ক্রেতাদের হাহাকার, দলে দলে বাড়ি ফিরছে গরুবেপারী (ভিডিও)

153

।।চট্টগ্রাম প্রতিনিধি, দেশরিভিউ।।
চট্টগ্রামের পশুর হাটগুলোতে কোরবানীর গরুর সংকট দেখা দিয়েছে। রাত তিনটায় এ রিপোর্ট তৈরীর সময় প্রায় পশুশূন্য ছিল নগরীর বড় পশুর হাটগুলো। অন্যদিকে গরু বিক্রি করে খুশি মনে বাড়ি ফিরতে শুরু করেছে পশু বিক্রিতারা।

বৃহস্পতিবার রাত ১১টায় সরেজমিনে নগরীর বিভিন্ন হাটে
গিয়ে এমন চিত্র দেখা গেছে। প্রতিটি হাটেই হাতেগুনা গরু থাকলেও ক্রেতা রয়েছে কয়েকগুন। ফলে গরুর দামও দুই থেকে তিনগুন বেশী। জানা গেছে, বুধবারের মধ্যেই এসব হাটে অধিকাংশ পশু বিক্রি হয়ে যায়। আবার কিছু কিছু বেপারী বেশি দামে বিক্রির আশায় অনেক গরু রেখে দিয়েছে। আর দামও হাঁকাচ্ছেন গরু অনুযায়ী দ্বিগুণ।

সাগরিকা বাজারে থাকা কয়েকজন বিক্রেতা বলেন, ‘বিক্রি হওয়া গরুগুলোতে খুব বেশি লাভ হয়নি। শেষ মুহূর্তে গরু বিক্রি হবেনা এমন শংকায় কম মূল্যে গরু বিক্রি করা হয়েছিল। এখন হাটে আর তেমন গরু না থাকায় যেকয়েকটা গরু আছে তার দামও বেড়েছে। মানুষে হাট ভর্তি হয়ে গেছে। এখনও হাটে প্রায় কয়েক হাজার গরুর চাহিদা আছে। কিন্তু ১শ – ২শ গরুও হাটে নেই।’

সাগরিকা বাজারে গরু কিনতে আসা রোহান চৌধুরী দেশরিভিউ কে বলেন, রাত ৯ টায় গরু বাজারে এসে এখন বাসায় ফিরে যাচ্ছি। ফজরের নামাজের পর আবার বের হবো। কোন হাটে গেলে ভালো হবে জানিনা। এমন ট্র‍্যাজেডি হওয়ার কারনই বুঝলাম না!

সাগরিকা গরুবাজারে মামা ভাগিনা মাঠে সেচ্ছাসেবক শাহেদ মিয়া দেশরিভিউকে বলেন, ঈদের ৩দিন আগে মাঠে গরু শেষ। ক্রেতা-বিক্রেতাদের সকল প্রকার সু-ব্যাবস্থা দিয়ে হাট পরিচালনা করেছেন হাটের মালিকেরা।
করোনা আতংকে থাকা ক্রেতা বিক্রিতেরা তাই অন্যবারের মতো দরদাম করেনি। ন্যার্য্য দাম পেলে ক্রেতারা গরু বিক্রি করেছে ক্রেতারাও গরু কিনে বাড়ি ফিরেছে।

গরু বিক্রি দলে দলে বাড়ি ফিরছে বিক্রেতারা।

দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে আসা গরু ব্যবসায়ীরা হাসিমুখে বাড়ি ফিরতে শুরু করেছে। রাত দুইটায় সাগরিকা গরুর বাজার থেকে ট্রাকে ট্রাকে গরু বেপারীদের বাড়ি ফিরতে দেখা গেছে। এসময় কুষ্টিয়ার গরু বেপারী সালাম মিয়া দেশরিভিউ’কে বলেন, ২৫টি গরু চট্টগ্রামে নিয়ে এসে ভালো মূল্যে বিক্রি করতে পেরেছি। একদিন আগে এভাবে বাড়ি ফিরে যেতে পেরে খুশি লাগছে।

SHARE