কোভিড রোগীদের আস্থা অর্জন করলেও ইতি টানছে ‘করোনা আইসোলেশন সেন্টার চট্টগ্রাম’

308

দেশরিভিউ সংবাদ:
চট্টগ্রামে কিছুদিন আগেও এক হাসপাতাল থেকে আরেক হাসপাতাল ঘুরে ঘুরে সিট না পেয়ে বা সিট থাকার পরও ভর্তি হতে না পেরে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ার অসংখ্য ঘটনা ঘটেছে। চট্টগ্রামে কোভিড রোগী নিয়ে স্বজনদের যে যন্ত্রণা সইতে হয়েছে তা অকল্পনীয়। এমন একটি দূর্যোগকালীন সময়ে গত ১৩ জুন চট্টগ্রামের হালিশহরে যাত্রা শুরু করেছিল ১০০ শয্যার করোনা আইসোলেশন সেন্টার চট্টগ্রাম।

চট্টগ্রামের বেসরকারী হাসাপাতালগুলোর নৈরাজ্যের বিরুদ্ধে একপ্রকার হুংকার দিয়ে এ হাসপাতাল যাত্রা শুরু করে করোনা আইসোলেশন সেন্টার চট্টগ্রাম। কোভিড চিকিৎসার উন্নত প্রযুক্তিও তারা চালু করে। নগরীর ক্লিনিকগুলোতে সামান্য অক্সিজেন সিলিন্ডার লাগিয়ে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিলেও করোনা আইসোলেশন সেন্টার চট্টগ্রামে কোভিড টেষ্ট থেকে শুরু করে সব ধরনের চিকিৎসা সেবা সম্পূর্ন ফ্রি-তে করা হয়। সেন্ট্রাল অক্সিজেন সুবিধা ছাড়াও এ আইসোলেশন সেন্টারে হাই ফ্লো ন্যাসাল ক্যানুলা সেবা বিনামূল্যে প্রদান করায় অতিদ্রুত জনগনের মাঝে সুনাম অর্জন করে প্রতিষ্ঠানটি। এমনকি সরকারের স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ঘোষিত সারাদেশে ৩৪টি কোভিড হাসপাতালের একটি হিসাবে নাম লিখেয়েছে হালিশহরের ‘করোনা আইসোলেশন সেন্টার চট্টগ্রাম’। নগরীর বিভিন্ন হাসপাতালে রোগী সংকট থাকলেও বুধবার (৯ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত) ২২জন করোনা পজেটিভ রোগী এতে ভর্তি রয়েছে। কিন্তু হঠাৎ করে আগামী ১৫ সেপ্টেম্বর গুটিয়ে নেওয়া হচ্ছে এই আইসোলেশন সেন্টারটি।

এ ব্যাপারে করোনা আইসোলেশন সেন্টার চট্টগ্রামের প্রধান সমন্বয়ক ও চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক নুরুল আজিম রনি এক ফেসবুক বার্তায় লিখেন, ‘করোনা মহামারীর সময়ে চট্টগ্রামে করোনা রোগীদের চিকিৎসা সংকটের কথা চিন্তা করে দূর্যোগকালীন সময়ে প্রতিষ্ঠানটির যাত্রা শুরু করি আমরা। আমাদের আইসোলেশন সেন্টারটি বিত্তশালীদের অনুদান আর জনগনের বিভিন্ন সাহায্য সহযোগিতার মধ্যে দিয়ে পরিচালিত হয়ে আসছিল। আমাদের প্রতিমাসে ডাক্তার, নার্সদের ১০ লক্ষের অধিক টাকা বেতন দিয়ে আসছি। এছাড়া প্রতি মাসে রোগীদের জন্য ওষুধ, খাবারসহ আনুষাঙ্গিক খরচ বাবদ সমপরিমাণ খরচ করে আসছি। কিন্তু বর্তমানে আমাদের অনুদান সংগ্রহে হিমশিম খেতে হচ্ছে। আমি বিশেষ করে ধন্যবাদ জানাবো কমিউনিটি সেন্টারের মালিক আবু ভাইকে। তিনি বিশাল অন্তরের একজন মানুষ। তিনি আমাদের গত তিনমাস ধরে ক্লাবটি কোন ভাড়া ছাড়াই ব্যবহারের জন্য দিয়েছিলেন। তবে এখন আমরা উনার আর্থিক ক্ষতির কথা চিন্তা করেই আইসোলেশন সেন্টার বন্ধের সিদ্ধান্ত নিয়েছি।’

জানা গেছে ১২ জন চিকিৎসক, ৭ জন নার্স ও ব্রাদার সহ ৫০ জনের স্বেচ্ছাসেবক দল রোগীদের সেবা নিয়োজিত রয়েছেন এই সেন্টারটিতে। করোনা আইসোলেশন সেন্টার চট্টগ্রাম এ পর্যন্ত প্রায় সাড়ে ৬শ জনের অধিক করোনা আক্রান্ত ও উপসর্গ নিয়ে আসা রোগীদের চিকিৎসা সেবা প্রদান করা হয়েছে। এছাড়াও সমানসংখ্যক রোগীকে বহিবিভাগে সেবা দেয়া হয়েছে।

SHARE