ জন, তখনো খালি ছিল ০৬টি শয্যা। এখানে থাকা ৬টি আইসিইউ বেডের মধ্যে ৬ জন রোগী ভর্তি থাকায় আর কোন আইসিইউ বেড খালি নেই।

অন্যদিকে নগরীর হলি ক্রিসেন্ট হাসপাতালের ১০০ শয্যার মধ্যে সোমবার দুপুরে মাত্র ৭ জন রোগী ভর্তি ছিল। ৯৩টি শয্যা এখানে খালি রয়েছে রোগীর অভাবে। এই হাসপাতালের ১০টি আইসিইউ বেডের মধ্যে ৮টি রোগীশূন্য। এসময় দুইজন রোগীকে আইসিইউতে চিকিৎসা নিতে দেখা গেছে।

নগরীর সিআরবিতে অবস্থিত বাংলাদেশ রেলওয়ে হাসপাতাল অনেকটা রোগীশূন্য। ১০০ শয্যার এ হাসপাতালে রোগী আছেন মাত্র ৩ জন। ৯৭টি শয্যা রোগীশূন্য বাংলাদেশ রেলওয়ের এই হাসপাতালে।

অন্যদিকে ফয়েসলেক এলাকার বঙ্গবন্ধু মেমোরিয়াল হাসপাতাল ইউএসটিসিতেও চলছে রোগীশূন্যতা। ৪৭ শয্যার এ হাসপাতালে রোগী ভর্তি আছে মাত্র ১৪ জন। রোগীর অভাবে খালি আছে আরো ৩৩টি শয্যা। এ হাসপাতালের ৩টি আইসিইউ বেডের সবগুলোই ফাঁকা।

চট্টগ্রাম সিটি গেটের অদূরে নির্মিত চট্টগ্রাম ফিল্ড হাসপাতালেও একই চিত্র। নগরীতে করোনা সংক্রমন কমার সাথে সাথে এখানেও কমেছে রোগীর সংখ্যা। ৪০ শয্যার এ হাসপাতালে মাত্র ৯জন রোগী ভর্তি ছিল সোমবার দুপুর পর্যন্ত। আইসিইউ বেডবিহীন এ হাসপাতালে খালি রয়েছে আরো ৩১টি জেনারেল শয্যা।

হাসপাতালের মতোই রোগীশূন্যতার একই চিত্র উঠে এসেছে নগরীর বিভিন্ন স্থানে নির্মিত বেসরকারী ও ব্যক্তি পর্যায়ের বিভিন্ন আইসোলশন সেন্টারগুলোতে। নগরীর হালিশহরের কিং অব চিটাগং কমিউনিটি সেন্টারে নির্মিত হওয়া ‘করোনা আইসোলেশন সেন্টার চট্টগ্রাম’ এবং পতেঙ্গায় অবস্থিত ‘সিএমপি-বিদ্যানন্দ’ আইসোলেশন সেন্টারে সোমবার দুপুরে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক রোগী থাকলেও নগরীর অন্যান্য আইসোলেশন সেন্টারসমূহ ছিল প্রায় রোগীশূন্য।

হালিশহরের ওয়াপদা মোড়ের করোনা আইসোলেশন সেন্টার চট্টগ্রাম থেকে প্রাপ্ত তথ্যে, এই আইসোলেশন সেন্টারে কোন আইসিইউ বেড না থাকলেও সীমিত সুযোগ-সুবিধা ও আন্তরিক সেবায় সুস্থ হয়ে উঠেছেন প্রায় দুই শতাধিক রোগী। করোনা পজেটিভ রোগীর পাশাপাশি এখানে সাসপেকটেড রোগীদের বিনামূল্যে চিকিৎসা এবং ফ্রি ঔষধ, খাবার দেয়া হচ্ছে। উন্নত পরিবেশের আশায় সরকারি বিভিন্ন হাসপাতাল থেকেও এখানে রোগীদের আসতে দেখা গেছে। সোমবার দুপুরে ১০০ শয্যার এ আইসোলেশন সেন্টারে ৩৫ জন পজেটিভ রোগী ভর্তি ছিল।

SHARE