চট্টগ্রামেও বহু আগে বসেছে ফায়ার হাইড্রেন্ট, এখন প্রয়োজন জনসচেতনতা

1345

।।দেশরিভিউ-চট্টগ্রাম।। ঢাকার চকবাজার এলাকায় ভয়াবহ অগ্নিকান্ডের পর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ফায়ার হাইড্রেন্ট স্থাপনের পক্ষে প্রচারনা চলছে। অনেকেই বিশ্বের বিভিন্ন দেশে এই প্রযুক্তি ব্যবহার করে অগ্রিকান্ডে ক্ষয়ক্ষতি কমানোর কথা বলছেন। তাদের দাবী বাংলাদেশে  ফায়ার হাইড্রেন্ট স্থাপন করা হোক। অথচ ঢাকার বিভিন্ন এলাকার মতো চট্টগ্রামের বিভিন্ন এলাকা ঘুরেও ফায়ার হাইড্রেন্টের দেখা মিলেছে।

চট্টগ্রাম ওয়সা বহু আগেই ফায়ার হাইড্রেন্ট স্থাপন করেছেন। নগরীর বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ এলাকা ছাড়াও সরু গলিতে এই ফায়ার হাইড্রেন্ট স্থাপনের কাজ শেষ করেছে। এছাড়াও চলতি মৌসুমে সমগ্র নগরীতেই ফায়ার হাইড্রেন্ট স্থাপনের কাজও চলমান রয়েছে।

বিশ্লেষকরা বলছেন, শুধুমাত্র ফায়ার হাইড্রেন্ট বসালে যে অগ্নিকান্ডের ক্ষয়ক্ষতি কমানো সম্ভব এটা ভুল ধারনা। অগ্নিকান্ডে ক্ষয়ক্ষতি কমাতে সর্বপ্রথম প্রয়োজন সামাজিক সচেতনতা। নগরীর বিভিন্ন এলাকায় এখনো সরু গলি যেখানে একটি রিক্সা চলাচলে বেগ পেতে হয়। এসব এলাকায় ফায়ার সার্ভিসের গাড়ি যাওয়া অসম্ভব। ফায়ার সার্ভিসের যন্ত্রপাতি ও পাইপ নিয়ে এসব এলাকায় কাজ করার অতীত অভিজ্ঞতাও খুব খারাপ উল্লেখ করে চট্টগ্রামের ফায়ার সার্ভিসের সেচ্ছাসেবক মো: শাহজাহান বলেন, উৎসুক মানুষের কারনে কাজ করতে বেগ পেতে হয়। দীর্ঘপথ পাইপ টেনে পানি নিয়ে গেলেও মানুষে পদদলিত হয়ে তা অকার্যকর হয়ে যায়। 

SHARE