চট্টগ্রামবাসীর মলিন বিজয় দিবস, মেয়রের ওপর ক্ষোভ

962


।।একরাম চৌধুরী, দেশরিভিউ।।

এমন মলিন বিজয় দিবস যেন চট্টগ্রামে আর না আসে !
ভবনে নেই লাল-সবুজের পতাকা, নেই আলোকসজ্জা। রাস্তায় নেই রঙ। সড়ক বিভাজকগুলোও ধুলায় ধূসর। কোথাও নেই মুক্তিযুদ্ধের নেতৃত্ব দেওয়া জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছবিও ঠাঁই পায়নি কোথাও। এমন মলিন বিজয় দিবস আর কখনও দেখেনি চট্টগ্রাম শহরের মানুষ।

প্রতিবছর ডিসেম্বর এলেই চট্টগ্রাম নগরীতে বিজয় উৎসবের ধুম লেগে যেত। উৎসব বলতে শুধু গান-সভা-সমাবেশ নয়। লাল-সবুজের রঙে রঙীন হয়ে উঠত বন্দরনগরী। চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকেই থাকত এমন আয়োজন। কিন্তু এবার ব্যতিক্রম।

সিটি করপোরেশনের মেয়রের পদে আছেন চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আ জ ম নাছির উদ্দীন। দলীয় নেতা মেয়রের চেয়ারে থাকার পরও এমন বিবর্ণ বিজয় দিবস নিয়ে ক্ষোভ উঠে আসছে দলটির নেতাকর্মীদের মধ্য থেকে।

বিজয় দিবসের কোন রং লাগেনি নগর আওয়ামী লীগ ও সহযোগি সংগঠনের দলীয় কার্যালয় দারুল ফজল মার্কেটে।

ক্ষোভে ফুঁসছেন নগরবাসীও। ক্ষুব্ধ লোকজনের মন্তব্য, ‘চট্টগ্রাম নগরী কি মিনি পাকিস্তান হয়ে গেছে ?’
সমালোচনার মুখে পড়েছেন মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন। সিটি করপোরেশনের অনেক ভবনে আলোকসজ্জা করেননি, লাল-সবুজের পতাকাও লাগেনি অনেকস্থানে। কোথায় বঙ্গবন্ধু, কোথায় জাতীয় পতাকা- চট্টগ্রামবাসী বিজয়ের দিনে খুঁজে ফিরেছে শুধু।

নগরীর টাইগারপাসের রয়েল বেঙ্গল টাইগারগুলোতে বিজয় দিবস উপলক্ষ্যে কোন আলোকসজ্জা করা হয়নি।

ফেসবুক ব্যবহারকারী একজন লিখেছেন, ‘রাজশাহী থেকে ফিরছিলাম। সারা শহর জাকজমক দেখেছি ঢাকা থেকে কুমিল্লা পর্যন্ত। কিন্তু চট্টগ্রামে এসে দেখি শুধু ধুলা আর ধুলা। কিচ্ছু নেই।’

শিবলী রহমান নামে একজন লিখেন, ‘আগে চট্টগ্রামে মুক্তিযোদ্ধাদের বিজয় মেলাকে স্বাধীনতা বিরোধী শক্তি বিএনপি জামায়াত জোট সহ্য করতে না পারায় তারা এর বিপরীতে আরেকটি মেলা করতো,যাতে নতুন প্রজন্ম রাজাকার আল বদর আল শামস হায়েনাদের এবং পাক হায়েনাদের ইতিহাস জানতে না পারে। কিন্তু বীর চট্টলার নক্ষত্র বীর মহিউদ্দিন চৌধুরী সেই অপশক্তি কে মাথাচাড়া উঠতে না দিয়ে নতুন প্রজন্মের কাছে পৌঁছে দিয়েছেন বীরত্বপূর্ণ সেই মহান মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস।সেই বিএনপি জামায়াত জোট সরকারের ন্যায় বর্তমান সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আজম নাসির উদ্দিন সেই মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি বিজড়িত আউটার স্টেডিয়ামকে সুইমিংপুলে পরিনত করেছেন যাতে মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলা এখানে না করতে পারে।যেই কাজ জামায়াত শিবির রাজাকার কুলাঙ্গাররা করতে পারেনি সেই কাজ এই নামধারী জামায়াত শিবিরের ভাই আ. জ. ম নাসির উদ্দিন করেছেন। এই থেকে বুঝা যায় ওনি স্বাধীনতা স্বপক্ষের শক্তি বিশ্বাস করে না, মানতে পারে না আমাদের সূর্য সন্তানদের এবং বীর বাঙ্গালির অহংকার মহান মুক্তিযুদ্ধকে।’

মিকু দেবনাথ নামে একজন লিখেন, ‘আজ গাড়িতে শুধু এই বিষয়টা নিয়েই আলোচনা হয়েছে। সবাই বলছিল, আগে চট্টগ্রামে বিজয় দিবস কিভাবে হত আর এখন কিভাবে হয় ?’

মুহাম্মদ আরিফ উদ্দীন লিখেছেন, ‘এসব কাজে ধান্ধা নাই। উনি (মেয়র) বিপ্লব উদ্যানে দোকান করছেন।’
আরেকজন লিখেছেন, ‘উনি এখন মেয়র নির্বাচনে মনোনয়ন নিয়ে ব্যস্ত। বিজয় দিবস পালনের সময় কোথায় ?’
সবার অনুভূতি মিশেছে এক মোহনায়। এমন মলিন, বিবর্ণ বিজয় দিবস যেন চট্টগ্রামবাসীর জীবনে আর না আসে।

SHARE