কলকাতায় বঙ্গবন্ধুর স্মৃতিবিজরিত বেকার হোস্টেলে ‘নতুন আবক্ষ ভাস্কর্য’

543
বঙ্গবন্ধুর স্মৃতিবিজরিত মওলানা আজাদ কলেজের (আগের কলকাতা ইসলামিয়া কলেজ) বেকার গভর্নমেন্ট হোস্টেল। ফাইল ছবি

।।দেশরিভিউ বিশেষ প্রতিনিধি।।
ভারতে পশ্চিমবঙ্গের কলকাতায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্মৃতিবিজড়িত বেকার হোস্টেলে বসেছে নতুন আবক্ষ ভাস্কর্য।

শনিবার মওলানা আজাদ কলেজে (আগের কলকাতা ইসলামিয়া কলেজ) বেকার গভর্নমেন্ট হোস্টেলে এ ভাস্কর্য প্রতিস্থাপন করেন বাংলাদেশের স্থানীয় সরকারমন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম। উপস্থিত ছিলেন পশ্চিমবঙ্গের বিপর্যয় মোকাবিলা দপ্তরের মন্ত্রী জাবেদ খান সহ প্রমুখ।

বেকার গভর্নমেন্ট হোস্টেলে এ ভাস্কর্য প্রতিস্থাপন করেন বাংলাদেশের স্থানীয় সরকারমন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম। উপস্থিত ছিলেন পশ্চিমবঙ্গের বিপর্যয় মোকাবিলা দপ্তরের মন্ত্রী জাবেদ খান সহ প্রমুখ।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৪২ সালে কলকাতা ইসলামিয়া কলেজে (বর্তমানে মৌলানা আজাদ কলেজ) ইন্টার মিডিয়েটে ভর্তি হয়ে ধর্মতলা স্ট্রিটের বেকার হোস্টেলের ২৪ নম্বর কক্ষে ওঠেন।

তিনি ১৯৪৬ সালে ইসলামিয়া কলেজ ছাত্র সংসদের সাধারণ সম্পাদক (জিএস) নির্বাচিত হন। কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে ইসলামিয়া কলেজ থেকে ১৯৪৭ সালে তিনি রাষ্ট্রবিজ্ঞান ও ইতিহাসে ব্যাচেলর ডিগ্রি অর্জন করেন।

পরে বঙ্গবন্ধুর স্মৃতিবিজড়িত হোস্টেলের কক্ষটি সংরক্ষণের উদ্যোগ নেয় ভারতের স্থানীয় সরকার। ১৯৯৮ সালে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের উদ্যোগে বেকার হোস্টেলের ২৩ ও ২৪ নম্বর কক্ষ নিয়ে গড়া হয় বঙ্গবন্ধু স্মৃতিকক্ষ। এই স্মৃতিকক্ষে এখনো সংরক্ষিত রয়েছে বঙ্গবন্ধুর ব্যবহৃত খাট, চেয়ার, টেবিল ও আলমারি। রয়েছে বইপুস্তকও।

বঙ্গবন্ধুর স্মৃতিঘেরা ২৪ নম্বর কক্ষে বঙ্গবন্ধুর ব্যবহৃত আসবাব, বইপুস্তক। ছবি: ভাস্কর মুখার্জী

তৎকালীন বাংলাদেশ সরকারের অনুরোধে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী জ্যোতি বসু ২৪ নম্বরের পাশের ২৩ নম্বর কক্ষটিকে যুক্ত করে স্মৃতিকক্ষ গড়ার উদ্যোগ নেন। সেই হিসাবে ১৯৯৮ সালের ৩১ জুলাই বঙ্গবন্ধু স্মৃতিকক্ষের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন পশ্চিমবঙ্গের তৎকালীন উচ্চশিক্ষামন্ত্রী অধ্যাপক সত্যসাধন চক্রবর্তী।

২০১১ সালে সেখানে নির্মিত হয় বঙ্গবন্ধুর একটি আবক্ষ ভাস্কর্য। বিদ্যমান ভাস্কর্যটিতে বঙ্গবন্ধুর চেহারা পুরোপুরি ফুটে না ওঠায় বাংলাদেশ তা পুনরায় প্রতিস্থাপনের উদ্যোগ নেয়।

কলকাতার বেকার হোস্টেলে শনিবার (০৩ আগস্ট) বঙ্গবন্ধুর নতুন আবক্ষ ভাস্কর্য প্রতিস্থাপন করেছেন বাংলাদেশের স্থানীয় সরকার মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম। মন্ত্রীর তত্ত্বাবধানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শাহনাজ ভবনে এটি তৈরি করেছেন শিল্পী লিটন পাল রনি।

বঙ্গবন্ধু নতুন আবক্ষটি উচ্চতায় ৩৬ ইঞ্চি এবং প্রস্থে ২৮ ইঞ্চি। ১৭০ কেজি ওজনের হালকা ধূসর ভাস্কর্যটি তৈরিতে ব্যবহার হয়েছে সিমেন্ট কাস্টিং। এর শিল্প নির্দেশক মো. আকতারুজ্জামান ও শেখ আসমান।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শাহনাজ ভবনে এটি তৈরি করেছেন শিল্পী লিটন পাল রনি। এর শিল্প নির্দেশক মো. আকতারুজ্জামান ও শেখ আসমান।

মন্ত্রী তাজুল ইসলাম ছাড়াও শনিবার ভাস্কর্য প্রতিস্থাপন অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন একই মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য, সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ এবং পশ্চিমবঙ্গের বিপর্যয় মোকাবিলা দপ্তরের মন্ত্রী জাবেদ খান প্রমুখ।

SHARE