ঘুম পাড়ানি ব্যাটিংয়ে বিশাল হারে সিরিজ খোয়াল বাংলাদেশ

87

।।দেশরিভিউ, স্পোর্টস ডেস্ক।।

ম্যাচের চিত্রনাট্য আগের মতোই ছিল। বাজে ব্যাটিংয়ে সংগ্রহ প্রথম ম্যাচের চেয়েও কম করেছিল বাংলাদেশ। এই স্বল্প পুঁজি নিয়ে বিশ্বের এক নম্বর দলের বিপক্ষে লড়াই করা পাগলামির মতোই। যা হওয়ার ছিল তাই হয়েছে শেষ পর্যন্ত। প্রথম ম্যাচের চেয়েও বড় ব্যবধানে হেরেছে বাংলাদেশ। ৯ উইকেটের বিশাল জয়ে তিন ম্যাচের সিরিজ ২-০ ব্যবধানে নিশ্চিত করল পাকিস্তান। শেষ ম্যাচে বাংলাদেশকে হোয়াইটওয়াশ এড়ানোর লক্ষ্য নিয়ে নামতে হবে। অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ প্রথম ম্যাচের ভুল থেকে শিক্ষা নিতে বলেছিলেন, কিন্তু কোথায় কী? বাংলাদেশি ক্রিকেটারদের শিক্ষাজীবন আর কবে শেষ হবে?

১৩৭ রানের টার্গেটে ব্যাটিংয়ে নেমে গত ম্যাচে অভিষিক্ত পাকিস্তানি ওপেনার আহসান আলী ডাক মেরে শফিউলের শিকার হন। পাকিস্তানের রান তখন ৬। এরপর অধিনায়ক বাবর আজম আর অভিজ্ঞ মোহাম্মদ হাফিজের ব্যাটে এগুতে থাকে পাকিস্তান। দ্রুতই জমে ওঠে এই জুটি।  মাত্র ৩৫ বলে ৫ চার এক ছক্কায় হাফ-সেঞ্চুরি পূরণ করেন বাবর। ৩৯ বলে হাফিজও তুলে নেন হাফ-সেঞ্চুরি। দুজনের অবিচ্ছিন্ন ১৩১* রানের জুটিতে ২০ বল এবং ৯ উইকেট হাতে রেখে জিতে যায় পাকিস্তান। বাবর ৪০ বলে ৬০* এবং হাফিজ ৪৪ বলে ৫৮* রানে অপরাজিত থাকেন।

লাহোরের গাদ্দাফি স্টেডিয়ামে এর আগে ব্যাটিংয়ে নেমে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৬ উইকেটে ১৩৬ রান তোলে বাংলাদেশ।। ধীর গতির ঘুমপাড়ানি ব্যাটিংয়ে প্রথম ম্যাচের রানও টপকে যেতে পারেনি মাহমুদউল্লাহর দল। টস জিতে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুতেই ধাক্কা খায় বাংলাদেশ। দলীয় ৫ রানে শাহিন শাহ আফ্রিদরি শিকার হয়ে ডাক মেরে ফিরেন মোহাম্মদ নাঈম। এরপর উইকেটে তামিমের সঙ্গী হন দুই বছর পর দলে ফেরা মেহেদী। কিন্তু তার প্রত্যাবর্তন সুখের হয়নি। ১১ বলে ৯ রান করে মোহম্মদ হাসনাইনের শিকার হন। মেহেদি হাসানের পর উইকেটে আসেন লিটন দাস।

টানা দ্বিতীয় ম্যাচেও ব্যর্থ বিপিএলে দুর্দান্ত খেলা এই তরুণ ১৪ বলে ৮ রান করে শাদাব খানের বলে এলবিডাব্লিউ হয়ে যান। দলীয় ৪১ রানে ৩ উইকেট হারায় বাংলাদেশ। ম্যাচের এই পর্যায়ে তামিমের সঙ্গে দলের হাল ধরেন আফিফ হোসেন ধ্রুব। দুজনের ধীরগতির ব্যাটিংয়ে এগুতে থাকে বাংলাদেশ। ৪৪ বলে হাফ সেঞ্চুরি পূরণ করেন তামিম। ২০ বলে ২১ রান করে আউট হন আফিফ। তামিমের ৫৩ বলে ৭ চার ১ ছক্কায় ৬৫ রানের ইনিংসটি থামে রান-আউটের শিকার হয়ে। শেষ ওভারের প্রথম বলে হারিস রউফ বোল্ড করে দেন অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহকে (১২)। শেষে সৌম্য সরকার (৫*) আর আমিনুল ইসলাম (৮*) দলকে টেনেটুনে ১৩৬ রানে নিয়ে যান।

SHARE