ঘূর্ণিঝড়ের তান্ডবে লন্ডভন্ডের শংকা ১৩ জেলা, প্রস্তুত সরকার

99

।।দেশরিভিউ সংবাদ।।
ঘূর্ণিঝড় বুলবুল ক্রমেই শক্তিশালী হয়ে বাংলাদেশের উপকূলের দিকে ধেয়ে আসছে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদফতর। অতি প্রবল ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’ আজ সন্ধ্যার পর বাংলাদেশ ও ভারতের উপকূলে আঘাত হানতে পারে।

বাংলাদেশ আবহাওয়া বিভাগের (বিএমডি বা বাংলাদেশ মেট্রোলজিক্যাল ডিপার্টমেন্ট) বিজ্ঞানীরা বলেছেন, উপকূলের ১৯ জেলায় ঝড়ো হাওয়া বয়ে যাবে। এর মধ্যে ১৩ জেলা বেশি ঝুঁকিতে।

এই ১৩ জেলা হচ্ছে সাতক্ষীরা, বাগেরহাট, পটুয়াখালী, ভোলা, বরগুনা, পিরোজপুর, নোয়াখালী, ফেনী, লক্ষ্মীপুর, চাঁদপুর, খুলনা, কক্সবাজার ও চট্টগ্রাম।

এদিকে আবহাওয়াবিদ আবুল কালাম মল্লিক জানান, ঘূর্ণিঝড়টির বর্তমান গতি এবং দিক যদি বজায় থাকে তাহলে রবিবার রাত এবং সোমবার সকালের মধ্যে বাংলাদেশের উপকূলে আঘাত হানার কথা ছিলো। তবে বর্তমানে গতি বৃদ্ধি পাওয়া এর আগে সন্ধ্যায় ঘূর্ণিঝড়টি আঘাত হানতে পারে।

প্রস্তুত সরকার: ২২ মন্ত্রণালয়ে ছুটি বাতিল
ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’ মোকাবেলায় ২২টি মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা ও কর্মচারীসহ জেলা-উপজেলা পর্যায়ের সব কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ছুটি বাতিল করেছে সরকার। শুক্রবার বিকালে সচিবালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে একথা জানান দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ড. এনামুর রহমান।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, শনিবার সন্ধ্যা থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত যে কোনো সময় ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’ আঘাত হানতে পারে। তাই এর মোকাবেলায় সরকার সব ধরনের প্রস্তুতি নিয়েছে।

মন্ত্রী জানান, সাইক্লোন সেন্টারসহ উপকূলের আশ্রয়নেয়ার কেন্দ্রগুলো প্রস্তুত করা হয়েছে। একই সঙ্গে প্রতিটি সাইক্লোন সেন্টারে দুই হাজার প্যাকেট করে শুকনো খাবারসহ নগদ ৫ লাখ করে টাকা পাঠানোর নির্দেশ দেয়া হয়েছে বলেও জানান দুর্যোগ প্রতিমন্ত্রী।

প্রস্তুত সরকার: ১৩ জেলা সরকারী ছুটি বাতিল
ঘূর্ণিঝড় বুলবুল মোকাবিলায় অধিক ঝুকিতে থাকা ১৩ জেলার সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের শনি ও রোববারের ছুটি বাতিল করেছে সরকার। দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের ‘ঘূর্ণিঝড় প্রস্তুতি কর্মসূচি (সিপিপি) বাস্তবায়ন বোর্ড’ এর সভায় এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এসময় এই ১৩ জেলার সকল কর্মকর্তা-কর্মচারীদের শনিবারের সাপ্তাহিক ছুটি ও রোববারের সরকারি ছুটি বাতিল করা হয়েছে। সকলকে তাঁদের কর্মস্থল ত্যাগ না করে য নির্দেশও দিয়েছে সরকার।