কাশ্মিরিরা স্বাধীনতা চাইলেও পাকিস্তান ‘আজাদ কাশ্মীর’ স্বাধীন হতে দিবে না: মাওলানা মাসুদুল হক

2522


ভাইজান, আপনি যে কাশ্মির নিয়ে লাফাইতেছেন, এখনই চোখ বন্ধ করে ভাবেন তো আপনি আসলে কি ভেবে লাফাইতেছেন?

এই প্রজন্মের অনেকেই জানে না যে, ভারত ভাগের সময় ৫৫ কোটি টাকা রাজস্বের লোভে পাকিস্তানী নেতারা কাশ্মির ও হায়েদ্রাবাদের বিষয় ফয়সালা না করেই ভারত ত্যাগ করে। হায়েদ্রাবাদের মতো পূর্ব বাংলা তথা বাংলাদেশকেও ভারতের অন্তর্ভুক্ত করার দাবি এসেছিল। কিন্তু তৎকালীন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী পাটেলের অভিমত ছিল, পূর্ব বাংলা ভারতের অন্তর্ভুক্ত হলে ভারত টুকরো টুকরো হয়ে যাবে। ভারত ভাগের রেশ ধরে কাশ্মির সমস্যা সৃষ্টি।

সোশ্যাল মিডিয়ার একটি অংশ কাশ্মীর ইস্যুতে জেহাদি মনোবল জাহির করছে, যদিও বাস্তবে তাদের একজনও কাশ্মীরের লড়াইয়ে অংশগ্রহণ করবে না। এ নিয়ে বিএনপি নেতারা নীরবতা পালন করছে কেন তা নিশ্চয়ই অনেকে ভাবেন নি। মাতামাতি করা অশিক্ষিত জনগণের কিছু বিষয় জানা উচিত।

১. কাশ্মির দুটি অংশে বিভক্ত যা ভারত ও পাকিস্তানের অন্তর্গত।
২. পাকিস্তান এই দুটি অংশের একটি অংশ চীনকে অধিগ্রহণের সুযোগ করে দিয়েছে। অর্থাৎ কাশ্মির তিনটি।

৩. পাকিস্তান অধিকৃত কাশ্মিরিদিদের একটি অংশকে কাজে লাগিয়ে ভারতের অংশ সহ বালটিস্তান নামে একটি অঙ্গরাজ্য প্রতিষ্ঠা করতে চাচ্ছে, স্বাধীনতা নয়।

৪. ভারতের অধিকৃত কাশ্মিরের জনগণের বড় অংশ পাকিস্তানের সঙ্গে যেতে ইচ্ছুক নয়। ক্ষুদ্র একটি জঙ্গি অংশ পাকিস্তানের সঙ্গে এক হতে চায়। ভারতীয় কাশ্মিরের নেতারাও পাকিস্তানের সঙ্গে এক হতে চায় না।

৫. একথা ঠিক যে কাশ্মীর পৃথক দেশ হতে চাইলে জনগণ হয়তো সমর্থন দিবে। কিন্তু পাকিস্তান কখনোই আজাদ কাশ্মীর স্বাধীন হতে দিবে না। অন্যদিকে কাশ্মিরের জনগণের বিক্ষোভ মানে এই নয় যে তারা পাকিস্তানের সঙ্গে এক হতে চায়। ভারতের কোনো মুসলিম নেতাই কাশ্মিরকে পাকিস্তানের অংশ হিসেবে দেখতে চায় না।

রাজনীতি ও ইতিহাস সম্পর্কে অজ্ঞ যে ছাগু প্রজন্ম নতুন ও পুরোনো কিছু ভিডিও নিয়ে জেহাদী জোশ দেখাচ্ছেন, আপনারা কোন পক্ষে এটা কি নির্ধারণ করেছেন?

মুক্তিযুদ্ধের সময়কালে পাকি ও রাজাকারদের যৌনসেবা দেয়ার ফলে যেসব নারীরা সন্তান প্রসব করেছে, সেই সন্তানরা নিশ্চয়ই কাশ্মিরকে পাকিস্তানের অন্তর্ভুক্তই দেখতে চায়। কিন্তু স্বাভাবিক বিবেক যাদের আছে তারা কি ভাবে নি যে, পাকিস্তান তার অংশ না ছাড়লে ভারত কেন ছাড়বে?

মুসলমান কখনো দুই নৌকায় পা দেয় না, দুই মুখী সাপের আচরণ করে না। যদি এক নীতির মুসলমান হন তাহলে আওয়াজ তুলুন স্বাধীন কাশ্মিরের এবং পাকিস্তান ও চীনকে তাদের অধিকৃত অংশ ছাড়তে দাবি জানান। উইগুর মুসলমান আর কাশ্মিরের মুসলমানদের রক্ত ভিন্ন নয়। আর যাই করেন মুনাফেকি করবেন না। জামাত শিবিরের মুনাফেকি আমরা জানি, কিন্তু অন্যান্যরা বিবেকের কাছে প্রশ্ন করুন ইসলামপ্রীতি দেখাচ্ছেন না ভারত বিদ্বেষ?

মাওলানা ত্বাকি ওসমানি মওদুদী প্রসঙ্গে বলেছিলেন, আমেরিকায় বসে যদি কেউ ইসলামের বয়ান দেয় তাহলে মনে করতে হবে তার হক কথায়ও দুরভিসন্ধি আছে। কত সত্য কথা বলেছেন তিনি!

SHARE