’খালেদার চিকিৎসার সিদ্ধান্ত রিপোর্টের পর’

145

মেডিকেল বোর্ডের রিপোর্ট পাওয়ার পরই বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার চিকিৎসার ব্যাপারে পরবর্তী করণীয় ঠিক করা হবে বলে জানিয়েছেন ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের উপ-পরিচালক ডা. শাহ আলম তালুকদার। সোমবার দুপুরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি একথা জানান।

ডা. শাহ আলম তালুকদার বলেন, ‘কারা কর্তৃপক্ষের লিখিত আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের চারজন চিকিৎসক গতকাল রোববার কারাগারে গিয়ে খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য পরীক্ষা করেছেন। এ সময় তারা কিছু ব্যবস্থাও দিয়েছেন।’

তিনি বলেন, ‘এখন পর্যন্ত মেডিকেল বোর্ডের বিস্তারিত প্রতিবেদন আমাদের কাছে আসেনি। রিপোর্ট আসার পর সেই তথ্যের ভিত্তিতে আমরা বলতে পারব বেগম জিয়ার কি কি পরীক্ষা করতে হবে এবং তিনি কি রোগে ভুগছেন।’

সাংবাদিকদের উদ্দেশে ঢামেকের এই উপ-পরিচালক বলেন, ‘আমরা রিপোর্ট আসলে কারা কর্তৃপক্ষের কাছে পৌঁছে দেব। আপনারা কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে রিপোর্ট জেনে নেবেন।’

খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য পরীক্ষা সম্পর্কে জানাতেই এই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হলেও এ বিষয়ে কোনো তথ্যই দিতে পারেনি কর্তৃপক্ষ।

অন্যদিকে ব্রিফিংয়ে হাসপাতালের পরিচালক এ কে এম নাসির উদ্দীনের উপস্থিত থাকার কথা থাকলেও সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, তিনি প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকে মন্ত্রণালয়ে আছেন। তাই নির্ধারিত সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত থাকতে পারেননি।

এর আগে গতকাল রোববার দুপুর সোয়া একটা থেকে প্রায় এক ঘণ্টা নাজিম উদ্দিন রোডের পুরান কেন্দ্রীয় কারাগারে খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য পরীক্ষা করেন মেডিকেল বোর্ডের চিকিৎসকরা।

এর আগে খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বিভিন্ন বিভাগের চার অধ্যাপককে নিয়ে বিশেষ মেডিকেল বোর্ড গঠন করে কারা কর্তৃপক্ষ। চিকিৎসকরা হলেন- ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের অর্থোপেডিক্স বিভাগের অধ্যাপক মো. সামসুজ্জামান, নিউরোলজি বিভাগের অধ্যাপক মনসুর হাবীব, মেডিসিন বিভাগের টিটু মিয়া ও ফিজিকেল মেডিসিন বিভাগের সোহেলী রহমান।

গত ৮ ফেব্রুয়ারি পুরনো ঢাকার বকশীবাজারে স্থাপিত বিশেষ জজ আদালত-৫ এর বিচারক ড. আখতারুজ্জামান জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় খালেদা জিয়াকে ৫ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দেন। এরপর থেকেই তাকে নাজিম উদ্দিন রোডের পুরানো কারাগারে রাখা হয়েছে।

দেশরিভিউ/শিমুল

SHARE