খুকুর শখ পূরন করে টেলিভিশন-মোবাইল উপহার দিল বাংলাদেশ ছাত্রলীগ

81

।। দেশরিভিউ , নিউজ ডেস্ক ।।

নয় বছর আগের ভিডিও ভাইরাল হয়ে আলোচনায় এসেছেন রাজশাহী নগরীর নারী পত্রিকা বিক্রেতা দিল আফরোজ খুকি। ভাইরাল হওয়া ভিডিওতে মূলত উঠে এসেছিল একজন নারীর সংগ্রামী জীবনের গল্প। সেই গল্প নাড়া দিয়েছে সাধারণ মানুষকে ইন্টারনেটের কল্যাণে। ভিডিওটি দেখে হৃদয় স্পর্শ করে যায় নেটিজেনদের। ভিডিওটি দেখে সবাই শেয়ার করতে শুরু করেন।

খুকুর এই ভিডিও চোখ এড়ায়নি কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্যের। লেখক কথা বলে জানতে পারেন, খুকির তেমন কোনো ডিমান্ড নেই। তাঁর বাড়ি আছে। তার পরেও লেখক ভট্টাচার্য জানতে চান আর কিছু প্রয়োজন কি না।

খুকু তাঁকে বলেন, একটি মোবাইল ও একটি টেলিভিশন তাঁর নেওয়ার ইচ্ছা। এরপর লেখক দিল আফরোজ খুকির ইচ্ছাপূরণের জন্য একটি সনি টেলিভিশন ও একটি মোবাইল সেট রাজশাহী ছাত্রলীগের কাছে পাঠিয়ে দেন। রাজশাহী ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে গত সোমবার (৯ নভেম্বর) খুকুর শিরোইলের বাড়িতে গিয়ে টেলিভিশন ও মোবাইল সেট তুলে দেন।

রাজশাহী শহরের একমাত্র নারী পত্রিকা বিক্রেতা তিনি। ৪০ বছর ধরে পত্রিকা বেচে জীবিকা নির্বাহ করছেন। সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় ১১ বছর পূর্বের একটি ভিডিও ভাইরাল হয়। সকাল ৬টায় ঘুম থেকে উঠে পত্রিকার এজেন্ট ও স্থানীয় পত্রিকার সার্কুলেশন থেকে পত্রিকা নিয়ে বেরিয়ে পড়েন নগরীতে। খুকির হাতের পত্রিকা পড়ে তারা, খুকির জীবনের গল্প পড়া হয়ে ওঠে না। রাজশাহী নগরীর বিভিন্নপ্রান্তে ৪০ বছর ধরে পত্রিকা বিক্রি করেন দিল আফরোজ খুকি। খুকিরও গল্প আছে সে গল্প জানা হয়ে ওঠে না কারো, খুকির ভাইরাল ভিডিও দেখে অনেকেই কাঁদে, ফেসবুকে শেয়ার দেয় কিংবা জানতে চায় খুকির বর্তমান অবস্থা।

জানা গেছে, কিশোরী বয়সে ৭০ বছরের এক বৃদ্ধের সঙ্গে খুকির বিয়ে হয়েছিল। মাস যেতে না যেতেই স্বামী মারা যান। ১৯৮০ সালে স্বামীর মৃত্যুর পর পরিবার, আত্মীয়-স্বজন তাঁকে গৃহছাড়া করেন। ভাইদের আপত্তিতে বাবার বাড়িতে তাঁর জায়গা হয়নি। এর পর থেকেই কিছুটা মানসিক ভারসাম্য হারিয়ে ফেলেন তিনি।

খুকি সম্পর্কে প্রতিবেশীরা বলছেন, তিনি কিছুটা মানসিক ভারসাম্যহীন।
নিঃসন্তান নারীর বিয়ে হয় কিশোরী বয়সে। এক মাসের মাথায় স্বামী মারা যায়। স্বামীর মৃত্যুর পর থেকে তিনি একগুঁয়ে স্বভাবের হয়ে ওঠেন। বাবার কাছ থেকে পাওয়া জমিতে বাড়ি তৈরি করে একাই থাকেন। কারো কাছ থেকে কোনো সহায়তা নেন না। পত্রিকা বিক্রি করে জীবিকা নির্বাহ করেন।

SHARE