গুরত্বহীন হয়ে পড়েছে রোহিঙ্গা ইস্যু

29

জাতীয় নির্বাচন ঘনিয়ে আসছে, তাই রোহিঙ্গা সংকটের মতো গুরুত্বপূর্ণ ইস্যুটি অনেকখানি আড়ালে চলে যাচ্ছে বলে মনে করেন সাবেক কূটনীতিকরা। তবে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের সবশেষ বৈঠকের সুপারিশগুলো নিয়ে সরকারের এগিয়ে যাওয়া দরকার বলে মনে করেন কুটনীতিকরা।

মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গাদের নিরাপদ, স্বেচ্ছায় এবং মর্যাদার সঙ্গে ফেরার উপযোগী পরিবেশ তৈরির প্রচেষ্টার ওপর গুরুত্ব আরোপ করেছেন জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের সদস্যরা।

মঙ্গলবার আন্তর্জাতিক শান্তি ও নিরাপত্তার জন্য জাতিসংঘের দায়িত্বপ্রাপ্ত সংস্থা নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠকে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা হয়।

এ বিষয়ে সাবেক কূটনীতিকরা বলছেন, জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ বিষয়টি এজেন্ডায় রাখলেও দেশেই রোহিঙ্গা ইস্যুটি কিছুটা গুরত্বহীন হয়ে পড়েছে। তবে সেপ্টেম্বরে জাতিসংঘের সাধারণ সভার আগেই বিভিন্ন দেশের সঙ্গে রোহিঙ্গা সমস্যা নিয়ে আলোচনা না চালালে সংকট সমাধান হবে না।

সাবেক কূটনীতিক আবুল মোমেন জানান, নির্বাচনি বছর বলে হয়ত কিছুতা সমস্যা আছে, তবে সমস্যা দীর্ঘায়িত হলে আমাদের দেশের জন্যই সমস্যা হবে এবং রোহিঙ্গাদের তাদের দেশের ফিরিয়ে নেয়ার প্রক্রিয়া ঝিমিয়ে পড়বে, আমরা তাদের দেশে ফেরত পাঠানোর সুযোগ হারাব।

আরেক সাবেক কূটনীতিক এম শফিউল্লাহ জানান, জাতিসংঘে সবসময় রোহিঙ্গাদের দেশে ফেরত পাঠানোর বিষয়ে আলোচনা হচ্ছে। বৈঠকে বার বার জাতিসংঘের পক্ষ থেকে রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেয়ার ব্যাপারে দৃশ্যমান ব্যবস্থা গ্রহণ করার কথা বলা হচ্ছে বলেও জানান এম শফিউল্লাহ।

আগামী ৮ই আগস্ট পররাষ্ট্রমন্ত্রীর মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্য সফরটিকেও বিশেষ গুরত্ব দেয়া উচিত বলে মনে করেন সাবেক এই কূটনীতিকরা।

রোহিঙ্গাদের নিরাপদ পরিবেশ তৈরি করে তবেই তাদের দেশের ফেরত পাঠানোর ব্যাপারে মত দেন এম শফিউল্লাহ। তবে আবুল মোমেন মনে করেন মিয়ানমার যাই বলুক আমাদের উচিত নিজেদের মত করে স্বাধীন কিছু পদক্ষেপ নেয়া।

আগামী মাসের শেষ দিকে নিরাপত্তা পরিষদের উন্মুক্ত বৈঠকে রোহিঙ্গা ইস্যুটি আবারও আলোচনায় উঠে আসার কথা রয়েছে।

দেশরিভিউ/এস এস

SHARE