করোনা: নওফেলের চেষ্টায় ১৮ আইসিইউ চট্টগ্রামে

563


।।দেশরিভিউ সংবাদ।।
করোনা ভাইরাসের আক্রমণের পর থেকে চট্টগ্রামে এই রোগের চিকিৎসার প্রস্তুতি শুরু হয় পুরোদমে। করোনা রোগীদের চিকিৎসার জন্য নগরীতে নির্ধারণ করা হয় জেনারেল হাসপাতালকে। অল্প সময়ে সব প্রস্তুতি নেয়া হলেও ছিল না আইসিইউ সেবা। করোনা আক্রান্তদের মধ্যে গুরুতর রোগীদের প্রয়োজন হয় ভেন্টিলেটরসহ আইসিইউ ব্যবস্থা। তাই অতি প্রয়োজনীয় আইসিইউ চালু করতে উদ্যোগী হন চট্টগ্রাম-৯ আসনের সংসদ সদস্য শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল।

গত ৩১শে মার্চ আন্দরকিল্লাহ জেনারেল হাসপাতাল পরিদর্শনে আসেন মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল।

করোনা সংক্রমনের শুরুতেই গত ৩১ মার্চ তিনি চট্টগ্রামের আন্দরকিল্লা জেনারেল হাসপাতাল পরিদর্শনে আসেন। প্রথমবার পরিদর্শনে এসে হাসপাতালে ভেন্টিলেটরসহ আইসিইউ সেবা চালু করতে কী কী প্রয়োজন তা জেনে নেন তিনি।

চট্টগ্রামের স্বাস্থ্য বিভাগের মাধ্যমে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের কাছে জানানো হয় বন্দর নগরীর বাসিন্দাদের জরুরী চাহিদার কথা। এরপর ঢাকা স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ও অধিদপ্তরের সাথে সমন্বয় করেন শিক্ষা উপমন্ত্রী নওফেল। দ্রুতই প্রথম দফায় পাঁচটি ভেন্টিলটরের বরাদ্দ দেয়া হয়। কিন্তু এতেই চেষ্টা থামাননি শিক্ষা উপমন্ত্রী। চট্টগ্রামে ভেন্টিলেটরের গুরুত্বের বিষয়টি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে সরকারের উচ্চ পর্যায়ে অবগত করেন তিনি। এরপর বরাদ্দ মেলে আরো পাঁচটি ভেন্টিলেটরের। দ্রুত গতিতে চলতে থাকে ১০টি ভেন্টিলেটর বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের স্বতন্ত্র আইসিইউ ইউনিট স্থাপনের কাজ।

২৬ এপ্রিল বিকালে দ্বিতীয় দফায় জেনারেল হাসপাতাল পরিদর্শনে যান মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল।

গত ২৬শে এপ্রিল বিকালে নগরীর আন্দরকিল্লায় ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট সরকারি জেনারেল হাসপাতালে আবারো পরিদর্শনে যান শিক্ষা উপমন্ত্রী নওফেল।

দ্বিতীয় দফায় এ পরিদর্শনে গেলে হাসপাতালটির তত্ত্বাবধায়ক ডা. অসীম কুমার নাথসহ সংশ্লিষ্টরা নানা সমস্যার কথা তুলে ধরেন। এসময় সংশ্লিষ্ট ডাক্তাররা জানান, লোকবল ও যন্ত্রপাতির অভাবে রোগীদের চাহিদা মোতাবেক পর্যাপ্ত সেবা দেওয়া সম্ভব হচ্ছে না। এছাড়াও করোনা রোগীদের চিকিৎসা সেবায় আরো ভেন্টিলেটরের প্রয়োজনীয়তার কথাও জানানো হয় উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেলকে। এসময় চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালের সক্ষমতা বাড়ানোর আশ্বাস দেন নওফেল।

এই ইউনিটের জন্য আনুষাঙ্গিক যন্ত্রপাতি, অবকাঠামো এবং জনবল নিশ্চিত করতে পিছ পা হননি চট্টগ্রামবাসীর প্রিয় নওফেল। সঙ্গে তাঁর চেষ্টা জারি ছিল জেনারেল হাসপাতালের জন্যই কয়েক বছর আগে বরাদ্দ হওয়া আটটি ভেন্টিলেটর চালুর বিষয়ে। দুদকের একটি মামলা জনিত জটিলতায় এতদিন ভেন্টিলেটরগুলো গুদামে আটকে ছিল। মামলাজনিত জটিলতা থাকলেও মানুষের জীবন বাঁচানোর বিষয়টিকে প্রাধান্য দিয়ে সেই ভেন্টিলেটরগুলো চালু করতে প্রচেষ্টা চালিয়ে যেতে থাকেন শিক্ষা উপমন্ত্রী। সব কিছুর আগে মানুষের স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করা, এই নীতি ও প্রত্যয়ই তাঁর মূলমন্ত্র। যার আন্তরিক সদিচ্ছার সায় মিলেছে সরকারের দিক থেকেও।

গত ২৯ এপ্রিল স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের উপসচিব মো. আবু রায়হান মিয়া স্বাক্ষরিত স্মারকে সরকারের অনুমতির বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়।

সব মেঘ কেটে লিখিত অনুমতি মিলেছে সেই ৮টি আইসিইউ বেড ও ৮টি ভেন্টিলেটর চালুর। গত ২৯ এপ্রিল স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের (স্বাস্থ্য সেবা বিভাগ) উপসচিব মো. আবু রায়হান মিয়া স্বাক্ষরিত এক স্মারকে সরকারের অনুমতির বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের (স্বাচিপ) কেন্দ্রীয়  সাংগঠনিক সম্পাদক ডা. আ. ম.ম. মিনহাজুর রহমান।

মানুষের প্রতি নি:স্বার্থ ভালোবাসা আর ঐকান্তিক প্রচেষ্টার সুফল মিলেছে, নিশ্চিত হয়েছে রাষ্ট্রীয় সম্পদের সর্বোচ্চ ব্যবহার। দেশের মানুষের চিকিৎসা সেবা নিশ্চিত করতে সরকারের শতভাগ আন্তরিকতা ও প্রচেষ্টার বাস্তব প্রতিফলন ঘটে চলেছে চট্টগ্রামে। আর এ কাজে জনগণ ও সরকারের মধ্যে সেতুবন্ধন হয়ে দায়িত্ব পালন করেছেন চট্টগ্রামের মানুষের ভালোবাসায় সিক্ত নওফেল।

SHARE