গুলশানে কূটনৈতিক হত্যা: ‘ফাঁসি কার্যকর’ কাশিমপুর কারাগারে

597
প্রতিকি ছবি

।।গাজীপুর/দেশরিভিউ।। কাশিমপুর হাইসিকিউরিটি কেন্দ্রীয় কারাগারের জেল সুপার শাহজাহান আহমেদ গনমাধ্যমকে  জানান, সৌদি দূতাবাস কর্মকর্তা খালাফ মোহাম্মদ এস আল আলীকে হত্যার দায়ে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত সাইফুল ইসলাম মামুনের সাজা রোববার (৩ মার্চ) রাত ১০টা ১ মিনিটে কার্যকর করা হয়েছে। ফাঁসিতে ঝুলিয়ে তার দণ্ড কার্যকর করা হয় বলে নিশ্চিত করেছেন তিনি।

জানা গেছে, ২০১২ সালের ৫ মার্চ ঢাকার গুলশানে নিহত সৌদি আরব দূতাবাসের কর্মকর্তা খালাফ মোহাম্মদ এস আল আলী হত্যা মামলার আসামি সাইফুল ইসলাম মামুনের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়েছে। রোববার (৩ মার্চ) রাত ১০টা ১ মিনিটে গাজীপুরের কাশিমপুর হাইসিকিউরিটি কেন্দ্রীয় কারাগারে তার এই মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করে কর্তৃপক্ষ। সাইফুল ইসলাম মামুন বাগেরহাটের স্মরণখোলা থানার মধ্য খোন্তাকাটা এলাকার মৃত আব্দুল মোতালেব হাওলাদারের ছেলে।

এ সময় কারাগারে উপস্থিত ছিলেন- কারা মহাপরিদর্শক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল একেএম মোস্তফা কামাল পাশা, জেল সুপার শাহজাহান আহমেদসহ সংশ্লিষ্ট শীর্ষ কর্মকর্তারা।

উল্লেখ্য ২০১২ সালের ৫ মার্চ ঢাকার গুলশানে কূটনৈতিক এলাকায় সৌদি দূতাবাস কর্মকর্তা খালাফ আল আলীকে গুলি করা হয়। পরের দিন ভোরে ঢাকায় একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান খালাফ আল আলী। এ ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে গুলশান থানায় মামলা করে। পরে আদালত ওই মামলায় ৫ জনকে মৃত্যুদণ্ড দিলে দণ্ডপ্রাপ্তরা ওই রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করেন। ২০১৩ সালে হাইকোর্ট সাইফুল ইসলাম মামুনের মৃত্যুদণ্ড বহাল রাখেন এবং ৩ জনের মৃত্যুদণ্ডের পরিবর্তে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেন, খালাস দেন ১ জনকে। দণ্ড ঘোষণার পর থেকে সাইফুল কাশিমপুর হাইসিকিউরিটি কেন্দ্রীয় কারাগারের কনডেম সেলে বন্দি ছিলেন।

SHARE