কুড়িগ্রামে লবণ নিয়ে গুজব, মাইকিংসহ মাঠে পুলিশ

58


এজি লাভলু, কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি:
কুড়িগ্রামে মঙ্গলবার (১৯ নভেম্বর) বিকাল থেকেই গুজবের কারণে দ্বিগুণ হারে বৃদ্ধি পেয়েছে লবণের দাম। জেলাজুড়ে গুজব ছড়িয়ে পড়ার পর হাট-বাজারগুলোতে লোকজন লবণ কিনতে ঈদের ভিড় জমাতে শুরু করলে পেঁয়াজের মত হু-হু করে বৃদ্ধি পেতে থাকে নিত্যপণ্যটির মূল্য।

গুজবের কারণে ১৬ টাকা কেজি দরের খোলা লবণ কুড়িগ্রাম সদরের যাত্রাপুরসহ বিভিন্ন এলাকায় ৫০ থেকে ৬০ টাকা কেজি দরেও বিক্রি হয়েছে। অপরদিকে ৩৮ টাকার প্যাকেটজাত আয়োডিনযুক্ত লবণ বিভিন্ন জায়গায় ৪০ থেকে ৭০ টাকা মূল্যেও বিক্রি করা হয়।

স্থানীয় বাজারগুলো ঘুরে দেখা যায়, কেউ ব্যাগ নিয়ে আবার কেউবা বস্তাসহ ভিড় জমিয়েছেন বাজারের দোকানগুলোতে। ফলে এই সুযোগেই লবণের মূল্য বাড়িয়ে দেয় এসব ব্যবসায়ীরা। তবে, প্রশাসনের দ্রুত হস্তক্ষেপে লবণের মূল্য পূর্বের দামে ফিরে আসলে জনমনে কিছুটা স্বস্তি ফিরে এসেছে।

গুজবের খবর পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে গতকাল বিকালেই পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মহিবুল ইসলাম খান (বিপিএম), অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদ্য পুলিশ সুপার পদোন্নতিপ্রাপ্ত) মেনহাজুল আলম, সদর থানার অফিসার ইনচার্জ মো. মাহফুজার রহমানসহ একাধিক কর্মকর্তা শহরের পৌর বাজার, জিয়াবাজার, খলিলগঞ্জ, ত্রিমোহণী ও কাঁঠালবাড়ি বাজারে তাৎক্ষণিক মনিটরিং চালান। পাশাপাশি গুরুত্বপূর্ণ স্থানে মাইকিং করে প্রচারণা চালায় পুলিশ প্রশাসন। এতে লাইন ধরে সাধারণ মানুষদের লবণ কেনা বন্ধ হয়।

কুড়িগ্রাম বিসিকের উপব্যবস্থাপক জাহাঙ্গীর আলম জানান, দেশে লবণের চাহিদা রয়েছে প্রায় ১৬ লাখ মেট্রিক টন। সেখানে মজুদ রয়েছে প্রায় ১৮ লাখ মেট্রিক টন লবণ। আয়োডিনযুক্ত প্যাকেটজাত লবণ সরকার বিক্রির অনুমতি দিয়েছে। তবে, কোনো খোলা লবণ বিক্রি বা খাওয়ার ব্যাপারে নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। তিনি বলেন, খোলা লবণ শুধুমাত্র চামড়া প্রক্রিয়াজাতকরণের কাজে ব্যবহার করা হয়। বর্তমানে মানভেদে ৩৫ থেকে ৪০ টাকার মধ্যে লবণ বিক্রি হচ্ছে বলেও জানান তিনি।

গুজব নিয়ে কুড়িগ্রাম সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) নিলুফা ইয়াসমিন বলেন, সদরের সব ইউনিয়নের চেয়ারম্যানরা নির্দেশনা অনুযায়ী গুজব ঠেকাতে বাজারগুলোতে মাইকিং করে সচেতনতা সৃষ্টি করছে। মানুষের মধ্যে যে গুজব ছড়ানো হয়েছিল তা এখন নেই বলে জানিয়েছেন তিনি।

কুড়িগ্রামের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মহিবুল ইসলাম খান (বিপিএম জানান, গুজব সৃষ্টি করে ব্যবসায়ীরা যাতে লবণের কৃত্রিম সংকট তৈরি করে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করতে না পারে, এজন্য প্রশাসন তৎপর রয়েছে। তিনি বলেন, লবণের এই গুজব ঠেকাতে সচেতন হওয়ার পাশাপাশি সকলকে একযোগে এই গুজবে রুখে দাঁড়াতে হবে। এরপরও যদি কেউ অতিরিক্ত মূল্যে লবণ বিক্রি করে সে ব্যাপারে প্রশাসনকে জানানোর পরামর্শ দিয়ে তিনি আরও বলেন, পুলিশকে তথ্য দিলে, বিষয়টিতে আমরা প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেব।

SHARE