কল সেন্টার ব্যবসায় দক্ষ কর্মী ও উদ্যোক্তাদের প্রস্তুতির অভাব

225

দক্ষ কর্মী আর উদ্যোক্তাদের প্রস্তুতির অভাবে বাড়ছে না দেশের কল সেন্টার ব্যবসা। বিশ্বে কল সেন্টার ব্যবসার বাজার যেখানে ৬০ হাজার কোটি ডলারের; সেখানে বাংলাদেশ ব্যবসা করে মাত্র ৩০ কোটি ডলারের। উদ্যোক্তারা বলছেন, নতুন এই ব্যবসা সম্পর্কে পরিস্কার ধারনা না থাকা ও দক্ষকর্মীর অভাবে বিশ্ব বাজারে প্রবেশ করতে পারছে না বাংলাদেশ।
বিশ্বে কল সেন্টারের ব্যবসার ধারণা তিন দশকের পুরোনো হলেও বাংলাদেশে প্রাতিষ্ঠানিক ভাবে এ খাতের যাত্রা শুরু হয় ২০০৮ সালে। বৈদেশিক মুদ্রা আয়ের বিশাল প্রত্যাশা নিয়ে ৪শ’রও বেশি লাইসেন্স দেয় সরকার।
বিটিআরসি’র তথ্য মতে, বর্তমানে কল সেন্টার চাল আছে মাত্র এক’শ কিছু বেশি। উদ্যোক্তারা বলছেন গণহারে লাইসেন্স নিয়ে ব্যবসা শুরু করলেও অল্প দিনেই তা মুখ থুবড়ে পড়ে।
বিশ্বে কল সেন্টারের বাজার বছরে ৬০ হাজার কোটি ডলারের। আর এ ব্যবসার র্শীষ স্থান দখল করে আছে ভারত; তারপরই ফিলিপিনস। বাংলাদেশ এই বাজারে ব্যবসা করে মাত্র ৩০ কোটি ডলারের।
ফিলিপিনসের একজন কর্মী এই খাতে কাজ করে গড়ে প্রায় ১৮ হাজার ডলার আয় করে। বাংলাদেশের একজন কর্মী আয় করে মাত্র সাড়ে সাত হাজার ডলার। এই বিশাল ফাঁরাকের কারণ হিসেবে উদ্যোক্তারা বলছেন, দেশে কল সেন্টারের ব্যবসার আয়ের ৯৮ শতাংশই আসে অভ্যন্তরীণ বাজার থেকে।
উদ্যোক্তারা বলছেন, দক্ষ কর্মীর অভাবে কলসেন্টারের ব্যবসা বাড়ছে না।
তিনি জানান, আগামী বছর থেকে ফিলিপিনস কল সেন্টারের ব্যবসায় ভ্যাট-ট্যাক্স অব্যাহতি তুলে নিতে যাচ্ছে। এতে বাংলাদেশের জন্য বড় বাজারের সুযোগ সৃষ্টি হবে বলে মনে করেন এই উদ্যোক্তা।

দেশরিভিউ/শিমুল

SHARE