করোনায় মৃত্যু তাই গাড়ি মিলছে না, খবর শুনে জিপ পাঠালেন ডিসি

66

।।দেশরিভিউ নিউজডেস্ক।।

বেসরকারি এনজিওর ঝিনাইদহের শৈলকুপা অঞ্চলের রিজিওনাল ম্যানেজার পদে চাকুরি করতেন আব্দুর রউফ। রবিবার ১২ জুলাই করোনায় তিনি মারা গেলে মরদেহ বাড়িতে নিতে পাওয়া যাচ্ছিল না কোনো যানবাহন। করোনায় মারা গেছে তাই কেউ গাড়ি ভাড়া দিতে রাজি হননি।

খবর শুনে জেলা প্রশাসনের গাড়ি নিয়ে ছুটে আসলেন ঝিনাইদদ সদরের উপজেলা নির্বাহী অফিসার বদরুদ্দোজা শুভ। সেই জিপেই মরদেহ পরিবহণ করে দাফনের ব্যবস্থা করা হয়।

এদিকে এমন খবর শুনে বসে থাকেন জেলা প্রশাসক সরোজ কুমান নাথও। নিজে চলে আসেন ঘটনাস্থলে। মরদেহ জেলা প্রশাসনের সেই জিপে করে ঠিকঠাক যাতে নেয়া হয় তা তদারকিও করেন তিনি।

জানা গেছে, করোনায় মারা যাওয়া আব্দুর রউফের বাড়ি একই জেলার কোটচাঁদপুরের দোড়া ইউনিয়নের সারুটিয়া গ্রামে। পরিবার পরিজন নিয়ে তিনি ঝিনাইদহ শহরের চানমারী পাড়ায় বসবাস করতেন।

তার স্বজনদের অভিযোগ, মৃত্যুর আগে তিনি কোন চিকিৎসা পাননি। কারণ হাসপাতালে নেয়া হলে বলা হয় সিট ফাঁকা নেই। পরে মারা গেলে লাশ বহনের কেউ যানবাহন ভাড়া দিতে রাজি হননি।

নিহতের শ্যালক মিনহাজ উদ্দীন জানান, তার দুলাভাই ৫/৬ দিন আগে করোনা পরীক্ষার জন্য নমুনা দিতে যান ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে। কিন্তু সুস্থ বলে তাকে ফিরিয়ে দেওয়া হয়। এরপর আব্দুর রউফ জ্বরে আক্রান্ত হলে কর্তৃপক্ষ নমুনা গ্রহন করে। তিন দিন আগে তার করোনা রিপোর্ট পজিটিভ আসে।

মিনহাজ উদ্দিন আরো বলেন, তার দুলাভাইয়ের অবস্থা অবনতি হতে থাকলে হাসপাতালে কোন সিট নেই বলে জানানো হয়। রবিবার দুপুরে পরিস্থিতি আরো খারাপ হলে হাসপাতলে নেওয়ার চেষ্টা করা হলে বাড়িতেই মৃত্যুবরণ করেন।

ঝিনাইদহ সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার বদরুদ্দোজা শুভ জানান, বিকালেই আব্দুর রউফের মৃতদেহ ঝিনাইদহ পৌর গোরস্থানে দাফন করা হয়েছে। ইসলামী ফাউন্ডেশনের উপ-পরিচালক আব্দুল হামিদ খান জানান, জেলা প্রশাসনের তত্ত্বাবধানে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের লাশ দাফন কমিটি আব্দুর রউফের জানাযা পড়িয়ে পৌর গোরস্থানে দাফন করে।

ঝিনাইদহ সদরে এ নিয়ে ২৪ জনের লাশ দাফন করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

SHARE