ঘূর্ণিঝড় ডোরিয়ানের আঘাতে বাহামায় নিহত ৫০

48

।দেশরিভিউ-আন্তর্জাতিক।

ঘূর্ণিঝড় ডোরিয়ানের আঘাতে লন্ডভন্ড বাহামায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫০জনে। এখনো নিখোঁজ আড়াই হাজার মানুষ। এক সপ্তাহ পেরিয়ে গেলেও দেশটির অ্যাবাকো ও গ্র্যান্ড বাহামায় আশ্রয় ও ত্রাণের অপেক্ষায় আছেন ১৫ হাজার বাসিন্দা। ক্ষোভ রয়েছে সরকারি সহায়তার অপ্রতুলতা নিয়েও। তবে প্রয়োজনীয় ত্রাণ সেবা নিশ্চিতের আশ্বাস দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী হিউবার্ট মিনিস।

আকাশ থেকে দেখলে মনে হয় যেন যুদ্ধ-বিধ্বস্ত কোন দেশ। কিন্তু বাস্তবতা হচ্ছে ভয়াবহ ডোরিয়ানের ছোবলে দ্বীপরাষ্ট্র বাহামার বর্তমান চিত্র এটি। ক্যাটাগরি পাঁচ মাত্রার শক্তিশালী এই ঘূর্ণিঝড়ের তাণ্ডবে ঘর-বাড়ি হারিয়েছেন বাহামার হাজারো মানুষ।

নিখোঁজ স্বজন ও বন্ধুদের ফিরে পেতে এখনো আশাবাদী প্রাণে বেঁচে যাওয়া বাসিন্দারা। আর এমন দুর্যোগে যথেষ্ট সরকারি সহায়তা না পাওয়ায় ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন অনেক বাসিন্দা।

হাজার হাজার নাগরিক অস্থায়ী শিবিরগুলোতে মানবেতর জীবন যাপন করছে । ক্যারিবীয় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিভাগ জানিয়েছে, খাদ্য, ত্রাণসামগ্রীসহ যানবাহনের ঘাটতি রয়েছে। যেগুলো পর্যাপ্ত পরিমাণে পেলে সামলে ওঠা যাবে এই দুর্যোগ।

বাহামার দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিভাগ মুখপাত্র কার্ল স্মিথ জানান, নিখোঁজের সরকারি তালিকা যাচাইবাছাইয়ে কাজ করছে সমাজসেবা অধিদপ্তর। আশ্রয়কেন্দ্রে অবস্থানকারী ও দুর্গত স্থানগুলো থেকে উদ্ধার না হওয়া বাসিন্দাদের সংখ্যা চূড়ান্ত হলেই তা প্রকাশ করা হবে।

ঘূর্ণিঝড়ে মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে অর্ধশতে। নিহতের সংখ্যা আরো বাড়ার আশঙ্কার কথা জানালেন প্রধানমন্ত্রী হিউবার্ট মিনিস।

বাহামার প্রধানমন্ত্রী হিউবার্ট মিনিস বলেন, ঘূর্ণিঝড়ে অ্যাবাকোতে ৪২ ও গ্র্যান্ড বাহামায় আটজনের প্রাণহানি হয়েছে। এ সংখ্যা আরো বাড়বে বলে ধারণা করা হচ্ছে। এখনো নিখোঁজ রয়েছে অনেকে। স্বজন হারানোর সান্তনা দেয়া ভাষা আমাদের কাছে নেই। তাদের প্রতি সমবেদনা ও শোক কাটিয়ে ওঠার শক্তি কামনা করছি। ভুক্তভোগী পরিবারদের সনাক্ত করে তাদের প্রয়োজনী ত্রাণ সেবা নিশ্চিত করবে সরকার। এ কাজে সহায়তার আশ্বাস দেয়ায় মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি।

গত সপ্তাহে বাহামার আবাকো দ্বীপে ঘূর্ণিঝড় ডোরিয়ানের আঘাতে ৭০ হাজরেরও বেশি মানুষ ঘরবাড়ি হারিয়েছে। এতে ক্যারিবীয় এই দেশটিতে প্রায় ৩শ’ কোটি ডলার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে ধারণা করছে সরকার।

SHARE