কোটা সংস্কারের দাবিতে বেরোবিতে মানববন্ধন

115

বেরোবি প্রতিনিধি

বিসিএস পরীক্ষা সহ সকল প্রকার সরকারি-বেসরকারি চাকরির নিয়োগে বিদ্যমান কোটা ব্যবস্থা সংস্কার ও শিথিল করার দাবিতে মানববন্ধন করেছে বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের (বেরোবি) সাধারণ শিক্ষার্থীরা। সোমবার (১৯ ফেব্রুয়ারি)) বিকেলে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকের সামনে সাধারণ শিক্ষার্থীদের ব্যানারে এই মানববন্ধনের আয়োজন করা হয়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষার্থী দেলওয়ার হোসেন শুভ’র সঞ্চালনায় একই বিভাগের শিক্ষার্থী ফজলে রাব্বীর সভাপতিত্বে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বাংলা বিভাগের মাষ্টার্সের শিক্ষার্থী আসাদুজ্জামান শুভ, রসায়ন বিভাগের রেজওয়ান খান, অর্থনীতি বিভাগের নুরুজ্জামান, গণিত বিভাগের রেবেকা সুলতানা, দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিভাগের মাহফুজ প্রমুখ।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, মূলত মেধাবীরা যাতে দেশের সর্বোচ্চ প্রশাসনিক জায়গায় যেতে পারে, এজন্য কোটা সংস্কারের দাবি জানাচ্ছি। আমরা কোটার বিপক্ষে না। কোটা কমিয়ে ১০ শতাংশ করার দাবি জানাচ্ছি। ৫৬ শতাংশ কোটার রাখার কারণে প্রকৃত মেধাবীরা যোগ্যতা থাকার পরও চাকরি পাচ্ছে না।’

বক্তারা আরও বলেন, ৫৬ শতাংশ কোটার বাহিরে সাধারণ শিক্ষার্থীদের জন্য ৪৪ শতাংশ রাখা হয়েছে। সেই ৪৪ শতাংশ আবার থাকছে মুক্তিযোদ্ধা কোটায় আগত মেধাবী, নারী কোটায় আগত মেধাবী, উপজাতি কোটায় আগত মেধাবী। এত কোটা দেয়া হয়েছে, যার বিপরীতে সব সময় শূন্য পদ থাকে। যেখানে কারো নিয়োগ দেওয়া হয় না। এটা একটা বৈষম্য।

মানববন্ধনে তারা জানায়, আমরা মূলত কোটা ব্যবস্থার বিরোধী নয়। তবে বর্তমানে নিয়োগের ক্ষেত্রে যেভাবে বিভিন্ন কোটা দেওয়া হচ্ছে, তাতে প্রকৃত মেধাবীরা অন্যায়ের শিকার হচ্ছেন বলে মনে করেন।

তাই আমাদের দাবি, মেধার ভিত্তিতে অন্তত ৯০ শতাংশ নিয়োগ দেওয়া হোক। বাকি ১০ শতাংশ নিয়োগ কোটা ব্যবস্থার মাধ্যমে দেওয়া যেতে পারে।

এছাড়া নিয়োগ পরীক্ষায় কোটার প্রার্থী পাওয়া না গেলে পদ শুন্য না রেখে মেধা থেকে পদ পূরণ করার দাবি জানান তারা। কোটা পদ্ধতি সংস্কার না হওয়া পর্যন্ত বিসিএস এবং ব্যাংকসহ চলমান সকল সরকারী নিয়োগ পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ বন্ধ রাখারও আহ্বান জানান শিক্ষার্থীরা।

SHARE