গ্রেপ্তারের ভয়ে ৭৮৬ দিন পর বিএনপি কার্যালয় ছেড়ে বাসায় ফিরলেন রিজভী

147

।।দেশরিভিউ নিউজডেস্ক।।

গ্রেপ্তার এড়াতে ২০১৮ সালের ৩০ জানুয়ারি ‘লোটা-কম্বল’ নিয়ে নয়াপল্টন কার্যালয়ে হাজির দলের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

এর আট দিন পর আদালতের দেওয়া রায়ে পাঁচ বছর সাজা হয় বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার। এ ঘটনায় মর্মাহত রিজভী প্রেস কনফারেন্সে এসে কান্নাজড়িত কণ্ঠে ঘোষণা দেন, ‘যতদিন পর্যন্ত ম্যাডাম (খালেদা জিয়া) কারাগারে থাকবেন, ততোদিন পর্যন্ত দলীয় কার্যালয়ে স্বেচ্ছাবন্দি থাকব আমি।’

আন্দোলন সংগ্রাম না করে দলীয় কার্যালয়ে এভাবে অবস্থান নেওয়াকে ভালো ভাবে নেয়নি বিএনপি ও সহযোগী সংগঠনের নেতা কর্মীরা। এর মাঝে দলীয় কার্যালয় দখল নিতে বেশ কয়েকবার হামলাও করেছিল বিএনপির বিভিন্ন পক্ষ। গ্রেপ্তার এড়াতেই তিনি এই সিন্ধান্ত নিয়েছেন বলে সেই সময়ে বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় মতামত দিয়েছেন বিএনপির অনেক সিনিয়র নেতা।

তবে বন্দি না থাকলেও পরিবারের কাছে যায়নি রিজভী। কার্যালয়ে অবস্থানের সময় দলীয় কার্যালয়ে আসা ১১/১২ জন নেতা কর্মী নিয়ে মিছিল মিটিং করে হয়েছিলেন হাঁসির পাত্র।

বুধবার (২৫ মার্চ) বেগম খালেদা জিয়া মুক্ত হওয়ার আগ পর্যন্ত টানা ২৫ মাস ২৭ দিন নয়াপল্টন কার্যালয়ে অবস্থান করেছেন তিনি। নানা সংকট, উৎসব, আয়োজন, অসুস্থা, ধরপাকড়— কোনো কিছুকেই আমলে নেননি রিজভী। কার্যালয়ের ছোট্ট একটি কক্ষেই থাকা-খাওয়া, ঘুমের ব্যবস্থা ছিল তার।

খালেদা জিয়া মুক্ত হয়ে ‘ফিরোজায়’ ফেরার ২৪ ঘণ্টা পর বৃহস্পতিবার দুপুরে রিজভীও ফিরে গেছেন নিজ বাসা মোহম্মদপুরে। বাসায় পৌঁছানোর পর বিকেলে সাংবাদিকদের জানান বলেন, ‘আমি ২০১৮ সালের ৩০ জানুয়ারি থেকে কার্যালয়ে অবস্থান করছি। সময়টা খুব খারাপ ছিল। আমি কার্যালয়ে অবস্থানের আটদিন পর ম্যাডামকে জেলে নেওয়া হলো। প্রতিদিনই দেখতাম পার্টির অফিসের নিচ থেকে নেতা-কর্মীদেরও ধরে নিয়ে যাচ্ছে। তখন আমি সিদ্ধান্ত নিলাম, নেতা-কর্মীদের মনোবল অক্ষুন্ন রাখতে আমি অফিসিই থাকব। সেখান থেকেই সীমিত পরিসরে রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড অব্যাহত রেখেছি। ম্যাডাম গতকাল বেরিয়েছেন। আজ আমি বাসায় ফিরেছি।’

রিজভীর এই অবস্থানকে গ্রেপ্তারের ভয়ে হিসেবে উল্লেখ করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপক সমালোচনা চলছে।

SHARE