কর্ণফুলীতে প্রকৌশলী ও হিসাবরক্ষককে বহিস্কার না করলে কঠোর কর্মসূচির হুঁশিয়ারি উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের

119

।। তাজুল ইসলাম শিবলী, দেশরিভিউ প্রতিনিধি ।।

কর্ণফুলী উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান বানাজা বেগম নিশির সাথে অসৌজন্যমূলক আচরণের প্রতিবাদে মানববন্ধন করেছেন উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগ। এসময় তারা প্রকৌশলী ও হিসাবরক্ষককে বহিস্কার না করলে কঠোর কর্মসূচির হুঁশিয়ারি দেন।

সকালে উপজেলা পরিষদ চত্ত্বরে অনুষ্ঠিত মানববন্ধন কর্মসূচিতে সংগঠনের নেতারা অভিযোগ করেন কর্ণফুলী এলজিআরডি অফিসে ঘুষ বানিজ্যের প্রতিবাদ করায় উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যানের সাথে অসৌজন্যমূলক আচরণ করেন প্রকৌশলী এবং হিসাবরক্ষক।

এসময় তারা দাবি করেন প্রকৃত তথ্য গোপন করে উল্টো তারা লাঞ্ছিত করে ভাইস চেয়ারম্যান বানাজা বেগম নিশি কে।

এসময় মহিলা আওয়ামী লীগের নেতারা বলেন এই দুই জনকে বহিষ্কার না করলে কঠোর কর্মসূচির হুমকি ও দেন তারা।

উল্লেখ্য এর আগে গত রোববার দুপুরে ঘুষ ছাড়া ফাইল না ছাড়ায় স্থানীয় সরকার প্রকৌশল বিভাগের (এলজিইডি) অফিস কক্ষে ভাংচুর ও হিসাব রক্ষককে মারধরের অভিযোগ উঠে উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান বানাজা বেগম নিশির বিরুদ্ধে।

অশ্লীল ভাষায় কথা বলা ও ফাইল প্রসেসিং জন্য ঘুষ দাবির অভিযোগে চট্টগ্রামের কর্ণফুলী উপজেলা প্রকৌশলী জয়শ্রী দে ও এলজিইডি বিভাগের সহকারী হিসাব রক্ষক রফিকুল ইসলামের বহিস্কারের দাবিতে মানববন্ধন করেছে উপজেলা মহিলা আওয়ামীলীগ।

এ ঘটনার পর সোমবার (২৭ জুলাই) বিকালে উপজেলা পরিষদ চত্বরে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

এতে বক্তারা বলেন, বানাজা বেগম একজন পরিচ্ছন্ন নেত্রী। উনার সুনাম ক্ষুণ্ণ করতে প্রশাসনের কিছু অসাধু লোক ষড়যন্ত্র করছে। যারা উনার বিরুদ্ধে এসব ষড়যন্ত্র করছে এবং উপজেলা প্রকৌশলী জয়শ্রী দে ও এলজিইডি বিভাগের সহকারী হিসাব রক্ষক রফিকুল ইসলাম অশ্লীল ভাষায় কথা বলা ও ফাইল প্রসেসিং জন্য ঘুষ দাবি করায় তাদের বহিস্কারের দাবি জানাচ্ছি।

এ ঘটনায় সোমবার সকালে চট্টগ্রাম স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক বরাবরে একটি লিখিত অভিযোগও দিয়েছেন উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান বানাজা বেগম নিশি। অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, ২০১৯-২০ অর্থবছরের ৫ কোটি টাকা বরাদ্দকৃত টাকা থেকে উপজেলা প্রকৌশলী জয়শ্রী দে ও সহকারী হিসাব রক্ষক রফিকুল ইসলামকে ঠিকাদাররের ৬% হারে ঘুষ দাবী করেন। ঘুষ দিতে না চাইলে দুইজনেই ফাইল আটকে রেখে বিভিন্ন অজুহাত দেখায় এবং প্রত্যেক ইউনিয়ন পরিষদ থেকেও ১% হারে ২ লাখ টাকা হাতিয়ে নেওয়ারও অভিযোগ রয়েছে তাদের বিরুদ্ধে। এছাড়াও প্রকৌশলী জয়শ্রী দে ও সহকারী হিসাব রক্ষক রফিকুল ইসলামের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ এনে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন তিনি।

SHARE